ঢাকা লাইফ স্টাইল শিক্ষাঙ্গন

জলরঙে বুঁদ শিশুশিল্পীরা

indexহটনিউজ ডেস্ক: মায়ের হাত ধরে রঙ ও চিত্রাঙ্কন কর্মশালায় অংশ নিতে এসেছে শিশুশিল্পী নুদার। পুরো নাম দারিমি তাইয়েবা আহমেদ। তার গভীর মনোযোগ যখন ছবি আঁকায় ঠিক তখন নাম জানতে চাওয়ায়, কিছুটা বিরক্ত। তবুও আঁকা থামিয়ে দ্রুত জবাব দেয়। পরমুহুর্তেই ফের ডুব দেয় নিজের ছোট্ট ক্যানভাসে। তুলিতে তার সদ্য শেখা জলরঙের যাদু। চোখে সৃষ্টির দুরন্ত উচ্ছাস।

একই টেবিলে ছবি আঁকার চেষ্টায় বুঁদ রাবেয়া আক্তার বর্ষা, কাজী নক্ষত্র রহমানসহ বেশ কয়েকজন। ফয়সাল আমিন চৌধুরী, তুনাযজিনা মারিয়া আনসা, তাতানাসহ আরো কয়েকজন শিশুশিল্পী পাশের টেবিলে। কারো বয়সই চার-পাঁচ থেকে আট-নয়ের বেশী নয়। প্রত্যেকেই রঙ, তুলি নিয়ে মহাব্যস্ত। অবশ্য আঁকিবুকির ফাঁকেই চলছে গল্প, আলাপ আর দুষ্টুমি।

একইসঙ্গে শিশুদের অজস্র জিজ্ঞাসায় অবিরত জর্জরিত হচ্ছেন প্রশিক্ষকরা। বিরামহীন চিত্তে তারাও বুঝিয়ে চলেছেন। বলে বুঝিয়ে কাজ না হলে প্রয়োজনে হাত লাগিয়ে দেখিয়ে দিচ্ছেন, কিভাবে কি করতে হবে। গুরু-শিষ্যদের যৌথ প্রচেষ্টায় চলতি সপ্তাহেও একের পর এক শিল্পকর্ম তৈরী হওয়া শুরু হয়েছে। ‘ক্যানভাস আর্ট ক্যাম্প ২০১৬’ – এর চতুর্থ বা শেষ সপ্তাহের প্রথম দিনের (১১ মার্চ, শুক্রবার) দুুপুরের চিত্রটা ছিলো এমনই।

সেন্টার ফর এডভান্স নারচারিং এন্ড ভিজ্যুয়াল আর্ট স্টাডিজ (ক্যানভাস) এবং নেসন হাট লিমিটেডের উদ্যোগে চতুর্থবারের মতো আয়োজিত ক্যাম্পটি শুরু হয়েছে গত ২০ ফেব্রুয়ারি। রাজধানীর পল্লবীর ৩২ নম্বর সড়কে ‘ক্যানভাস’ -এর নিজস্ব ক্যাম্পাসে চলমান এ ক্যাম্পে এই সপ্তাহে রঙ ও চিত্রাঙ্কন বিষয়ে হাতে-কলমে শেখাচ্ছেন শিল্পী তাসফিক হোসাইন, তাহিয়া হোসাইন ও চলচ্চিচত্র নির্মাতা ফাহিম ফেরদৌস। এর আগের তিন সপ্তাহে তাদের – কারু ও মৃত্তিকা শিল্প, স্থির ও ছাপচিত্র এবং ভাস্কর্য ও সমন্বিত শিল্পকলা বিষয়ে শেখানো হয়েছে।

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিন ও শিশু দিবস উদযাপন উপলক্ষে আগামী ১৭ মার্চ পল্লবীতে এক চিল্ড্রেন আর্ট ফেস্ট অনুষ্ঠিত হবে। ওই উৎসবে শিশুদের তৈরী শতাধিক শিল্পকর্ম প্রদর্শিত হবে। মূলত এরই অংশ হিসেবে চলছে কর্মশালা – ‘ক্যানভাস আর্ট ক্যাম্প ২০১৬’।  কর্মশালা ও উৎসব সম্পর্কে আয়োজকদের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে, এর উদ্দেশ্য শিশুশিল্পীদের মনোজগতের মনন ও ভাবপ্রকাশের বিজ্ঞানকে একটুখানি উসকে দেয়া।

