আন্তর্জাতিক

নিখোঁজ বিমানের ব্ল্যাকবক্স উদ্ধারে অভিযান শুরু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক, ৪ এপ্রিল (হটনিউজ২৪বিডি.কম) : এবার জলের তলে খোঁজ শুরু হয়েছে নিখোঁজ মালয়েশীয় বিমান ফ্লাইট-৩৭০ এর। টুয়িড পিনগার লোকেটর নামে ছোট্ট একটি ক্যামেরা লাগানো দুটি মেশিনের সাহায্যে দক্ষিণ ভারতীয় মহাসাগরের নিচে ফ্লাইট-৩৭০ এর ব্ল্যাকবক্স উদ্ধারে চিরুনি অভিযান চিালানো হবে বলে জানিয়েছে অস্ট্রেলীয় কর্তৃপক্ষ।

এরইমধ্যে পিঙ্গার লোকেটরসহ তাদের দুটি জাহাজ সাগরের নিচে ২৪০ কিলোমিটার এলাকায় অনুসন্ধান শুরু করেছে। এছাড়া আকাশ ও জলের ওপরে থেকে অনুসন্ধান অব্যাহত রেখেছে অত্যাধুনিক ১৪টি বিমান এবং ৯টি জাহাজ।

গত ৮ মার্চ ২৩৯ জন যাত্রী নিয়ে কুয়ালালামপুর থেকে বেইজিং যাওয়ার পথে রহস্যজনকভাবে নিখোঁজ হয় মালয়েশিয়া এয়ারলাইন্সের বিমান ফ্লাইট-৩৭০। এরপর অনেক অনুসন্ধান করেও মেলেনি এর কোনো হদিস। পরে ধারণা করা হয় যে এটি দক্ষিণ ভারত মহাসগারীয় এলাকায় অস্ট্রেলীয় জলসীমার ভেতরে বিদ্ধস্ত হয়েছে। অনেক দেশ মাঝে মাঝেই সাগরে বেশ কিছু ভাসমান বস্তুর খোঁজ দিলেও সেগুলো যে ওই বিমানটিরই তা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি।

এদিকে একটা একটা করে যত দিন পার হচ্ছে ততই ক্ষীণ বিমানটির খোঁজ পাওয়ার আশা। কারণ যে কোনো বিমানের ব্লাকবক্সের ব্যাটারির মেয়াদ এক মাস। এই সময় ফুরালে ব্লাকবক্স সিগন্যাল দেয়া বন্ধ করে দেবে। আর সেইসঙ্গে ফুরিয়ে যাবে বিমানটির খোঁজ পাওয়ার শেষ আশাও।

জয়েন্ট এজেন্সিজ কো-অর্ডিনেশন সেন্টার (জেএসিসি) এর প্রধান আঙ্গাস হাউসটন সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, নিখোঁজ বিমানটির ব্ল্যাকবক্স উদ্ধারে পানির তলে অনুসন্ধান-সক্ষম ডিভাইসসম্পন্ন দুটি জাহাজ কাজ শুরু করবে। আশা করা যাচ্ছে, ব্ল্যাকবক্স উদ্ধারে সক্ষম হবে।

তিনি আরো জানান, বিমান বিধ্বস্তের ৩০ দিন পর্যন্ত ব্ল্যাকবক্স সংকেত পাঠাতে পারে। এরপর সেটি সংকেত পাঠানো বন্ধ করে দেয়।

জেএসিসি থেকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, শুক্রবার ১০টি সামরিক বিমান, চারটি বেসামরিক বিমান এবং নয়টি জাহাজ নিখোঁজ বিমানের ধ্বংসস্তূপের খোঁজে অনুসন্ধান চালাবে।

অস্ট্রেলিয়ার শহর পার্থ থেকে দুই লাখ ১৭ হাজার বর্গকিমি দূরে এবং এক হাজার সাতশ কিমি উত্তর-পশ্চিমে এ অনুসন্ধান কাজ চালানো হবে।