অপরাধ খুলনা

জাহিদ হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটনের পথে

images (9)খুলনা ব্যুরো:বাগেরহাটের ফকিরহাট সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান খান জাহিদ হাসান (৪৮) হত্যা মিশনে থাকার অন্যতম কিলার আলমগীর ওরফে বাঘা (৩৫) হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেছে। শনিবার সে আদলতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য প্রদান করেছে। সেই সঙ্গে হত্যাকান্ডে সম্পৃক্তদের নাম প্রকাশ ও এ হত্যাকান্ডের জন্য অর্থ যোগানদাতাদের সম্পর্কেও তথ্য দিয়েছে।

বিকেলে বাগেরহাট চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক সাইদুর রহমানের কাছে সে এই স্বীকারোক্তি প্রদান করে। খুলনা জেলা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক ইলিয়াস আলী ফকির বলেন, বাঘাকে শুক্রবার রাতে রূপসা উপজেলার পূর্ব রূপসা বাসস্ট্যান্ড থেকে গ্রেপ্তার করা হয়। এরপর তাকে জেলা গোয়েন্দা কার্যালয়ে রেখে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়। জিজ্ঞাসাবাদকালে সে ইউপি চেয়ারম্যান জাহিদ হত্যাকান্ডে সম্পৃক্ত থাকার কথা স্বীকার করে। এবং তার সঙ্গে হত্যাকান্ডে অংশ নেয়া অন্যান্য সহযোগিদের নাম প্রকাশ করে। একই সঙ্গে হত্যাকান্ডের পরিকল্পনাকারী ও অর্থ যোগানদাতের সম্পর্কেও গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে।

উল্লেখ্য, গত ১৮ মে সকালে খুলনার ভাড়া বাসা থেকে ফকিরহাট নিজ ইউনিয়ন পরিষদের কার্যালয়ে যাওয়ার পথে রূপসা উপজেলার কুদিরবটতলা অদূরে আমদাবাদ স্কুলের সামনে জাহিদ হাসানকে গুলি করে হত্যা করে সন্ত্রাসীরা। সন্ত্রাসীদের গুলিতে জাহিদকে বহন করার মটর সাইকেল চালক মুন্নাও নিহত হয়।