জাতীয় রাজশাহী

৬ দফাই ছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতা- মমতাজ উদ্দিন

image_1265_157687বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মমতাজ উদ্দিন বলেন, বাঙালী জাতি বীরের জাতি। লড়াই-সংগ্রাম করে তারা তাদের অধিকার আদায় করেছে। বাঙালী জাতির অর্থনৈতিক, সামরিক, সাংস্কৃতিক এবং সামাজিক বঞ্চনা থেকে মুক্তি দিতেই বঙ্গবন্ধু ৬ দফা দিয়েছিলেন। যার মূল লক্ষ্য বাংলাদেশের স্বাধীকার হলেও তা পরবর্তীতে স্বাধীনতায় রূপ নেয়। তৎকালিন সময়ে ৬ দফা শাসক গোষ্ঠির হৃদকম্পন সৃষ্টি করেছিল। বাংলাদেশের লাহোড় প্রস্তাবে আলাদা রাষ্ট্রের বিষয়টি অস্বীকার করে তারা যে বাঙালী জাতিকে হেয় প্রতিপন্ন করেছিল তার সমুচিত জবাব ছিল ৬ দফা। ৬ দফার ভিত্তিতে আলাদা রাষ্ট্রের যে স্বপ্ন সেটিই বাঙালী জাতিকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র উপহার দিয়েছিল। শাসক শ্রেণীরা বঙ্গবন্ধুকে সবসময় হেয় প্রতিপন্ন এবং বিতর্কীত করার চেষ্টা করেছে। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর দৃঢ় নেতৃত্বের কারনে তারা সফল হতে পারেনি। মহান ’৭১-এ হত্যা, নির্যাতন, ধর্ষন করেও বাঙালী জাতিকে দাবিয়ে রাখতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু ক্ষমতার লোভে কখনই শাসক শ্রেণীর সাথে অপোষ করেননি। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন হওয়ার পর নানামুখি ষড়যন্ত্র, নানা অপপ্রচার করে তারা বঙ্গবন্ধুর সরকারকে বিতর্কীত করার চেষ্টা করেছিল। জাতির নেতা বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে অ¯প্রদায়িক বাংলাদেশের পরিবর্তে একটি ধর্মভিত্তিক রাষ্ট্রে পরিণত করার চেষ্টা করা হয়। বাংলাদেশ নামক দেশটি পাকিস্তানি কায়দায় পরিচালিত হতে থাকে। বঙ্গবন্ধু কন্যা দেশরতœ শেখ হাসিনা ক্ষমতায় আসার পর বঙ্গবন্ধুর সেই লালিত স্বপ্ন অ¯প্রাদায়িক বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠায় সচেষ্ট হন। আজ তার নেতৃত্বে স্বাধীনতা বিরোধীদের বিচার চলছে। আর এই স্বাধীনাতা বিরোধীদের রক্ষা করতে মাঠে নেমেছে ধর্ম ভিত্তিক রাষ্ট্রের অনুসারি পাকিস্তানের পেতাত্মারা। তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা বেঁচে থাকতে তা বাস্তবায়ন হতে দেবে না। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বেই আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করেই যুদ্ধাপরাধীদের বিচার শেষ করে অর্থনৈতিকভাবে সম্মৃদ্ধশালী একটি মধ্যম আয়ের দেশ হিসেবে বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা লাভ করবে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলার আদলে ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাঙালী জাতি অগ্রণী ভুমিকা রাখবে। ষড়যন্ত্র, অপপ্রচার করে বাঙালী জাতির অগ্রযাত্রাকে ব্যাহত করার প্রয়াস সফল হবে না।

শুক্রবার বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে দলীয় কার্যালয়ে ঐতিহাসিক ৬ দফা দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি উপরোক্ত কথা বলেন।

সভায় বক্তব্য রাখেন, জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান মজনু, জেলা পরিষদ প্রশাসক ডাঃ মকবুল হোসেন, রাগেবুল আহসান রিপু, প্রদীপ কুমার রায়, এ্যাডঃ আমান উল্লাহ, অধ্যাপক রফিকুল ইসলাম, আব্দুস সাত্তার, যাহেদুর রহমান, আহসান হাবিব আম্বিয়া, খালেকুজ্জামান রাজা, সাজেদুর রহমান শাহীন, আল রাজী জুয়েল, মাশরাফী হিরো, ডালিয়া নাছরিন রিক্তা, কামরুল হাসান ডালিম, জুলফিকার রহমান শান্ত প্রমুখ। এর আগে সকাল ৭টায় দলীয় কার্যালয়ে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলন এবং বঙ্গবন্ধু ও জাতীয় চার নেতার প্রতিকৃতিতে পু®পমাল্য অর্পণ করা হয়।