অপরাধ ঢাকা

অবৈধ ভিওআইপির বিষয়ে ৭ বিদেশীর স্বীকারোক্তি

আদালত প্রতিবেদক: অবৈধ ভিওআইপি মামলায় সাত বিদেশী নাগারিক অদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবান বন্দি দিয়েছেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব-১ এর সহকারি পুলিশ সুপার কাজেমুর রশিদ আসামিদের ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিম আদালতে পাঠিয়ে তাদের স্বীকারোক্তি রেকর্ড করার আবেদন করেন। পরে ঢাকার পৃথক সাত মহানগর হাকিমের কাছে সাত আসামি স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দেন। এবিষয়ে পুলিশের এসআই ও ঢাকার আদালতের জেনারেল রেকর্ডিং অফিসার তাহেরা বানু সাংবাদিকদের জানান, আসামিরা বাংলা ও ইংরেজী ভাষা না জানায় দোভাষীর মাধ্যমে তাদের স্বীকারোক্তি রেকর্ড করেন আদালত। এরআগে এই মামলায় ২৩ জানুয়ারি ৪২ আসামিকে ৪ দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার অনুমতি দেয় আদালত। আসামিরা রিমান্ডে থাকা কালিন সময়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তার কাছে ঘটনার কথা স্বীকার করে আদালতে জবা বন্দি দেওয়ার কথা জানায়। স্বীকারোক্তিদেয়া সাত বিদেশী হলেন, লিন ইয়েন টিং, জং বো সেন, লিম জি জিং, লি জিয়া সুয়ান, হু য়ু ইয়াং, ইয়ান মিন হান এবং হো য়ু টিং। স্বীকারোক্তি দেয়া আসামিসহ এই মামলার ৪২ আসামিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন আদালত। গত ১৯ জানুয়ারি রাতে রাজধানীর উত্তরা-১২ নম্বর সেক্টরের ২৮ নম্বর বাড়িতে বাংলাদেশ টেলি-যোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের কর্মকর্তাদের সহায়তায় অভিযান চালিয়ে আসামিদের গ্রেফতার করে র‌্যাব। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে ৩৭ বিদেশী ও ৬ জন বাংলাদেশি নাগরিক রয়েছে। এই ৩৭ বিদেশী নাগরিকের মধ্যে ৩২ জন তাইওয়ান এবং পাঁচ জন চীনের নাগরিক। এছাড়া এই মামলার অন্যতম আসামি মোজাম্মেল হোসেন রাশেদে জামিন পেলেও অন্য মামলায় কারাগারে আছে। গ্রেফতারের সমসয় আসামিদের কাছ থেকে ল্যাপটপ, ওয়াকিটকি, ল্যান্ডফোন, বিভিন্ন ব্র্যান্ডের ক্যাবল, সিম, মডেম সহ প্রায় ১ কোটি টাকা মূল্যের বিভিন্ন ধরনের অবৈধ ভিওআইপি যন্ত্রপাতি জব্দ করা হয়। মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, আসামিরা পরস্পর যোগসাজসে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা করে রাষ্ট্রের বিপুল পরিমান অর্থনৈতিক ক্ষতি করেছে।