প্রধান খবর রাজশাহী

সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ ছাড়া বিএনপি-জামায়াত কিছুই দিতে পারেনি: শেখ হাসিনা

রাজশাহীর চারঘাট উপজেলার সারদাহ পাইলট হাইস্কুল মাঠে স্থানীয় আওয়ামী লীগ আয়োজিত জনসভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশে সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদ থাকবে না। কাউকে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড করতে দেয়া হবে না।

তিনি বলেন, বিএনপি-জামায়াত ক্ষমতায় এলে দেশকে জঙ্গিবাদ ও সন্ত্রাস ছাড়া কিছুই দিতে পারে না। বিএনপির চেয়ারপারসনকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, তিনি (খালেদা জিয়া) ধ্বংসের রানি। শুধু ধ্বংস করতেই জানেন।

চারঘাট উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আনোয়ার হোসেনের সভাপতিত্বে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন সাবেক স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানক, রাজশাহী সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন, সাবেক খাদ্যমন্ত্রী আবদুর রাজ্জাক, নাটোর সদরের সাংসদ শফিকুল ইসলাম শিমুল, রাজশাহী-৪ আসনের সাংসদ ইঞ্জিনিয়ার  এনামুল হক, রাজশাহী দুই আসনের আয়েন উদ্দিন, রাজশাহী-১ আসনের সাংসদ সাবেক শিল্পপ্রতিমন্ত্রী ওমর ফারুক চৌধুরী প্রমুখ।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় হেলিকপ্টারযোগে চারঘাটে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সারদা পুলিশ একাডেমিতে ৩৩তম বিএসএস ক্যাডারের শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন তিনি।

পরে প্রধানমন্ত্রী শিক্ষানবিস সহকারী পুলিশ সুপারদের উদ্দেশে বক্তব্য দেন। এ ছাড়া তিনি চারঘাটে ১১ টি উন্নয়ন প্রকল্পের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন।

এর আগে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার সকাল সোয়া দশটায় রাজশাহীর সারদায় বাংলাদেশ পুলিশ একাডেমিতে ৩১তম বিসিএস (পুলিশ) ব্যাচের প্রশিক্ষণ সমাপন কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করে।

সেখানে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, তাঁর সরকার দেশে আইনের শাসন ও ন্যায়বিচার নিশ্চিত করতে প্রতিশ্র“তিবদ্ধ। এ ক্ষেত্রে পুলিশ সদস্যদের পেশাগত দক্ষতা, নিরপেক্ষতা, স্বচ্ছতা ও জবাবদিহির পাশাপাশি জনগণের প্রতি সুশীল আচরণ গুরুত্বপূর্ণ। পুলিশ সদস্যদের দুষ্টের দমন ও শিষ্টের পালন নিশ্চিত করতে হবে।
পুলিশ সদস্যদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘মনে রাখতে হবে, আপনাদের কাছে বিপদগ্রস্ত মানুষ আসে সাহায্যের আশায়। তারা যাতে অযথা কোনো হয়রানি ও দুর্ভোগের শিকার না হয়, তা নিশ্চিত করার মাধ্যমে সেবা প্রদান করতে হবে।’

প্রধানমন্ত্রী তাঁর বক্তব্যে ১০ ট্রাক অস্ত্র চোরাচালান, একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলা, ২০০৫ সালের ১৭ আগস্ট সারা দেশের ৬৩ জেলায় একযোগে সিরিজ বোমা বিস্ফোরণ, সিনেমা হল, আদালত চত্বরসহ বিভিন্ন জায়গায় বোমা হামলা চালিয়ে মানুষ হত্যার ভয়াবহতা তুলে ধরেন। তিনি বলেন, প্রতিটি সন্ত্রাসী ঘটনায় বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের প্রত্যক্ষ মদদ রয়েছে।

শেখ হাসিনা বলেন, গত ৫ জানুয়ারির নির্বাচন বন্ধ করতে বিএনপি ও তাদের দেশি-বিদেশি প্রভু, লবিস্ট, সুবিধাভোগী গোষ্ঠী এবং পেশাদার বুদ্ধিজীবীদের নানামুখী তৎপরতা ব্যর্থ হয়েছে। জনগণ স্বতঃস্ফূর্তভাবে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছে। গণতন্ত্র ও সংবিধান সমুন্নত রেখেছে।

আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় বরাদ্দ করা অর্থকে বিনিয়োগ হিসেবে বিবেচনার বিষয়টি উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, পুলিশের জনবল ও সরঞ্জাম বাড়ানো এবং নতুন ইউনিট সৃষ্টির ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকবে।

অনুষ্ঠানে স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান, পুলিশের মহাপরিদর্শক হাসান মাহমুদ খন্দকার ও একাডেমির অধ্যক্ষ নাইম আহামেদ উপস্থিত ছিলেন। ৩১তম বিসিএস (পুলিশ) ব্যাচের ১৭৬ জন শিক্ষানবিশ সহকারী পুলিশ সুপার কুচকাওয়াজে অংশ নেন।