চট্টগ্রাম চাঁদপুর জাতীয় প্রধান খবর

স্বাধীনতা বিরোধী জঙ্গিবাদী চক্র বসে নেই চাঁদপুরে – শফিকুর রহমান

 চাঁদপুর unnamedপ্রতিনিধি : জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি মুহাম্মদ শফিকুর রহমান বলেছেন, সাংবাদিক ও গণমাধ্যমকে নিয়ন্ত্রণের জন্য নয়, সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, অপপ্রচার ও মানহানিকর প্রচারনা ঠেকানোর জন্য আইসিটি আইনের ৫৭ ধারার প্রস্তাবনা করা হয়েছে। এটি এখনো আইনে পরিনত হয়নি। আইন প্রণীত হলে তা বিচার বিশ্লেষণ করে যদি দেখা যায়, এটি সাংবাদিকদের অধিকার খর্ব করছে এবং সৎ ও বস্তুনিষ্ঠ সাংবাদিকতার অন্তরায় তাহলে সাংবাদিক সমাজ অবশ্যই এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাবে। তিনি বলেন, বাংলাদেশে অনলাইনে যেভাবে জঙ্গিবাদী প্রচারনা চালানো হচ্ছে এবং ধর্মকে অবমাননা করা হচ্ছে তা মোকাবেলার জন্য এই আইন প্রণয়নের উদ্যোগ গ্রহন করা হয়েছে বলে সরকারের তরফ থেকে বলা হচ্ছে। অবশ্য প্রবীণ সাংবাদিকদের মধ্যে অনেকেই বলেছেন, এই আইনটি সংবিধানের সাথে সাংঘর্ষিক। তিনি বলেন, দীর্ঘ প্রচেষ্টার পর জাতীয় প্রেসক্লাব স্বাধীনতা বিরোধী, জঙ্গিবাদীদের কবল থেকে মুক্ত করা হয়েছে। সাংবাদিক সমাজের জন্য এর সদস্যপদ উন্মুক্ত করা হয়েছে। কিন্তু স্বাধীনতা বিরোধী জঙ্গিবাদী চক্র বসে নেই। তারা একের পর এক মামলা করে জাতীয় প্রেসক্লাবের কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্থ করছে। মুহাম্মদ সফিকুর রহমান শুক্রবার বিকেলে চাঁদপুর প্রেসক্লাবের পক্ষ থেকে তাকে প্রদত্ত সংবর্ধনার জবাবে বক্তব্য রাখতে যেয়ে এসব কথা বলেন। ক্লাব সভাপতি শহীদ পাটওয়ারীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত ওই অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে সফিকুর রহমানের হাতে সংবর্ধরা ক্রেষ্ট তুলে দেন চাঁদপুরের প্রবীণ সাংবাদিক অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক মোহাম্মদ হোসেন খান। অন্যান্যের মধ্যে আলোচনায় অংশ নেন ক্লাবের সাবেক সভাপতি ইকরাম চৌধুরী, কাজী শাহাদাত, শাহ মোহাম্মদ মাকসুদুল আলম, অধ্যক্ষ জালাল চৌধুরী, গোলাম কিবরিয়া জীবন, সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা, সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন পাটওয়ারী, বি এম হান্নান, শরীফ চৌধুরী, টেলিভিশন সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক জি এম শাহীন, চাঁদপুর ফটো জার্ণালিষ্ট এসোসিয়েশনের সভাপতি এম এ লতিফসহ নেতৃবৃন্দ। অনুষ্ঠানে চাঁদপুর প্রেসক্লাব ছাড়াও চাঁদপুর জেলার ৮ উপজেলা প্রেসক্লাব, সাংবাদিকদের বিভিন্ন সংগঠন, চাঁদপুর থেকে প্রকাশিত ১১ টি দৈনিকের পক্ষ থেকে সফিকুর রহমানকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো হয়।এর আগে সকালে অনুষ্ঠিত হয় অবহিতকরণ সভা। দুপুরের বিরতির পর অনুষ্ঠিত হয় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও সাংবাদিক সমাবেশ। সমাবেশ উদযাপন কমিটির আহবায়ক সাংবাদিক নেতা কাজী শাহাদাতের সভাপতিত্বে দিনের শুরুতেই এসব কর্মসূচির উদ্বোধন করেন প্রবীণ সাংবাদিক শংকর চন্দ্র দে। বক্তব্য রাখেন প্রেসক্লাবের সভাপতি শহীদ পাটওয়ারী, সাবেক সভাপতি ইকরাম চৌধুরী, শাহ মোহাম্মদ মাকসুদুল আলম, সাধারণ সম্পাদক রহিম বাদশা ও সাবেক সাধারণ সম্পাদক বি এম হান্নান। সমাবেশে চাঁদপুর শহরে কর্মরত গণমাধ্যম কর্মীরা ছাড়াও জেলার ৮ উপজেলার দেড়শতাধিক সাংবাদিক অংশগ্রহন করে। সমাবেশে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ আইসিটি আইনের ৫৭ ধারা বাতিলের জোর দাবি জানিয়েছেন। তারা বলেন, এই আইনের মাধ্যমে দেশে স্বাধীন সাংবাদিকতার কন্ঠরোধ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যেই অনেক সাংবাদিককে নিগৃহীত পর্যন্ত করা হয়েছে। এটি সংবাদ মাধ্যমের জন্য ইতিমধ্যেই কালো আইন হিসেবে প্রমাণিত হয়েছে। তারা সারাদেশে সাংবাদিক নির্যাতন বন্ধ, রুগ্ন সংবাদমাধ্যমগুলোকে সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা প্রদান, সাংবাদিক সমাজের নিরাপত্তা নিশ্চিত এবং ঢাকার বাইরে কর্মরত সাংবাদিকদের জন্য বেতন রোয়েদাদ বোর্ড কার্যকর করারও জোর দাবি জানান।