আন্তর্জাতিক

ব্রিটিশ বাবারা পৃথিবীর সবচেয়ে ‘বাজে’ বাবা

17-9-290x163 (1)আন্তর্জাতিক ॥ হটনিউজ২৪বিডি.কম : ইংরেজ কবি উইলিয়াম ওয়ার্ডসওয়ার্থ বলেছিলেন, ‘বাবা’- এই শব্দটার যতটুকু পবিত্রতা, তা তো ঈশ্বরই দিয়ে রেখেছেন।’ আর তাই সন্তানের কাছে বাবারা কখনো খারাপ হয় না। যেকোনো সন্তানকে জিজ্ঞাসা করবেন- বাবারা কি কখনো খারাপ হতে পারে? উত্তরটা হবে, ‘নিশ্চয় না’।

নিঃসন্দেহে প্রত্যেক বাবাই হচ্ছে তার সন্তানের কাছে পৃথিবীর শ্রেষ্ঠ বাবা। তবে এবার এই বিশ্বাসে চিড় ধরিয়ে দিল একটি ব্রিটিশ গবেষণা সংস্থা। তাদের মতে, যুক্তরাজ্যের বাবারা হচ্ছেন পৃথিবীর সবচেয়ে ‘বাজে’ বাবা।

উন্নত বিশ্বের দেশগুলোর বাবাদের ওপর গবেষণা করে এমন সিদ্ধান্তেই পৌঁছেছে ব্রিটিশ গবেষণা সংস্থা ‘ফাদারহুদ ইনস্টিটিউট’। তাদের পরিবার বিষয়ক সূচক ফেয়ারনেস ইন ফ্যামিলিস ইনডেক্সে ‘বাজে’ বাবাদের তালিকায় শীর্ষে উঠে এসেছেন ব্রিটেনের বাবারা।

সূচকে দেখা যায়, যুক্তরাজ্যের বাবারা তাদের সন্তানদের ঘণ্টায় সময় দেন মাত্র ২৪ মিনিট। ১৫টি দেশের ওপর গবেষণাটি চালানো হয়েছে। এতে সবচেয়ে ভালো বাবাদের তালিকায় উঠে আসে পর্তুগালের বাবারা। প্রতি ঘণ্টায় তারা তাদের সন্তানদের সময় দেন ৩৯মিনিট।

গত বছর অবশ্য ২১টি দেশের ওপর চালানো জরিপে এই তালিকায় ১১তম অবস্থানে ছিল ব্রিটিশ বাবারা। এবারের গবেষণায় সন্তানদের দেখাশোনার চেয়ে গৃহস্থালির কাজেকর্মে মাকে সহায়তা করার ক্ষেত্রে ব্রিটিশ বাবারা অনেক ভালো অবস্থানে আছেন। প্রতি ঘণ্টায় রান্নাবান্না এবং ঘরের কাজে ৩৪ মিনিট সময় ব্যয় করেন তারা। এদিক থেকে ১৫টি দেশের মধ্যে তাদের অবস্থান পঞ্চম।
তবে সন্তানদের বাবারা কম সময় দেয়ার পেছনে তিনটি প্রধান কারণ খুঁজে পেয়েছেন গবেষকরা। এগুলো হচ্ছে: বাবাদের ঠিকমতো বেতন না পাওয়া, মা-বাবাদের ছুটির ক্ষেত্রে অসম ব্যবস্থা এবং মা-কেন্দ্রিক পরিবার ব্যবস্থা।

ফাদারহুড ইনস্টিটিউটের প্রধান উইল ম্যাক ডোনাল্ড বলেন, ‘এটা স্পষ্ট যে বাবারা তাদের সন্তানদের দেখশোনায় আসলেই সময় দিতে চান। তবে মায়েরা তাদের আরো বেশি সময় দিতে পারেন।’