জাতীয়

আট মাসে ৪.৫ লাখ লোক চাকরি নিয়ে বিদেশে

২০১৬ সালের প্রথম আট মাসে বিদেশে মোট ৪ লাখ ৫২ হাজার ৪২০ জনের চাকরি হয়েছে। বছরের বাকি সময়ে এ সংখ্যা উল্লেখযোগ্য পরিমাণ বৃদ্ধি পাবে বলে ধারণা করা হচ্ছে। বছর শেষে বাংলাদেশ থেকে বিদেশে জনশক্তি রফতানির প্রবৃদ্ধির হার সন্তোষজনক হবে বলেই ধারনা করা যাচ্ছে। সরকারি সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে।
প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা শনিবার সাংবাদিকদের জানান, বিদেশে বাংলাদেশের এক কোটির অধিক লোক কাজ করছেন। দেশের আর্থ-সামাজিক অগ্রগতিতে তারা উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আন্তরিক প্রচেষ্টা ও গতিশীল নেতৃত্বে সরকার ২০০৯ সাল থেকে ২০১৬ সালের ১৭ আগস্ট পর্যন্ত ৩৮ লাখ ৫৮ হাজার ৭৮ জন শ্রমিককে বিশ্বের ৬৯ দেশে পাঠিয়েছে। পাশাপাশি সরকার সহজেই চাকরি পেতে দক্ষ ও আধা দক্ষ জনশক্তি তৈরি করতে বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করেছে।
সরকারি এ মুখপাত্র জানান, গত ১৭ আগস্ট পর্যন্ত চাকরি নিয়ে মোট ১ কোটি ১ লাখ ৫১ হাজার ১শত ৭ জন শ্রমিক বিদেশে গিয়েছেন। গত জুলাই পর্যন্ত তারা ১,৫৭,৫০০.৬৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার রেমিটেন্স দেশে পাঠিয়েছে। সরকার আরো নতুন নতুন শ্রম বাজার খুঁজে বের করার চেষ্টা করছে।
মুখপাত্র জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় সৌদি আরব সম্প্রতি সাত বছর পর বাংলাদেশী শ্রমিক নিয়োগের ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিয়েছে। সরকারি পরিসংখ্যান অনুযায়ী, সৌদি আরবে কর্মরত বাংলাদেশী ১.৩ মিলিয়ন শ্রমিকের মধ্যে প্রায় ৬০ হাজার নারী শ্রমিক চাকরি নিয়ে গিয়েছে। বাংলাদেশ এ পর্যন্ত মোট ৭৫ হাজার ৯৪৫ নারী শ্রমিককে বিদেশে পাঠিয়েছে।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন সরকারের আন্তরকি প্রচেষ্টায় বাংলাদেশী শ্রমিকদের জন্য বিভিন্ন দেশের সাথে বাংলাদেশের সরকার টু সরকার (জিটুজি) পর্যায়ে চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। সরকার নতুন নতুন শ্রম বাজার খুঁজে বের করার প্রচেষ্টা চালানেরা পাশাপাশি দক্ষতার জন্য প্রয়োজনীয় প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করছে। সরকার পাশাপাশি দেশের বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠীকে মানব সম্পদে পরিণত করতে ভাষা শিক্ষা কোর্স. ওয়েল্ডিং, ইলেক্ট্রিক্যাল ডেভিস, পাইপ ফিটিং, প্লান্টেশন,সুইং ট্রেড, রড বাইন্ডিংসহ বিভিন্ন কর্মসূচি বাস্তবায়ন করছে।
শ্রমিকদের প্রশিক্ষণের জন্য সারাদেশে প্রায় ৪৭টি বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ কেন্দ্র ও চারটি মেরিন প্রযুক্তি ইনিস্টটিউট স্থাপন করা হয়েছে। জনশক্তি দক্ষ করতে চার শতাধিক উপজেলায় ভোকেশনাল ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন করতে প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে।