জাতীয় ঢাকা প্রধান খবর রাজনীতি

বিদ্রোহীরা পাবে গুরুত্বপূর্ণ পদ একক প্রার্থী নিশ্চিত করতে

 HASINA-e1424622554713 স্টাফ করেসপন্ডেন্ট,হটনিউজ২৪বিডি.কম,ঢাকা: বিভক্ত ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে মেয়র ও কাউন্সিলর পদে অবশ্য একক প্রার্থী থাকবে। কেউ দলীয় সিদ্ধান্ত অমান্য করে প্রার্থী হলে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। আর বিদ্রোহীদের যারা প্রার্থিতা প্রত্যাহার করবেন তাদের দলে গুরুত্বপূর্ণ পদ দেয়া হবে।

শুক্রবার রাতে গণভবনে ঢাকার দলীয় এমপি, মহানগর আওয়ামী লীগ, সহযোগী সংগঠনের ওয়ার্ড, ইউনিয়নের নেতাদের সঙ্গে এক জরুরি বৈঠকে এ কথা বলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এসময় ডিসিসির দুই মেয়র প্রার্থীকে আনুষ্ঠানিকভাবে পরিচয় করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, ‘বৃহত্তর স্বার্থে সবাইকে দলীয় সিদ্ধান্ত মানতে হবে। কেউ দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করলে সে যত বড়ই নেতা হোন না কেন, কোনো ছাড় দেয়া হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে উত্তরে আমাদের প্রার্থী হচ্ছে আনিসুল হক। আর দক্ষিণে হচ্ছে সাঈদ খোকন।’

এরপর দলীয় নেতাকর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘দুই মেয়র প্রার্থীকে আপনাদের হাতে তুলে দিলাম। তাদেরকে নির্বাচনে জয়ী করার দায়িত্ব আপনাদের।’ এসময় নগর নেতারা এক হয়ে কাজ করে দলীয় প্রার্থীদের বিজয়ী করে আনার অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

বৈঠক সূত্রে জানা যায়, সিটি করপোরেশন নির্বাচন উপলক্ষে গঠিত ১৫টি টিমের সহায়তা নিয়ে একক কাউন্সিলর প্রার্থী নিশ্চিত করতে মহানগর নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন শেখ হাসিনা। এ কাজে প্রধান সমন্বয়কের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে নগর আওয়ামী লীগের নেতা এমএ আজিজ, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া ও অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলামকে।

শেখ হাসিনা জানিয়েছেন, আগামী দু’একদিনের মধ্যে আপনাদের সঙ্গে বসে চূড়ান্ত তালিকা করা হবে।

একক প্রার্থী নিশ্চিত করতে তিনি বলেছেন, মেয়র বা কাউন্সিলর পদে যেখানে একাধিক প্রার্থী আছেন সেখানে দলই চূড়ান্ত প্রার্থী ঘোষণা করবে। আর যারা দলের সিদ্ধান্ত মেনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করবে তাদের দলে গুরুত্বপূর্ণ পদ দেয়া হবে। এইভাবে ভারসাম্য করতে নির্বাচিত কাউন্সিলররা দলের কোনো পদ পাবেন না।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন- শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, কৃষিমন্ত্রী বেগম মতিয়া চৌধুরীসহ কেন্দ্রীয় ও নগর নেতারা।