সারাদেশ হটনিউজ স্পেশাল

নিখোঁজের ২৭ ঘণ্টা পর পুকুর থেকে শিশুর মরদেহ উদ্ধার

হটনিউজ ডেস্ক:

গাজীপুরের কালিয়াকৈর উপজেলার মৌচাক ইউনিয়নের ভান্নারা পশ্চিম পাড়া গ্রাম থেকে নিখোঁজের ২৭ ঘণ্টা এক শিশুর মরদেহ পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।
গতকাল রোববার বিকেলে শিশু আরিয়ান মোল্লাহর মরদেহ মিলে বাড়ির পাশের একটি স্পিনিং মিলের পুকুরে।

পুলিশ নিহত আরিয়ান মোল্লাহর মরদেহ উদ্ধার করে গাজীপুর তাজউদ্দিন আহমেদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠান।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও নিহত শিশুর পরিবারের সদস্যরা জানান, স্থানীয় একটি পোশাক কারখানার শ্রমিক রায়হান মোল্লাহ দীর্ঘ দশ বছর আগে মানিকগঞ্জ থেকে নদী ভাঙা পড়ে ভান্নারা পশ্চিম পাড়া এলাকায় এসে একখণ্ড জমি কিনে বসবাস শুরু করেন। পরিবারে স্ত্রী আর দুই সন্তান নিয়েই সুখেই দিন কাটছিলো পোশাক শ্রমিক রায়হানের।

অনেক শখ করে রায়হান মোল্লাহ বিশ হাজার টাকা দিয়ে একটি অপু ব্যান্ডের মোবাইল সেট কিনেন। গেলো কয়েক দিন ধরে ভান্নারা আনন্দ মাল্টিমিডিয়া স্কুলের দ্বিতীয় শ্রেণিতে পড়ুয়া ছেলে আরিয়ান মোল্লাহ বায়না ধরে, ওই মোবাইল সেট দিয়ে গেমস খেলবে। তাই কয়েকদিন ধরেই সেই মোবাইল সেট ছেলের হাতে দিয়ে অফিসে চলে যান রায়হান মোল্লাহ।
গেলো শনিবার সেই একই নিয়মে ছেলের হাতে মোবাইল সেট দিয়ে দুপুরের খাবার শেষ করে চলে যান অফিসে। ছেলে রায়হান মোল্লাহ পেছনে পেছনে এসে বাবাকে টা টা দিতে দিতে বাড়ির বাইরে চলে আসে।

গতকাল শনিবার দুপুরের পর শিশু আরিয়ান মোল্লাহকে খুঁজে না পেয়ে বিকেল থেকে আশপাশের বাড়ি-ঘর, বন-জঙ্গলে খুঁজে না পেয়ে সন্ধ্যায় থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন রায়হান মোল্লাহ। গভীর রাত পর্যন্ত নিখোঁজ হওয়ার খবরটি আশপাশের এলাকায় মাইকিং করাও হয়।

পরে গতকাল রোবরাব বিকেলে পার্শ্ববর্তী হাজী ইসমাইল স্পিনিং মিলের পশ্চিম পাশে আকবর আলীসহ ৪-৫জন বড়শি দিয়ে মাছ ধরতে যান। পুকুরের পাশে যাওয়ার পর পরই শিশুর কালো চুল পানিতে ভাসতে দেখেন। পরে আকবর আলীসহ স্থানীয় ইউপি সদস্য তমিজ উদ্দিনকে ফোনে জানান।

এ খবর আশপাশে ছড়িয়ে পড়লে শত শত লোক পুকুরের পাড়ে এসে ভিড় জমায়। খবর পেয়ে মৌচাক পুলিশ ফাঁড়ির পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেন।
নিহত আরিয়ান মোল্লাহর বাবা রায়হান মোল্লাহ জানান, আমার কোনও শত্রু ছিলো না। তবে আমার ছেলেকে কেন হত্যা করলো।

মৌচাক পুলিশ ফাঁড়ির ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনির হোসেন জানান, এ শিশু নিহতের ঘটনাটি দামি মোবাইল সেটের কারণে হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে নিহতের শরীরে আঘাতের কোনও চিহ্ন পাওয়া যায়নি। পুকুরের মাছের ঠুকরানোর আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।