অপরাধ চট্টগ্রাম জাতীয়

চট্টগ্রামে বাস-ট্রেন সংঘর্ষ

 রোমান শেখ, চট্টগ্রাম: চট্টগ্রামে একটি যাত্রীবাহী বাসের সাথে ট্রেনের সংঘর্ষে দুই জন নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো চার জন। আহতদের মধ্যে দুই জনের অবস্থা আশংকাজনক বলে চট্টগ্রাম মেডিক্যাল সূত্রে জানা যায়। নগরীর পাহাড়তলী থানাধীন এ কে খান ইস্পাহানী রেল গেইটে বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টা ১০ মিনিটে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার পরপরই চট্টগ্রামে থেকে তাৎক্ষনিকভাবে পুরো দেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে গেলেও পরে স্থানীয় পুলিশ ও ফায়ার সার্ভিসের প্রচেষ্ঠায় আবার রেল যোগাযোগ স্বাভাবিক হয়। মর্মান্তিক এ দূর্ঘটনায় নিহতদের পরিচয় পুলিশসহ সংশ্লিষ্ঠরা নিশ্চিত করতে পারেনি। আহতরা হলেন আবুল হাশেম (৬০), মাহবুবুল আলম (৫০), সুভাষ ও শামীম।রেলওয়ে পূর্বাঞ্চল সূত্রে জানা যায়, ট্রেন আসার আগেই লিফিটং ব্যারিয়ারের মাধ্যমে সড়কের দুই পাশে বেস্টনি একই সঙ্গে নামানো হয়। কিন্তু বাস চালক বেস্টনি পাশ কাটিয়ে লাইনের পাশে চলে যাওয়ায় দ্রুতগামী মেঘনা এক্সপ্রেসের সঙ্গে ধাক্কা লেগে দুর্ঘটনা ঘটে। তবে, সংঘর্ষের ঘটনায় বাস চালককের গাফিলতিকেই দায়ী করছেন সংশ্লিষ্টরা। তারা বলছেন, লাইনম্যান সংকেত দেওয়ার পরও লাইন ঘেষে দাঁড়িয়ে থাকার কারণেই দুর্ঘটনা ঘটেছে। দুর্ঘটনার বিষয়টি বুঝতে পেরে গাড়ির চালক ও সহকারী পালিয়ে পালিয়ে যায়। জিআরপি থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা হিমাংশু দাশ জানিয়েছেন, চট্টগ্রাম থেকে ঢাকার উদ্দেশ্যে ছেড়ে যাওয়া কর্ণফুলী এক্সপ্রেস ট্রেনটি ই¯পাহানি রেলওয়ে ক্রসিং অতিক্রম করে। এরপর অপরদিক দিক থেকে  চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে চাঁদপুর থেকে ছেড়ে আসা মেঘনা এক্সপ্রেস ট্রেনটি দ্রুত গতিতে পৌঁছে। বাস চালক অপেক্ষা না করে লাইনের পাশে চলে যায়। ফলে ট্রেনের ধাক্কা লেগে বাসটি দুমড়ে মুচড়ে যায়।
এতে ঘটনাস্থলে একজনের মৃত্যু এবং আরেকজনকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে মৃত্যু হয়। চমেক হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, ট্রেনের ধাক্কায় আহত বাস যাত্রীদের চমেক হাসপাতালে আনা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক এদের মধ্যে দুই জনকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত আরো চার জনের মধ্যে দুই জনের অবস্থা আশংকাজনক বলে জানা যায়। এদিকে, চট্টগ্রামগামী মেঘনা এক্সপ্রেসের সঙ্গে বাসের সংঘর্ষে দুজন নিহতের ঘটনায় পাঁচ সদস্যের তদন্ত কমিটি গঠন করেছে বাংলাদেশ রেলওয়ে।চট্টগ্রাম বিভাগীয় পরিবহন কর্মকর্তা ফিরোজ ইফতেখারকে কমিটির আহবায়ক করা হয়েছে। সদস্য করা হয়েছে বিভাগীয় প্রকৌশলী- ১ ও ডিভিশনাল সিগন্যাল অ্যান্ড টেলিকমিউনিকেশন প্রকৌশলীসহ আরো দুজনকে।