খুলনা

কুষ্টিয়ায় লালন একাডেমীর নির্বাচন জমে উঠেছে

images (4)কাঞ্চন কুমার,কুষ্টিয়া:কুষ্টিয়ার জমে উঠেছে লালন একাডেমির নির্বাচন। প্রার্থীরা দিন রাত ছুটছেন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে। লালন একাডেমির নির্বাচনে প্রার্থীদের মাঝে প্রতিক বারাদ্দ করা হয়। প্রতিক বরাদ্দের পর প্রার্থীরা নতুন উদ্দোমে কাজ শুরু করেছেন। এবারের নির্বাচনে শক্তিশালী দুটি প্যানেল প্রতিদ্বন্দিতা করছে।এরা হল,ম.মনিরুজ্জামান-জাহিদ-মুকুল-সেলিম প্যানেল ও আব্দুর রশিদ-ফজলে করিম-তাইজাল আলী-মঞ্জু প্যানেল। প্রতীক পাওয়ার পরপরই আলাদা আলাদা প্যানেল পরিচিত করে প্রতিকের ছবি সম্বলিত লিফলেট তৈরি করে ভোটারদের দ্বারে দ্বারে যাচ্ছেন প্রার্থীরা। নির্বাচন কমিশনার যুব উন্নয়ন অধিদপ্তর কুষ্টিয়ার উপ-পরিচালক মোর্শেদ আলম জানান, ১৭ টি পদের বিপরিতে মনোনয়নপত্র ক্রয় করেন ৩৮ জন এর মধ্যে ৩৭ জনের মনোনয়ন পত্র জমা দেন। প্রার্থীদের মধ্যে একজন ১ জন মহিলা রয়েছেন। তিনি জানান, এবার লালন একাডেমিতে মোট ভোটার ১৫ হাজার ৪শ ৩১ জন। এর মধ্যে আজীবন সদস্য ১হাজার ৭শ ৭২ জন, বাকী ১৩ হাজার ৬শ ৫৯ জন রয়েছে সাধারণ সদস্য। বেশ কয়েকদিন আগে থেকেই ভোটারদের আকর্ষন বাড়াতে এবং নিজের এবং প্যানেলের পরিচয় তুলে ধরতে ব্যানার ফেষ্টুন পোষ্টার হ্যান্ডবিল ও স্থানীয় পত্রিকায় বিজ্ঞাপন দিয়ে প্রচারনার কাজ চালিয়ে যাচ্ছে প্রার্থীরা। জানা গেছে কুষ্টিয়া ছাড়াও লালন একাডেমীর ভোটাররা ছড়িয়ে ছিটিয়ে আছে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে তাই তাদের কাছে ভোট চাইতে প্রার্থীরা ছুটছেন দেশের বিভিন্ন জেলা শহরে। এদিকে নির্বাচনে ম.মনিরুজ্জামান-জাহিদ-মুকুল-সেলিম প্যানেল প্রার্থীদের মধ্যে প্রতীক পেয়েছেন ম.মনিরুজ্জামান(গরুর গাড়ী),জাহিদ হোসেন(তাল গাছ),রেজানুর রহমান খান চৌধুরী মুকুল(চেয়ার),সেলিম হক(ছাতা),আব্দুস সামাদ(কাপপিরিচ),শহিদুল ইসলাম (টিউবওয়েল),আব্দুল কুদ্দুস(বালতি),সেলিম উদ্দিন(মাছ),মাহমুদুর রহমান আল কাদেরী (হারিকেন),নাসির উদ্দিন সরকার(চশমা),এ্যাড. আলী আকবর মোল্লা(ঘুড়ি),শফিউর রহমান(তারা),ইউনুসুর রহমান লিটন(হাতি),শাহাজ্জুল হোসেন(ক্রিকেট ব্যাড),আব্দুর রাজ্জাক বাচ্চু(আনারস),শেখ আহমেদ আলী(উড়োজাহাজ)ও জিল্লুর রহিম(বটগাছ) মার্কা। আব্দুর রশিদ-ফজলে করিম-তাইজাল আলী-মঞ্জু প্যানেল প্রার্থীদের মধ্যে প্রতিক পেয়েছেন আব্দুর রশিদ চৌধুরী(বাই সাইকেল),ফজলে করিম(কুড়েঘর),তাইজাল আলি খান(মই),এনামুল হক মঞ্জু(চাকা),আলতাফ হোসেন(হরিণ),আমজাদ আলী খান (দেওয়াল ঘড়ি),সুলতান আহমেদ(কলম),আলতাফ হোসেন মোল্লা(কোদাল),নজরুল ইসলাম মেরু(রিক্সা),দেলোয়ার হোসেন(আম),এ্যাড.এসএম মনোয়ার হোসেন মুকুল (তালা),সোহেল রানা(মোমবাতি),নিহাদুল হক(মোরগ),ইশারুল ইসলাম (সিলিংফ্যান), নাসির উদ্দিন(হাতুরী),ইব্রাহীম হোসেন স্বপন(জগ),আব্দুল কুদ্দুস শেখ(দোয়াতকলম) মার্কা। তবে এবারের নির্বাচন হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের মধ্যে দিয়ে হচ্ছে। দলীয়ভাবে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা না করা হলেও প্রার্থীরা সবাই রাজনৈতিক দলের নেতা বা সমর্থক। তাই নির্বাচনে রাজনৈতিক প্রভাব মুক্ত হচ্ছেনা। প্রার্থীদের মধ্যে যে যে দলের নেতা-কর্মী -সে সেদলের সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করছে। তবে কোন প্যানেলই কারোর চেয়ে কম শক্তিশালী নয়। আওয়ামীলীগ নেতা তাইজাল আলী খান লালন একাডেমীর সহ-সভাপতি থাকাকালীন সময় প্রচুর সাধারন ভোটার তৈরী করেছে। তিনি ভাবছেন এবারের নির্বাচনে ব্যাপক ভোটের ব্যবধানে নির্বাচিত হবেন। কিন্তু ভোটাররা বলছেন তাইজাল আলী খান সহ-সভাপতি থাকাকালীন সময়ে লালন একাডেমীর বিভিন্ন উন্নয়ন মুলক কর্মকান্ড ও লালনের অনুষ্ঠানকে ঘিরে ব্যাপক অনিয়ম আর অর্থ লুটপাট করা হয়েছে। সে দিক থেকে ভোটযুদ্ধে তিনি অনেকটা পিছিয়ে। তবে এখনো সময় আসে তিনি তার পক্ষে ভোটারদের সমর্থন আদায়ে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন ।