আন্তর্জাতিক জাতীয় ঢাকা প্রধান খবর সারাদেশ

এবার রাখাইনে রোহিঙ্গা বিদ্রোহীদের অস্ত্রবিরতি

হটনিউজ ডেস্ক: এবার মিয়ানমারের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলে ত্রাণ কার্যক্রম ও মানবিক সহায়তা যেন বাধাগ্রস্ত না হয় সেজন্য অস্ত্রবিরতির ঘোষণা দিয়েছে রোহিঙ্গাদের সশস্ত্র সংগঠন আরাকান রোহিঙ্গা স্যালভেশন আর্মি। রবিবার এই মাসব্যাপী অস্ত্রবিরতি শুরু হবে। শনিবার ব্রিটিশ বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদন থেকে এসব তথ্য জানা যায়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রায় ৩ লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম মিয়ানমার থেকে বাংলাদেশে পালিয়ে এসেছে। ৩০ হাজার অমুসলিম বেসামরিকও ঘরছাড়া হয়েছেন ওই রাজ্যে। রোহিঙ্গা অধ্যুষিত গ্রামে আগুন লাগিয়ে দেওয়ায় খাবার ও বাসস্থান সংকটে ভুগছেন অনেক মানুষ। তাদেরই এখন সহায়তা প্রয়োজন।

এক বিবৃতিতে আরকান আর্মি জানায়, ‘আরসা মানবিক সহায়তার বিষয়টি উৎসাহিত করে। যেকোনও ধর্ম-বর্ণের মানুষের এখন এই সহায়তা প্রয়োজন। এজন্য আমরা অস্ত্রবিরতিতে যাচ্ছি।’

তবে এই পদক্ষেপের পরে পরিস্থিতি কোন দিকে মোড় নিবে তা এখনই বলা যাচ্ছে না। ২৫ আগস্ট একটি পুলিশ ঘাটিতে তাদেরই হামলার পর পরিস্থিতি বেশি খারাপ হয়। মিয়ানমার সরকারের দাবি, ওই সহিংসতায় শতাধিক মানুষ মারা গিয়েছিলেন যাদের বেশিরভাগই রোহিঙ্গা।

এর পরে মিয়ানমার সেনাবাহিনী হত্যাযজ্ঞ ও অভিযানে খুব বেশি প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি সংগঠনটি। গত দুই সপ্তাহে কয়েক হাজার ঘরবাড়িতে আগুন দেওয়া হয়েছে। হাজার হাজার মানুষ বাংলাদেশ সীমান্তে লুকিয়ে আছে। ত্রাণ কার্যক্রম সহায়তায় বিদ্রোহী সংগঠনটি মিয়ানমার সেনাবাহিনীকেও অস্ত্রবিরতির আহ্বান জানিয়েছে।