‘ক্যানভাস আর্ট ফেস্ট ২০১৬’ শীর্ষক ওই উৎসবে অনুষ্ঠিতব্য উম্মুক্ত চিত্রাঙ্কন প্রতিযোগীতায় অংশ নিতে শিশুদের নাম নিবন্ধন করতে হবে। ‘ক্যানভাস’ – পল্লবী ক্যাম্পাস ছাড়াও উৎসবের ওয়েবসাইট canvasartfest.com – এ নিবন্ধন ফরম পাওয়া যাবে। এটি সংগ্রহ বা জমাদানের জন্য কোনো ফি দিতে হবে না।

এদিকে – আর্ট ক্যাম্পে অংশগ্রহনকারী শিশুদের আজ (১১ মার্চ, শুক্রবার) বিকেলে সেগুনবাগিচায় শিল্পকলা একাডেমিতে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে শিল্পী শাওন আকন্দের সলো এক্সিবিসন ‘দেখা, না-দেখা’ ঘুরে দেখে তারা। বিভিন্ন শিল্পকর্ম নিয়ে শিশুরা শিল্পী শাওনের সাথে আলাপেরও সুযোগ পায়।

এর আগে আর্ট ক্যাম্পের প্রথম সপ্তাহে কারু ও মৃত্তিকা শিল্প বিষয়ক কর্মশালা চলাকালে শিশুরা মাটির টেরাকোটা, পুতুল, ফুল ও গিফট কার্ড তৈরী করেছে। এ বিষয়ের প্রশিক্ষক ছিলেন শিল্পী শাহীন মোহম্মদ রেজা। পরের সপ্তাহে থেকে স্থির ও ছাপচিত্র বিষয়ক কর্মশালায় প্রশিক্ষক ছিলেন শিল্পী নওরীন জাহান, মাহিন জয়েস এবং চলচ্চিচত্র নির্মাতা ফাহিম ফেরদৌস। ওই সপ্তাহে অর্ধশতাধিক ছাপচিত্র তৈরী করেছে অংশগ্রহনকারীরা। তুলেছে তাক লাগিয়ে দেয়ার মতো অজস্র স্থিরচিত্র। শিখেছে সেগুলো প্রিন্ট করার কলাকৌশল। তৃতীয় সপ্তাহে শিল্পী পলাশ চৌধুরী ও ফাহমিদা আফরোজ শিখিয়েছেন ভাস্কর্য ও সমন্বিত শিল্পকলা। এ সপ্তাহেও নতুন নতুন শিল্পকর্ম তৈরী হয়েছে ক্ষুদে শিল্পীদের হাতে।

প্রতিষ্ঠালগ্ন (২০১৩) থেকেই বঙ্গবন্ধুর জন্মদিনে এই উৎসব আয়োজন করে আসছে ‘ক্যানভাস’। এবারও এতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন র্কাটুনিস্ট আহসান হাবীব, আনুশেহ আনাদিল, শিল্পী, কবি ও নির্মাতা টোকন ঠাকুর, মিডিয়াকর্মী এশা ইউসুফ, নির্মাতা সামির অহমেদ, স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব ইলিয়াস উদ্দিন মোল্লাসহ আরো অনেকে। পুরস্কার বিতরনী পর্ব শেষে গান গাইবেন শোয়েব, রিজভী, কুয়াশাসহ আরো অনেকে। এর আগে সকালে গোষ্ঠ গান করবে কুষ্টিয়া থেকে আগত শিল্পীবৃন্দ। এছাড়াও থাকছে জলপুতলের পাপেট শো। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখবেন ক্যানভাসের প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান কাজী মোস্তফা আলম (এফসিএ)।

এই উৎসবের সাথে সাথে যুক্ত রয়েছে রেডিও এবিসি, বিডিনিউজ টুয়েন্টিফোর ডটকম। এর ইভেন্ট ম্যানেজমেন্ট করবে চৌরাস্তা মার্কেটিং এন্ড কম্যুউনিকেশন, অডিও-ভিজ্যুয়াল ডকুমেন্টেশন করবে সেনাস্ত স্টুডিও। পেডিহোপ হসপিটাল থাকছে স্বাস্থ্য পরিচর্যা পার্টনার হিসেবে। এছাড়া গিফট পার্টনার হিসেবে থাকছে নাভানা। এই আয়োজন সম্পর্কিত খবর প্রকাশ প্রকাশ করে উৎসবের প্রচারে ও প্রসারে সহযোগিতা করবেন, এই প্রত্যাশা।