সারাদেশ হটনিউজ স্পেশাল

বাংলাবাজার-শিমুলীয়া নৌরুটে প্রতিটি ফেরি যাত্রীতে পরিপূর্ণ

ওয়াহিদ মুরাদ, মাদারীপুর:

বাংলাবাজার-শিমুলীয়া নৌরুটে ফেরি বন্ধ ঘোষণার পরও শনিবার সকাল থেকেই যাত্রী ও যানবাহনে শয়লাব হয়ে যায় ঘাট এলাকা। বেলা বাড়ার সাথে সাথে এ ভীড় আরও বাড়ে। এদিকে সকল যানবাহনের সাথে সাথে এ্যাম্বুলেন্স জরুরি সার্ভিস পারাপারেও বিলম্ব করে বিআইডব্লিউটিসি। এতে করে জরুরি রোগিরাও চরম ভোগান্তির শিকার হয়। যাত্রীচাপে দুপুরে সীমিত আকারে ফেরি চালু করতে বাধ্য হয় বিআইডব্লিউটিসি।

এদিন শিমুলীয়া পাড় থেকে ছেড়ে আসা প্রতিটি ফেরিই ছিল যাত্রীতে কানায় কানায় পরিপূর্ণ। যাত্রী চাপে প্রতিটি ফেরিই যানবাহন কম নিয়েই পারাপার হতে বাধ্য হয়। এদিকে ঢাকা থেকে অনেক ভোগান্তি শেষে শিমুলীয়া ঘাটে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষার পর ফেরিতে পদ্মা পাড়ি দিয়ে বাংলাবাজার ঘাটে এসে কোন গাড়ি না পেয়ে যাত্রীরা মটরসাইকেল, ৩ চাক্কার থ্রী হুইলার, ঈজিবাইকে চড়ে কয়েকগুন ভাড়া গুনে গন্তব্যে পৌঁছেন।

বিআইডব্লিউটিসিসহ ঘাট সূত্রে জানা যায়, শুক্রবার রাতে বাংলাবাজার-শিমুলীয়া নৌরুটে ফেরি বন্ধ ঘোষণা করে বিআইডব্লিউটিসি। তবুও শনিবার সকাল থেকেই উভয় পাড়ে যাত্রী ও যানবাহনের প্রচন্ড ভীড় শুরু হয়। বেলা বাড়ার সাথে যাত্রী ও যানবাহনে সয়লাব হয়ে যায় ঘাট এলাকা। ঘন্টার পর ঘন্টা ফেরির জন্য অপেক্ষা করেন যাত্রী ও যানবাহনগলো। এতে ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রীরা। অবশেষে যাত্রীচাপে বাধ্য হয়ে দুপুরে শিমুলিয়া থেকে মাত্র ২টি ফেরি চালু করে কর্তৃপক্ষ।

শিমুলীয়া থেকে ছেড়ে আসা ও বাংলাবাজার থেকে ছেড়ে যাওয়া প্রতিটি ফেরিতেই যাত্রী ছিল কানায় কানায় পরিপূর্ন। যাত্রীর চাপ এত বেশি ছিল যে কয়েকটি ফেরি শুধুমাত্র যাত্রী নিয়েই শিমুলীয়া থেকে বাংলাবাজার আসতে বাধ্য হয়। এদিন শিমুলীয়া ঘাট থেকে শুধুমাত্র যাত্রী নিয়ে ছেড়ে আসে রো রো ফেরি এনায়েতপুরী। ওই ফেরিটিতে একটি ট্রীপেই ৫ হাজারের বেশি যাত্রী পারাপার হয়। যাত্রী চাপে ওই ট্রীপে কোন গাড়িই নিতে পারেনি ফেরিটি। গাদাগাদি করে চলতে হয় সবাইকে। ফলে স্বাস্থ্যবিধি পালনের কোন হদিসই ছিল না।

ঢাকা থেকে পথে পথে বিভিন্ন হালকা যানবাহনে বাড়তি ভাড়া দিয়ে ফেরি ঘাটে ঘন্টার পর ঘন্টা অপেক্ষা শেষে ফেরিতে গাদাগাদি করে পদ্মা পাড়ি দিয়ে বাংলাবাজার ঘাটে এসে দক্ষিনাঞ্চলের জেলাগুলোতে পৌছতে যাত্রীরা আরো ভোগান্তির শিকার হন। দূরপাল্লার যানবাহন বন্ধ থাকায় বাংলাবাজার ঘাট থেকে অতিরিক্ত ভাড়া গুনে হালকা যানবাহনে যাত্রীরা গন্তব্যে পৌছেন।

বিআইডব্লিউটিসির কাঠালবাড়ি ঘাট ম্যানেজার মো. সালাউদ্দিন বলেন, যাত্রীদের চাপ অনেক বেশি থাকায় ফেরিতে যানবাহন পারাপার বিঘ্ন ঘটছে।

শিবচর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. মিরাজুল ইসলাম বলেন, সরকারের ঘোষনা অনুযায়ী এ নৌরুটের সকল ফেরি ও আন্ত:জেলা পরিবহন সার্ভিস বন্ধ রয়েছে। আমরা সরকারের নির্দেশনা বাস্তবায়নে ঘাট এলাকায় কঠোর অবস্থানে রয়েছি।