লাইফ স্টাইল

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যবসার প্রচারণা

 আফিফা জামান : প্রচারে প্রসার তা জানেন সর্বজনে। সেই প্রচারের ধরণ এখন পাল্টে গেছে। বিভিন্নভাবেই মানুষ ব্যবসার প্রসার বাড়াতে প্রচার চালিয়ে থাকেন। মিডিয়ারমাধ্যমে নিজ নিজ প্রতিষ্ঠানের প্রচার চালানো এখন সহজ বিষয়। তবে এভাবে প্রচারনার চালানোর খরচাপাতি অনেক। সে সব বিবেচনায় ইন্টারনেটকে মাধ্যম হিসেবে ব্যবহার করে আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের প্রচারণা চালাতে পারেন খুব সহজেই। চলুন দেখে নেওয়া যাক কিভাবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমকে কাজে লাগিয়ে বিভিন্ন ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের প্রচারণা চালানো যায়।

ভিডিও বানান : একটা ডিজিটাল ক্যামেরা আর ভিডিও সম্পাদনার ব্যবস্থা করতে পারলে আপনার ব্যবসার প্রচার বাড়াতে পারেন ভিডিও তৈরি করে। মানুষ ছোট ও আকষণীয় ভিডিও দেখতে খুবই পছন্দ করে। ইউটিউবে এ ভিডিও আপলোড করুন। দেখবেন কত দূর পৌছে গেছে আপনার ব্যবসার খবর।

কুইজ : কুইজে অংশগ্রহন করতে অনেকেই পছন্দ করেন। আপনার ব্যবসার প্রচারে ট্যুইটারকে কাজে লাগাতে পারেন। এ ক্ষেত্রে আপনার ব্যবসার সঙ্গে সম্পর্কিত বিষয়ে প্রশ্নউত্তর তৈরি করে আয়োজন করতে পারেন কুইজ প্রতিযোগিতার। আপনার ব্যবসা যদি কাপড় নিয়ে হয়, তাহলে এখানে টুইট করতে পারেন এবারের ঈদে ফ্যাশনেবল পোশাক কোনটি? এই ধরণের প্রশ্ন উত্তরের মাধ্যমে আপনার ব্যবসার প্রসার হবে।

শিশুদের নিয়ে প্রতিযোগিতা : বাচ্চাদের গুরুত্ব দিলে আপনি তাদের বাবা মায়ের নজরে আসতে বাধ্য। আপনার ব্যবসার সঙ্গে সম্পর্ক রয়েছে এমন কোনো বিষয়ের উপর ছবি আঁকার প্রতিযোগিতার আয়োজন করতে পারেন ফেসবুকে। জানিয়ে দিন, সেরা ছবিটি আপনার পেজে আপলোড করা হবে। এই প্রতিযোগিতার মাধ্যমে বাচ্চাদের পাশাপাশি তাদের বাবা-মায়েদেরও ব্যবসা সম্পর্কে অবগত করতে পারবেন।

বিশেষ সুবিধা : ফেসবুক, টুইটারের মতো সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে আপনি আপনার  প্রতিষ্ঠানের একটি পেজ তৈরি করেন। সেই পেজে আপনি আপনার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের পণ্যের ছবি পোস্ট করুন। তাছাড়া পণ্যের দাম ও এর গুণাগুন জানিয়ে বিজ্ঞাপন দিন। তাছাড়া এখানে প্রচুর অচেনা লোকজন আছে। তাই আপনি তাদের জন্য বিশেষ ছাড়ে ঘোষণা দিতে পারেন। যেমন- আপনার পেজে যারা লাইক দিবেন কিংবা ফলোয়ার হবেন তাদেরকে আপনি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে বিশেষ ছাড় দিবেন।

দলে থাকুন : লিংকডইনের গ্রুপে থাকতে অনেকেই পছন্দ করেন। আপনার ব্যবসা সংশ্লিষ্ট কোনো গ্রুপের সঙ্গে আপনি যুক্ত থাকলে তার মাধ্যমে আপনি আপনার ব্যবসার প্রচার চালাতে পারেন।

উৎসাহ দিন : যদি আপনার কাজে খুঁশি হয়ে আপনাকে কোনো চিঠি বা ম্যাসেজ পাঠিয়ে থাকে তবে, আপনি তাদের লেখা আপনার ব্যবসায়ীক পেজে শেয়ার দিতে পারেন। এর মাধ্যমে আপনার সঙ্গেক্লা ক্লায়েন্টের সু সম্পর্ক তৈরি হবে। তাই তারাও আপনার ব্যবসার প্রচারে সহযোগী হবে। আর আপনি তাদের ব্যক্তিগত পেজে লাইক দিন তাহলে তারাও উৎসাহ পাবে।

বাকিদেরও পাশে : সোশ্যাল নেটওয়ার্ক ওয়েবসাইটে যুক্ত থাকার কোনো না কোনো কারণ অবশ্যই আছে। আপনি যদি বাকিদের পেজে লাইক দেন তাহলে, তারাও ভালো কাজে উৎসাহিত হবে। ফলে আপনার সঙ্গে তাদেরও একটা সম্পর্ক গড়ে উঠবে। এতে আপনার প্রচার কাজে তারা পাশে থাকবে। পেজে লাইক করা বা শেয়ার করলে আখেরে আপনারই লাভ।

পরামর্শ দেওয়া : ট্যুইটারের ১৪০ ক্যারেক্টারের মধ্যে কোনো বিষয় নিয়ে গুছিয়ে বক্তব্য রাখা একটু কঠিন। এর যেমন খারাপ দিক আছে, তেমনি ভালো দিক আছে। কোনো একটি বিষয় নিয়ে আংশিক পরামর্শ বা পরামর্শের আবাস দিয়ে বাকিকটা দেখার জন্য আপনার ওয়েব সাইটে দেখার অনুরোধ করতে পারেন। সেক্ষেত্রে আপনার ওয়েবসাইটের জনপ্রিয়তা বাড়বে।

আলাপচারিতা : এই কাজের জন্য ওয়েসাইট আর ব্লক খুব কাজে আসে। এখানে এমন ব্যবস্থা রাখুন, যাতে আপনার ক্লায়েন্টরা মন্তব্য করতে পারে। সমালোচনা মন্তব্য মুছে ফেলার চেষ্টা করবেন বরং সেখান থেকে শেখার চেষ্টা করুন।