খেলা সাক্ষাতকার

নাসিরের “দুঃসময়” ক্যারিয়ারের

10

হটনিউজ২৪বিডি.কম,ঢাকা: পারফরম্যান্স দিয়ে বাংলাদেশ দলের অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন অলরাউন্ডার নাসির হোসেন। কিন্তু দলের শীর্ষ তারকা থেকে ধুপ করে পতিত হতেও খুব বেশি সময় নেননি ডানহাতি ব্যাটসম্যান। দুঃসময় বা ক্যারিয়ারের ব্যাডপ্যাচে পড়ে সেই নাসির জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে সদ্য সমাপ্ত হোম সিরিজে জাতীয় দলে ছিলেন না। টাইগারপ্রেমীদের জন্য যা খুব কষ্টের। সবচেয়ে বড় কথা হলো, জাতীয় দলের আর্বিভাবের পর নাসিরের জীবনে এমন ঘটনা এই প্রথম। সেজন্য বাংলাদেশ দলের দ্য ফিনিশারের জন্য বিষয়টা ‍হজম করা খুব কঠিন। আর সেটাই যেন জাগিয়ে দিয়েছে পুরনো নাসিরকে। এবারের প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটে ব্যাট-বলে দারুণ করছেন তিনি।

আগামী ২০১৫ সালের অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ড বিশ্বকাপের জন্য টাইগারদের চূড়ান্ত দল ঘোষণা করা হবে জানুয়ারির প্রথম সপ্তাহে। তার আগে ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন লিগের পারফরম্যান্স বিবেচনায় আনবেন নির্বাচকরা। এই বিষয়টি অজানা নয় নাসিরের। সেটাই যেন জাগিয়ে দিয়েছে নাসিরকে। এখন প্রিমিয়ার লিগে দারুণ ধারাবাহিকতা দেখাচ্ছেন জাতীয় দলের অলরাউন্ডার। বুধবার যেমন নাসিরের রূদ্রমূর্তির শিকার হয় মোহামেডান। আবাহনীকে ম্যাচ জেতাতে বল হাতে ১ উইকেট নেয়ার পাশাপাশি ব্যাট হাতে ঝড়ো ৮২ রান করেছেন তিনি। নাসিরের এই ফিরে আসা কি বিশ্বকাপকে মাথায় রেখে? রংপুরের অলরাউন্ডার বিষয়টিকে স্ট্রেইট ড্রাইভে নাকোচ করে দিচ্ছেন। তিনি জানাচ্ছেন, বিশ্বকাপের কথা মাথায় নেই আমার। আপাতত প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেটে ভালো খেলা নিয়েই যাবতীয় চিন্তা আমার। কেননা বিশ্বকাপের কথা চিন্তা করে বোঝা বাড়াতে চান না তিনি। বুধবার দলকে জিতিয়ে ম্যাচসেরা নাসির বিশ্বকাপ ও নিজেকে নিয়ে অনেক কথাই বললেন। হটনিউজ২৪বিডি.কমের পাঠকদের জন্য তুলে ধরা হচ্ছে তা-

প্রশ্ন : দারুণ ইনিংস খেলে আবাহনীকে জেতালেন। এটি কি বিশ্বকাপ দলে থাকার পথে বিশেষ কোনো ইঙ্গিত?
নাসির : আমি যদি বিশ্বকাপের জন্য খেলি তাহলে আমার জন্য পারফর্ম করা কঠিন হয়ে যাবে। আমার লক্ষ্য ম্যাচ টু ম্যাচ ভালো খেলা। এখানে উত্তর দেয়া কিংবা বিশ্বকাপের কথা মাথায় ছিল না আমার। তবে একটি বিষয় বলতেই হবে আমি যখন খেলি দলের অবস্থা মাথায় রেখেই ভালো করার চেষ্টা করি।

প্রশ্ন : আপনার এই পারফরমেন্সটা কি দলে সুযোগ পাওয়ার দাবীটা জোরালো করলো?
নাসির: বিশ্বকাপে খেলার জন্য আমার এমন কোন দাবি নেই। এটা দেখার জন্য নির্বাচকরা আছেন, বোর্ড অফিসিয়ালরা আছেন। আর তারাই বিষয়টা দেখবেন। আমার কাজ ভালো খেলার চেষ্টা করা।

প্রশ্ন : আপনার কাছে কি মনে হচ্ছে আপনি আগের পারফরম্যান্স ফিরে পেয়েছেন?
নাসির: আসলে আন্তর্জাতিক ম্যাচে খেলা আর প্রিমিয়ার ডিভিশনে খেলার মধ্যে বিস্তর পার্থক্য আছে। তবে যেখানেই খেলি নিজের সর্বোচ্চটাই দেয়ার চেষ্টা করি, দলের হয়ে অবদান রাখতে চাই।

প্রশ্ন : ম্যাচের মধ্যে দুইবার ডাক্তারের সাহায্য নিয়েছেন। কোনো ইনজুরির সমস্যা নাকি?
নাসির: না তেমন কিছু নয়। আমার কাফ মাসলে একটু টান লেগেছে মাত্র। আসলে আমি একটু কম পানি খাই – তাই এমন হয়েছে।

প্রশ্ন : আজকের ৮২ রানের ইনিংসটা কি আপনাকে কিছুটা হলেও রিলিফ দিচ্ছে?
নাসির : আসলে ব্যাটসম্যানদের জন্য প্রতিটি ইনিংসই অনেক গুরুত্বপূর্ণ। যে কোন পর্যায়ের খেলাই হোক না কেন, রান করলে সেটা খুব গুরুত্বপূর্ণই হয়। ক্যারিয়ারে ও আত্মবিশ্বাসের ক্ষেত্রে এটা অনেক সাহায্য করবে। তেমনেই একটি ইনিংস ছিল, হাঁ, এ ইনিংস আমার আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে।’

প্রশ্ন: আবাহনী-মোহামেডানের খেলায় উত্তেজনা?
নাসির: আবাহনী-মোহামেডান ম্যাচ বাংলাদেশের ঘরোয়া লিগে সবচেয়ে বড় ম্যাচ। কিন্তু বিষয়টি আমি মাথায় আনিনি। তবে বড় ম্যাচের দলকে সাহায্য করতে ভালো লাগে আমার। এর মজাই আলাদা।

প্রশ্ন: দলের এমন মুহুর্তে ব্যাটিং করতে কি সবসময়ই ভালো লাগে?
নাসির: তা তো অবশ্যই। এটা খুব পছন্দ আমার।

প্রশ্ন: আপনি যখন মাঠে নামলেন তখন কি মনে হয়েছিল যে ম্যাচটা জিততে পারবেন?
নাসির: নামার সময় মনে হয়েছেঅনেক সহজে ম্যাচটা জিতবো আমরা। কিন্তু যত সময় যাচ্ছিলো বিষয়টা ততোই কঠিন হয়ে আসছিলো।

###নূরে আলম জীবন###