অপরাধ জাতীয় প্রধান খবর সারাদেশ

ল্যাপটপ উদ্ধারে বিটিআরসির চেয়ারম্যানকে সহায়তার নির্দেশ

 আদালত প্রতিবেদক: সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনি চুরি হওয়া ল্যাপটপ উদ্ধারে সহায়তার জন্য বিটিআরসির চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। ঢাকা মহানগর হাকিম মুহাম্মদ আনোয়ার ছাদাত এ আদেশ দেন। আদেশে বলা হয়, মামলার ঘটনা স্পর্শকারত ও চাঞ্চল্যকর। এ ছাড়া দীর্ঘদিন মামলা তদন্তাধীন থাকায় বিচার বিলম্বিত হচ্ছে। সেক্ষেত্রে তদন্তকারী কর্মকর্তাকে সার্বিক সহায়তা প্রদানের জন্য বিটিআরসির চেয়ারম্যানকে নির্দেশ দেওয়া হইল। আগামি ২ ফেব্রুয়ারি পুলিশ প্রতিবেদনের জন্য দিন ধার্য করা হলো। এ নিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৩০ তম বারের মতো সময় পেছালো। এরআগে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‌্যাব সদর দফতরের ইনভেস্টিগেশন অ্যান্ড ফরেনসিক শাখার সহকারী পরিচালক মো. ওয়ারেছ আলী মিয়া আদালতে একটি অগ্রগতি প্রতিবেদন দাখিল করেন। প্রতিবেদনের বলা হয়, ১৫৮ জন সাক্ষির জবানবন্দি গ্রহণ করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্র থেকে ডিএনএ পরীক্ষার রিপোর্ট পাওয়া গেছে। যা পর্যালোচনা করা হচ্ছে। ২৭ জন ইলেকট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ার সাংবাদিককে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। অগ্রগতি প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ঘটনাস্থল থেকে চুরি যাওয়া ল্যাপটপ উদ্ধারে বিটিআরসির সহায়তা চাওয়া হয়েছে। এছাড়া ইন্টারনেট সেবা দানকারী প্রতিষ্ঠানের কাছেও চিঠি দেওয়া হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়েছে। ২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাতে রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারে নিজেদের ভাড়া বাসায় খুন হন এ সাংবাদিক দম্পতি। এ মামলার ৭ আসামি মিন্টু ওরফে বারগিরা মিন্টু, বকুল মিয়া, কামরুল হাসান অরুণ, রফিকুল ইসলাম ও আবু সাঈদ, বাড়ির দারোয়ান পলাশ রুদ্রু পাল ও অপর দারোয়ান এনাম আহমেদ ওরফে হুমায়ুন কবির কারাগারে আটক রয়েছে। এছাড়া দীর্ঘ ২৬ মাস কারাগারে আটক থাকার পর সম্প্রতি হাইকোর্টের নির্দেশে জামিনে মুক্তি পেয়েছেন আসামি তানভীর রহমান।