ঢাকা প্রযুক্তি সারাদেশ

শুরু হচ্ছে বাংলালিংক-হুয়াওয়েইর ইন্টারন্যাশনাল ইয়ুথ ক্যাম্প

 হটনিউজ ডেস্ক,ঢাকা: বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল ফোন অপারেটর বাংলালিংক ও হুয়াওয়েই টেকনোলজি লিমিটেড, নেতৃত্বস্থানীয় গ্লোবাল আইসিটি সমাধান প্রদানকারী যৌথভাবে ইন্টারন্যাশনাল ইয়ুথ ক্যাম্প বা আন্তর্জাতিক যুব ক্যাম্প আয়োজনের ঘোষণা দিয়েছে টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের ভান্ডার সমৃদ্ধ করার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠান দুটি এই ক্যাম্পের আয়োজন করছে। ভবিষ্যত প্রোগ্রামের জন্য হুয়াওয়েইর গ্লোবাল টেলিকম সিড্স এর অধীনে ‘বাংলালিংক-হুয়াওয়েই ইন্টারন্যাশনাল ইয়ুথ ক্যাম্প’ বা ‘বাংলালিংক-হুয়াওয়েই আন্তর্জাতিক যুব ক্যাম্প’ শীর্ষক এই ক্যাম্প চলবে আগামী ৬ এপ্রিল ২০১৪ থেকে ১৮ এপ্রিল ২০১৪। এটি বাংলাদেশের নির্বাচিত শিক্ষার্থীদের চীনে হুয়াওয়েইর কারখানা পরিদর্শনের সুযোগ করে দিবে।

১২ দিনব্যাপী অনুষ্ঠেয় এই যুব ক্যাম্পে অংশগ্রহণকারীরা চীনের দুটি শহর সফর করবেন। এ সময় তাঁরা কর্মশালায়ও অংশ নেবেন এবং তাঁদেরকে টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কে হাতে-কলমে প্রশিক্ষণ দেবেন হুয়াওয়েই টেকনোলজি লিমিটেডের বিশেষজ্ঞরা। এছাড়াও সফরকালে অংশগ্রহণকারীদের জন্য হুয়াওয়েই টেকনোলজি লিমিটেডের কারখানা পরিদর্শনের ব্যবস্থা থাকবে।

স্থানীয় শিক্ষার্থীদের টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তির ওপর দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা অর্জনের সুযোগ করে দিতেই ‘বাংলালিংক-হুয়াওয়েই ইন্টারন্যাশনাল ইয়ুথ ক্যাম্প’ বা ‘বাংলালিংক-হুয়াওয়েই আন্তর্জাতিক যুব ক্যাম্পের’ আয়োজন করা হয়েছে। যাতে তাঁরা সর্বাধুনিক টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি প্রকৌশলের সঙ্গে পরিচিত হয়ে নিজেদের জ্ঞানভান্ডারকে সমৃদ্ধ করতে পারেন। একই সঙ্গে তাঁর টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে অভিজ্ঞতা অর্জনের সুবাদে পেশাগত জীবনের উন্নয়ন ঘটাতে সক্ষম হবেন।

গ্র্যান্ডমাস্টার সিজন ১, ২ ও ৩-এর বিজয়ী দলগুলোর সদস্যরা এই দুর্দান্ত অভিজ্ঞতা অর্জনের সুযোগ পাবে। বাংলালিংক গত তিন বছর ধরে সফলতার সঙ্গে গ্র্যান্ডমাস্টার- অ্যাপ্লিকেশন আইডিয়া জেনারেশন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে আসছে। এতে শিক্ষার্থীরা দলগতভাবে অংশ নিয়ে টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ে তাঁদের উদ্ভাবিত অ্যাপ্লিকেশন ও সল্যুশন আইডিয়া তুলে ধরেন, যা বাস্তবায়নের ফলে জনগণ ব্যাপকহারে উপকৃত হন।

বাংলাদেশে ইতিমধ্যে থ্রিজি প্রযুক্তির প্রচলন শুরু হয়ে গেছে এবং এই যুব ক্যাম্পে অংশ নেয়ার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাঁদের জ্ঞানভান্ডার সমৃদ্ধ করে উন্নতমানের টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি সল্যুশন উদ্ভাবনের সুযোগ পাবেন। যা লাখ লাখ মানুষের জীবনধারায় পরিবর্তন ঘটাবে বলে আশা করা যাচ্ছে।

বাংলালিংকের সিইও জনাব জিয়াদ সাতারা বলেন, ‘‘এদেশের উজ্জল তরুণ প্রজন্মের জন্য এটি সত্যিই একটি বিষ্ময়কর অভিজ্ঞতা যা তাদেরকে দেশের দুটি গুরুত্বপূর্ণ টেকনোলজি ভিত্তিক কোম্পানী বাংলালিংক এবং হুয়াওয়ের মধ্য দিয়ে হাতে-কলমে অভিজ্ঞতা অর্জনের সুযোগ করে দিবে। আমি তাদের সাফল্য কামনা করছি এবং আশা করছি তারা যেন নতুন জ্ঞান ও শিক্ষায় সমৃদ্ধ হয়ে নিরাপদে বাড়ি ফিরে আসতে পারে”।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন বাংলালিংক এর হেড অফ পি আর অ্যান্ড কমিউনিকেশন জনাব শরফুদ্দিন আহমেদ চৌধুরী, হুয়াওয়েইর হেড অফ মার্কেটিং এন্ড কর্পোরেট এফেয়ার্স জনাব মোঃ শাফায়েত আলম উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও বাংলালিংক এর পি আর অ্যান্ড কমিউনিকেশন সিনিয়ার ম্যানেজার জনাব শেহজাদ এস হোসেন এবং পি আর অ্যান্ড কমিউনিকেশন এসোসিয়েট ম্যানেজার জনাব ইফতেখার আজম প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

বর্তমানে বাংলাদেশের দ্বিতীয় বৃহত্তম মোবাইল ফোন অপারেটর হলো বাংলালিংক; যাদের প্রায় দুই কোটি ৯০ লাখের মত গ্রাহক রয়েছে। প্রসঙ্গত, বাংলালিংক হচ্ছে নেদারল্যান্ড্সভিত্তিক ভিম্পেলকম লিমিটেডের সহযোগী প্রতিষ্ঠান।

হুয়াওয়েই একটি নেতৃস্থানীয় আন্তর্জাতিক আইসিটি সমাধান প্রদানকারী। গ্রাহক কেন্দ্রিক নতুনত্ব এবং শক্তিশালী অংশীদারিত্ব  উৎসর্গের মাধ্যমে, হুয়াওয়েই ক্যারিয়ার নেটওয়ার্ক, এন্টারপ্রাইজ, ভোক্তা, এবং ক্লাউড কম্পিউটিং ক্ষেত্র জুড়ে প্রতিটি জায়গায় ক্ষমতা এবং শক্তি স্থাপিত করেছে। হুয়াওয়েই প্রতিযোগিতামূলক আইসিটি সমাধান এবং পরিষেবা প্রদানের মাধ্যমে টেলিকম বাহক, এন্টারপ্রাইজ এবং ভোক্তাদের জন্য সর্বোচ্চ মান তৈরি করতে সর্বদা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। হুয়াওয়েইর এর পণ্য এবং সমাধান সেবা বিশ্বের জনসংখ্যার এক তৃতীয়াংশের অধিক এমনকি ১৭০ টিরও বেশি দেশ ও অঞ্চলে মোতায়েন করা হয়েছে।