জাতীয়

সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ ও অর্থপাচারের অপরাধ তদন্তের ক্ষমতা পাচ্ছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ ও অর্থপাচারের অপরাধ তদন্তের ক্ষমতা পাচ্ছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়
সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ ও অর্থপাচারের অপরাধ তদন্তের ক্ষমতা পাচ্ছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়

ঢাকা, ২৭ অক্টোবর ২০১৫, নিরাপদনিউজ: সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ ও অর্থপাচার বন্ধ সংক্রান্ত ২৭ ধরনের অপরাধ তদন্তে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কর্তৃত্ব দেয়ার সুপারিশ করেছে অর্থ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি।
একই সঙ্গে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থিত বাংলাদেশ দূতাবাসগুলোতে গুরুত্ব অনুযায়ী ট্র্যাক্স লিঁয়াজো অফিস স্থাপনের সুপারিশ করা হয়েছে।
জাতীয় সংসদ ভবনে মঙ্গলবার অনুষ্ঠিত কমিটির ১১তম বৈঠকে এসব সুপারিশ করা হয়।
কমিটির সভাপতি ড. মো. আব্দুর রাজ্জাকের সভাপতিত্বে বৈঠকে কমিটির সদস্য অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আব্দুল মুহিত, অর্থ প্রতিমন্ত্রী এম. এ. মান্নান, মো. আব্দুল ওয়াদুদ, টিপু মুন্শি, ফরহাদ হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী এবং আখতার জাহান অংশ নেন।
বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর, অর্থ বিভাগের সিনিয়র সচিব এবং জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যানসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।
কমিটি সূত্র জানায়, ১ নম্বর সাব-কমিটি থেকে প্রাপ্ত প্রতিবেদনের উপর আলোচনা ও সিদ্ধান্তের উপর আলোচনা হয়। সাব-কমিটির সুপারিশ অনুযায়ী বীমা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের কার্যক্রম আরো কার্যকর করতে অতিদ্রুত জনবল নিয়োগ এবং তাদের প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করার পরামর্শ দিয়েছে কমিটি।
বৈঠকে উন্নয়ন সারচার্জ ও লেভী (আরোপ ও আদায়) বিল, ২০১৫ নিয়ে আলোচনা হয়।
এসময় মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মোবাইল ফোন ব্যবহাকারীরা যেসব সেবা গ্রহণ করেন তার মূল্যের উপর ১ শতাংশ সারচার্জ আরোপ করা হলে বছরে প্রায় ১৪০ কোটি টাকা সারচার্জ আদায় করা সম্ভব হবে যা শিক্ষা ও স্বাস্থ্য উন্নয়নে ব্যয় করা যায়।
কমিটি উক্ত অর্থ শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতের একটি নির্দিষ্ট সমস্যা সমাধানে বিশেষ করে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট নির্মাণের মত কাজে ব্যবহার করার সুপারিশ করে।