জাতীয় পটুয়াখালী বরিশাল

ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে ভরসা কলাগাছ;নেই শহীদ মিনার

নিজস্ব সংবাদদাতা, কলাপাড়া, ২০ ফেব্রুয়ারি : কলাপাড়ায় অন্তত দুই শ’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন শহীদ মিনার নেই। ভাষা দিবসের আগের দিনে এসব বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা কলাগাছ, মাটি কিংবা কাঠ দিয়ে অস্থায়ীভাবে বানানো শহীদ মিনারে ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা নিবেদন করে। আর শহীদ মিনার না থাকায় প্রজন্মের পর প্রজন্ম প্রকৃত ইতিহাস জানতে পারছে না। ভাষা আন্দোলনের সঠিক চেতনা সম্পর্কে অজ্ঞ থেকে যাচ্ছে। ভাষা আন্দোলনের ছয়টি দশক পেরিয়ে গেছে। অথচ এই দৈন্যের কবল থেকে আগাতে পারেনি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো। কলাপাড়ায় দীর্ঘ প্রতিক্ষার পরে এ বছর অফিস মহল্লায় দৃষ্টি নন্দন কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার প্রতিষ্ঠা করেছে কলাপাড়া পৌরসভা কর্তৃপক্ষ। ফলে শহীদ মিনার কেন্দ্রীক কর্মসূচিতে নতুন বৈচিত্র এসেছে। কিন্তু গ্রামের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শহীদ মিনার নেই।উপজেলা শিক্ষা বিভাগের দেয়া তথ্যানুসারে কলাপাড়ায় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সংখ্যা প্রায় দু শ’। এছাড়া মাধ্যমিক পর্যায়ে মাদ্রাসা ২৮টি এবং বিদ্যালয় রয়েছে ৩৩টি। কলেজ রয়েছে ছয়টি। এছাড়া এবতেদায়ীসহ আরও প্রায় অর্ধশত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান রয়েছে। যার মধ্যে অন্তত দু শ’ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন শহীদ মিনার নেই। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস পালন উপলক্ষ্যে একদিন আগে এসব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা দায়সারা গোছের কলাগাছ কিংবা মাটি এমনকি কাঠ দিয়ে অস্থায়ীভাবে বানায় শহীদ মিনার। যেখানে যথাযথভাবে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে পারছে না। মাধ্যমিক পর্যায়ের স্কুল এবং কলেজগুলোতে নামকা ওয়াস্তে কিছু শহীদ মিনার রয়েছে। কিন্তু অধিকাংশ মাদ্রাসায় আবার নেই। তাই সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীক শহীদ মিনার নির্মাণের দাবি জানিয়েছে নতুন প্রজন্ম। মুক্তিযোদ্ধা  কলাপাড়া কমান্ডের ডেপুটি কমান্ডার হাবিবুল্লাহ রানা জানান, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কেন্দ্রীক শহীদ মিনার নির্মাণ বাধ্যতামূলক করা প্রয়োজন। নইলে নতুন প্রজন্ম ভাষা দিবসের তাৎপর্য জানা থেকে পিছিয়ে থাকবে। তিনি এও দাবি করেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের উপস্থিত থেকে স্ব স্ব প্রতিষ্ঠানে ভাষা দিবস কেন্দ্রীক কর্মসূচি পালনে কঠোর নির্দেশনা দেয়া প্রয়োজন।