কিশোরগঞ্জ ঢাকা রাজনীতি

বিকেলে খালেদার জনসভা কিশোরগঞ্জে

 নিজস্ব প্রতিবেদক : নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে দ্রুত নির্বাচনের দাবিতে বিএনপির চলমান আন্দোলনে জনগণকে সম্পৃক্ত করতে দেশব্যাপী ধারাবাহিক সফরের অংশ হিসেবে বুধবার কিশোরগঞ্জে যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। এ দিন সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তিনি তার গুলশানের বাসভবন থেকে রওনা হবেন।

বিএনপি যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী জানিয়েছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন সকালে নিজ বাসভবন থেকে রওনা হয়ে নয়াপল্টনের দলীয় কার্যালয়ের সামনে দিয়ে কাঁচপুর ব্রিজ হয়ে কিশোরগঞ্জের উদ্দেশে যাত্রা করবেন।

তিনি আরো জানান, বিএনপি প্রধানের কিশোরগঞ্জ সফর উপলক্ষে সেখানকার দলীয় নেতা-কর্মী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের মধ্যে উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। তারা খালেদা জিয়াকে বরণ করে নিতে উন্মুখ হয়ে আছেন। ওই জনসভা ঐতিহাসিক জনসভায় রূপ নেবে বলে মনে করেন তিনি।

বিএনপি চেয়ারপারসন কিশোরগঞ্জে পৌঁছে জেলা সার্কিট হাউজে কিছুক্ষণ বিশ্রাম নেবেন। এরপর বিকেল ৪টার দিকে জেলার গুরুদয়াল সরকারি কলেজ মাঠে স্থানীয় ২০ দল আয়োজিত জনসভায় উপস্থিত হবেন। সেখানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন তিনি।

এর আগে দেশব্যাপী ধারাবাহিক জনসম্পৃক্ত কর্মসূচির অংশ হিসেবে নীলফামারী ও নাটোরে জনসভা করেন তিনি।  আগামী ২৯ নভেম্বর কুমিল্লায় একটি জনসভায় অংশ নেবেন বিএনপির চেয়ারপারসন।

আমাদের কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি জানিয়েছেন, বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার আগমন উপলক্ষে জেলা শহরে এখন সাজসাজ রব। একই সঙ্গে বিএনপি নেতা-কর্মীদের মাঝেও তুমুল উচ্ছ্বাস ও আনন্দ দেখা যাচ্ছে। সারা শহর এখন তোরণ, ফেস্টুন, ব্যানার, পোস্টার ও লিফলেটে ছেয়ে গেছে। হঠাৎ শহরের বাইরে থেকে কেউ আসলে মনে করবে, এ যেন তোরণ আর ফেস্টুনের শহর।

বেগম খালেদা জিয়ার আগমন বার্তা সকলের দ্বারে দ্বারে পৌঁছে দিতে নেতা-কর্মীদের এই আয়োজন। তারা নেত্রীকে বরণ করে নিতে প্রস্তুতি আর নিরাপত্তা নিশ্চিতে কোনো কমতি রাখছেন না। এ উপলক্ষে ভৈরব উপজেলা থেকে শুরু করে কিশোরগঞ্জ সরকারি গুরুদয়াল বিশ্ববিদ্যালয় মাঠ পর্যন্ত দীর্ঘ প্রায় ৭৬ কিলোমিটার রাস্তা জুড়ে তৈরি করা হয়েছে প্রায় ৭ শতাধিক তোরণ। রাস্তায় শোভা পাচ্ছে স্থানীয় নেতা-কর্মীদের শুভেচ্ছা সম্বলিত কয়েক হাজার ফেস্টুন। প্রায় ১ মাস আগ থেকেই এ প্রস্তুতি চলছে।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া সর্বশেষ ২০০৬ সালে কিশোরগঞ্জে আসেন।