রাজনীতি

৫ বছরের আগে জাতীয় নির্বাচন নয় : ড. হাছান মাহমুদ

ঢাকা, ৩০ মার্চ (হটনিউজ২৪বিডি.কম) : আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক  ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, আমরা আলোচনায় বিশ্বাসী। তবে ৫ বছরের আগে জাতীয় নির্বাচন হবে না।

রোববার দুপুরে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির (ডিআরইউ) সাগর-রুনি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় একথা বলেন তিনি।  ‘ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টির (ন্যাপ) এ আলোচনা সভার আয়োজন করেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, আমরা আলোচনায় বিশ্বাসী। তার আগে খালেদা জিয়াকে স্বাধীনতায় বিশ্বাস ও তাঁর জন্ম তারিখ ঠিক করে স্বাধীনতা বিরোধীদের ত্যাগ করতে হবে।

বিএনপি চেয়ারপার্সনের তীব্র সমালোচনা করে তিনি বলেন, শনিবার খালেদা জিয়া আমাদের জাতীয় সংগীতকে নিয়ে কটাক্ষ করেছেন। এতে প্রমাণ হয়, তাদের কাছে আমাদের জাতীয় সংগীতের মর্যাদা নেই। স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্বও নিরাপদ নয়।

ড. হাছান বলেন, খালেদা জিয়া বলেছেন, এমন আন্দোলন করবেন গিনেস বুকে রেকর্ড করবেন। আমি খালেদা জিয়াকে বলব, একটু পড়াশোনা করার জন্য। গিনেস বুকে আন্দোলনের কোনো রেকর্ডের সুযোগ নেই।

সোমবারের উপজেলা নির্বাচন প্রসঙ্গে তিনি বলেন, উপজেলা নির্বাচনের আগের ধাপগুলোতে জনপ্রিতার জন্য আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থীরা নির্বাচিত হয়েছেন। সোমবারের নির্বাচনেও আমরা বিদ্রোহী দমন করে জনপ্রিয় প্রার্থী দিতে সক্ষম হয়েছি। আশা করি এবারও বিএনপির চেয়ে আমাদের সমর্থিত প্রার্থীরা বিপুল সংখ্যায় নির্বাচিত হবেন।

সাবেক মন্ত্রী বলেন, একাত্তরের অস্ত্রধারীদের নেতা হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও আমার শ্রদ্ধাভাজন খালেদা জিয়া। তার স্বামীও একই কাজ করেছিলেন। সেসময় জিয়া পাকিস্তানে বদলি হওয়ার পরও চট্টগ্রামে ‘সোয়াদ’ জাহাজ থেকে অস্ত্র খালাস করতে গেছেন। বাধার মুখে পড়ে সেখানে অবস্থান করছিলেন। পরে ঘটনা চক্রে তিনি মুক্তিযোদ্ধা। মূলত তিনি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর পক্ষে কাজ করেছেন। এ জন্য তাদের পক্ষ থেকে তার কাছে সন্তুষ্টির চিঠি পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, ওই সময় (১৯৭১ সালের ২৭ মার্চে ) চট্টগ্রামে থাকাকালীন জিয়াউর রহমান আওয়ামী লীগ নেতাদের সিদ্ধান্তে স্বাধীনতার ঘোষণা পড়ে শুনিয়েছেন। এর আগে ২৬ মার্চ সকালে তৎকালীন চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পদক এমএ হান্নান স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করে শুনিয়েছেন।

সভায় সংগঠনের সভাপতি মুস্তাক আহমেদ ভাসানী সভাপতিত্ব করেন।