হটনিউজ স্পেশাল

সহকারী স্টেশন মাস্টার নিয়োগে জটিলতা কাটছে

৪৬.নিজস্ব প্রতিবেদক, হটনিউজ২৪বিডি.কম ৯ এপ্রিল : অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করে বেতন গ্রেড অবনমনের জটিলতা নিরসনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। ফলে আলোর মুখ দেখছে রেলের সহকারী স্টেশন মাস্টার (এএসএম) নিয়োগ প্রক্রিয়া।

রেলের কর্মচারীদের আন্দোলনের মুখে গত ২৯ মার্চ অর্থ মন্ত্রণালয়ের বাস্তবায়ন অণু বিভাগের প্রজ্ঞাপনে এএসএম-দের নিয়োগে ২০০৯ সালের  জাতীয় বেতন স্কেল অনুযায়ী ৪ হাজার ৯০০ টাকায় সংশোধন করা হয়েছে। শর্ত সাপেক্ষে সংশোধিত এ গ্রেড প্রদানে দ্রুত সময়ের মধ্যে প্রজ্ঞাপন জারির নির্দেশনা দেয়া হয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, স্বাভাবিক নিয়মে রেলের এএসএম নিয়োগে প্রারম্ভিক বেতন গ্রেড ৪ হাজার ৯০০ (২০০৯ সালের বেতনগ্রেড অনুযায়ী) হলেও সর্বশেষ নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে ৪ হাজার ৭০০ টাকা ঘোষণা করে রেলওয়ে।

ভুলবশত বেতন গ্রেড কমানোয় রেলের উর্দ্ধতন পর্যায়ে লিখিত অভিযোগ দেয় স্টেশন মাস্টার ও কর্মচারীদের সংগঠন বাংলাদেশ রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার ও কর্মচারী ইউনিয়ন। সাংবাদিক সম্মেলনসহ আন্দোলনের মাধ্যমে নতুন নিয়োগে বেতন গ্রেড সংশোধন না করলে বৃহত্তর আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হয়।এর আগেই গত ৪ মার্চ চট্টগ্রাম  ও রাজশাহীতে  লিখিত পরীক্ষা নেওয়ার প্রতিবাদে হাইকোর্টে রিট আবেদনের প্রস্তুতি নেয় তারা।

তবে আন্দোলনরত রেলকর্মীদের সঙ্গে আলোচনার প্রেক্ষিতে অর্থ মন্ত্রণালয় বেতন গ্রেড সংশোধনের মাধ্যমে সৃষ্ট জটিলতা নিরসন করেছে বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার ও কর্মচারী ইউনিয়নের চট্টগ্রাম বিভাগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ নেজাম উদ্দিন বলেন, অর্থ মন্ত্রণালয় যেহেতু জটিলতা নিরসন করেছে তাই আমরা রিট মামলা তুলে নিয়েছি।

স্টেশন মাস্টার নিয়োগ প্রক্রিয়ার বিরুদ্ধে নয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, ১৪০টি স্টেশন বন্ধ রয়েছে।তাই আমরাও চাই নিয়োগ হোক।কিন্তু একই পদে দুই ধরনের বেতন কাঠামো হবে কেন। আমরা মৌলিক অধিকারের জন্য আন্দোলন করেছি।

‘আমাদের দাবি পূরণ হয়েছে। এখন আমরা চাই স্বচ্ছতার সঙ্গে দ্রুত সহকারী স্টেশন মাস্টার নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হোক যোগ্যতা ও মেধার ভিত্তিতে।’

অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন অনুসারে, মন্ত্রণালয় বাংলাদেশ রেলওয়ের সাংগঠনিক কাঠামোর সহকারী স্টেশন মাস্টার গ্রেড-২ বিলুপ্তির আদেশ জারি করতে হবে। তবে আগের দেওয়া শিক্ষাগত যোগ্যতা (স্নাতক) বহাল থাকবে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় ও অর্থ বিভাগের ব্যয় নিয়ন্ত্রণ অণু বিভাগের সম্মতিপত্রের সকল শর্ত প্রতিপালন এবং নিয়োগ বিধির সকল নিয়মকানুন যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে।

মন্ত্রণালয়ের সহকারী সচিব মো. ইউনূছ আলী স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে সর্বশেষ ঘোষিত নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি বাতিল করে এএসএম-দের বেতন গ্রেড ১৬ থেকে উন্নীত করে ১৫ গ্রেড করা হয়েছে বলে জানানো হয়।

রেলওয়ে সূত্রে জানা গেছে, ২০১৪ সালের ২৯ জুন সরকার প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে ৩০০টি স্টেশন মাস্টারের পদকে (গ্রেড-১৪) বিলুপ্ত ঘোষণা করে। সহকারী স্টেশন মাস্টারের মঞ্জুরিকৃত পদ কম থাকায় এ পদে ৩০০টি পদ মঞ্জুর করা হয়। এর আগে সহকারী স্টেশন মাস্টারের পদের গ্রেড বিন্যাস ১৫তম থাকলেও তা ১৬তম গ্রেডে নামিয়ে আনা হয়। বর্তমানে চাকরিরত সহকারী স্টেশন মাস্টাররা ১৫তম গ্রেডে বেতন পেলেও নতুন  নিয়োগ বিজ্ঞপ্তির ফলে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় অচলাবস্থা তৈরির আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল।

এদিকে গত ৪ মার্চ চট্টগ্রামের ১৬টি ও রাজশাহীর ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ২৭০ পদের বিপরীতে ৬৬ হাজার ৫৭৭জন পরীক্ষার্থী নিয়োগ পরীক্ষায় অংশ নেয়। রেলকর্মীরা গ্রেড সংশোধন না হলে উচ্চ আদালতে রিট আবেদনের প্রস্তুতি নিলেও অর্থ মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন জারির ফলে দ্রুত সময়ের মধ্যে নিয়োগ প্রক্রিয়া সম্পন্ন হবে বলে জানিয়েছেন নিয়োগ কমিটির সদস্যরা।

নিয়োগ কমিটির একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তা বলেন, নিয়োগ প্রক্রিয়ার জটিলতার কারণে রেলের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ স্টেশন মাস্টার নিয়োগ প্রক্রিয়া ঝুলে যাওয়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছিল।তবে মন্ত্রণালয় থেকে প্রজ্ঞাপন জারির ফলে গ্রেড অবনমনের বিষয়টি সমাধান হবে।ফলে নিয়োগ প্রক্রিয়ার আর কোন সংশয় নেই।

গ্রেড অবনমনের বিষয়টি সুরাহা না হলে উচ্চ আদালতে রিট করার পাশাপাশি ২৫ ফেব্রুয়ারি থেকে রেলপথ বন্ধ করে দেয়ার ঘোষণা দেয় রেল কর্মচারীরা। এর কয়েক দিন পর রেল সচিব ও মহাপরিচালক আন্দোলনরত কর্মীদের সঙ্গে বৈঠক করে জটিলতা নিরসনের আশ্বাস দিলে আন্দোলন কর্মসূচি স্থগিত করা হয়।
হটনিউজ২৪বিডি.কম/এআর