জাতীয় ঢাকা প্রধান খবর রাজনীতি সারাদেশ

এবার স্থানীয় নির্বাচনে ধারাবাহিক জয় ধরে রাখতে চায় আ. লীগ

নিজস্ব প্রতিবেদক,হটনিউজ২৪বিডি.কম,ঢাকা: এবার আওয়ামী লীগএকাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নিশ্চিত জয়ের লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানগুলোয় ধারাবাহিক জয় ধরে রাখতে চায় ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ। ক্ষমতাসীন দলটির শীর্ষ নেতাদের মতে, স্থানীয় নির্বাচনে জয়ের ধারা অব্যাহত থাকলে ধীরে ধীরে বিএনপির মাঠপর্যায়ের নেতাদের মনোবল দুর্বল হতে থাকবে। এর ফলে জাতীয় নির্বাচনে দলটি মাঠকর্মীদের মনোবল চাঙ্গা করতে পারবে না আর। আওয়ামী লীগের নীত-নির্ধারণী পর্যায়ের কয়েকজন নেতার সঙ্গে আলাপকালে এমন তথ্য জানা গেছে।

ক্ষমতাসীন দলটির কয়েকজন শীর্ষ নেতা বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনের জয় নিয়ে আত্মবিশাসী আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত শনিবার গাজীপুরের নব নির্বাচিত মেয়র জাহাঙ্গীর আলম গণভবনে দলীয় দেখা করতে গেলে দলের সভাপতি শেখ হাসিনা বলেন, ‘গাজীপুরের ভোট আগামী নির্বাচনে বিজয়ের পথ দেখাচ্ছে, বিজয়ের দিকে নিয়ে যাচ্ছে আওয়ামী লীগকে।’

আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সম্পাদকমণ্ডলীর পাঁচজন নেতা  বলেন, স্থানীয় নির্বাচনগুলোয় জয় নিশ্চিত করে সারাদেশে বিএনপির মাঠপর্যায়ের নেতা-কর্মী-সমর্থকদের মনোবল দুর্বল করে তুলতে চায় আওয়ামী লীগ। তারা দাবি করেন, এর উল্টো হলে একইভাবে আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মী-সমর্থকদের মনে চিড় ধরবে। তাই জেতার জন্য রাজনৈতিক সব কৌশল আওয়ামী লীগ গ্রহণ করতে চায়।

এই নেতারা আরও বলেন, ‘এরই ধারাবাহিকতায় নৌকার প্রার্থীর বিজয়ের জন্য খুলনা, গাজীপুরে সব কৌশল প্রয়োগ করা হয়েছে। আসন্ন রাজশাহী, বরিশাল ও সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনেও জয়ের ধারা অব্যাহত রাখবে ক্ষমতাসীনরা।’ তারা আরও বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনের আগে স্থানীয় নির্বাচনগুলোতে নৌকার প্রার্থীর পরাজয় ঘটলে জাতীয় নির্বাচনে দলীয় নেতা-কর্মী-সমর্থকদের ঘরের ভেতর থেকে বের করা যাবে না। গত মাসে দলের এক বৈঠকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সড়ক, পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী নিজেই বলেছেন, স্থানীয় নির্বাচনে পরাজিত হলে তৃণমূল নেতারা জাতীয় নির্বাচনে ঘর থেকে বের হবে না।’

ক্ষমতাসীন দলের নীতি-নির্ধারকরা বলছেন, জাতীয় নির্বাচন পর্যন্ত দলীয় নেতা-কর্মী-সমর্থকদের চাঙ্গা রাখতে চাইলে স্থানীয় নির্বাচনে জয়ের ধারা ধরে রাখতে হবে। পাশাপাশি তারা ঘর থেকে বের হয়ে গেলে আগামী নির্বাচন পর্যন্ত আর ঘরে ঢুকবে না। স্থানীয় নির্বাচনে জয়ী হওয়ার উৎসব মাঠে থেকে পালন করতে করতেই জাতীয় নির্বাচনের সময় চলে আসবে। কিন্তু ওইসব নির্বাচনে হেরে গেলে বিরূপ প্রভাব পড়ার আশঙ্কা থাকে, সাধারণ মানুষের মধ্যেও সংশয়-সন্দেহ দানা বাঁধতে শুরু করবে। তাই স্থানীয় নির্বাচনে পরাজয়ের কিঞ্চিত ‘রিস্ক’ও নেওয়া যাবে না।

আওয়ামী লীগের সভঅপতিমণ্ডলীর সদস্য কাজী জাফরউল্যাহ বলেন, ‘কোনও নির্বাচনে পরাজিত হলে যেকোনও রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের মনোবলে চিড় ধরে। তারা হতাশ হয়। সবগুলো রাজনৈতিক দলের নেতারাই চান যে, তাদের দলের প্রার্থীর বিজয়ী হবেন। এরই অংশ হিসেবে সিটি নির্বাচনগুলোতে আওয়ামী লীগের কর্মীরা চাইবেন নৌকার প্রার্থীই জয়ী হবে।’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘জয়-পরাজয়ই রাজনৈতিক দলের একমাত্র রাজনীতি।’

জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রহমান বলেন, ‘গত দশ বছর দেশ ও জনগণের কল্যাণে যেসব কাজ করেছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ তার সুফলই স্থানীয় সরকার নির্বাচনগুলোয় নৌকার প্রার্থীর বিজয় আসছে।’ তিনি বলেন, ‘জনগণ আওয়ামী লীগের প্রতি আস্থা রাখছে।’ আব্দুর রহমান বলেন, ‘জাতীয় নির্বাচনের আগে সব নির্বাচনে জয়ের ধারা অব্যাহত রাখাই আওয়ামী লীগের রাজনৈতিক কৌশল।’