ধর্ম

হজ প্যাকেজ ২০১৪-এর খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদিত

ধর্ম প্রতিবেদক, ১৩ মার্চ (হটনিউজ২৪বিডি.কম) : জাতীয় হজ ও ওমরাহনীতি এবং হজ প্যাকেজ ২০১৪-এর খসড়ার অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এতে বলা হয়েছে, এ বছর সরকারি ও বেসরকারিভাবে ১ লাখ ১ হাজার ৭৫৮ জন বাংলাদেশী হজ পালনে সৌদি আরবে যেতে পারবেন। এর মধ্যে সরকারিভাবে ১০ হাজার ও বেসরকারিভাবে ৯১ হাজার ৭৫৮ জন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার সচিবালয়ে মন্ত্রিসভার নিয়মিত বৈঠকে এ অনুমোদন দেয়া হয়। বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোশাররাফ হোসাইন ভূইঞাঁ সাংবাদিকদের এ তথ্য জানান। গত বছরের মতো এবারো সরকারি ব্যবস্থাপনায় দুটি প্যাকেজের মাধ্যমে হজ পালনের ব্যবস্থা রেখেছে সরকার। এর মধ্যে প্যাকেজ ১-এর মাধ্যমে হজ পালনে লাগবে ৩ লাখ ৫৪ হাজার ৩১৬ টাকা। আর সাশ্রয়ী প্যাকেজ ২-এর মাধ্যমে লাগবে ২ লাখ ৯৫ হাজার ৭৭৬ টাকা। তবে দুটি প্যাকেজেই কোরবানির জন্য আলাদা ৫০০ রিয়াল দিতে হবে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, সরকারি এসব প্যাকেজে থাকা-খাওয়াসহ অন্যান্য সুবিধা থাকছে। দুটি প্যাকেজের মধ্যে পার্থক্য হচ্ছে বাড়িভাড়ায়। এবার বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজযাত্রীদের জন্য ফ্লোর প্রাইস (সর্বনিম্ন) ২ লাখ ৯৫ হাজার ৭৭৬ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, গত বছর সরকারি ব্যবস্থাপনায় প্রথম প্যাকেজে খরচ পড়ে ৩ লাখ ৪৭ হাজার ২৭ টাকা। আর দ্বিতীয় প্যাকেজে ২ লাখ ৭৮ হাজার ৭৪২ টাকা। এর বাইরে ছিল কোরবানির খরচ। সচিব জানান, ২০১৫ সাল পর্যন্ত হেরেম শরিফের সংস্কারকাজ চলায় এবার সৌদি আরব সরকার বাংলাদেশের হজের কোটা ২০ শতাংশের মতো কমিয়ে দিয়েছে। ফলে গতবারের চেয়ে কম মানুষ এবার বাংলাদেশ থেকে হজে যাওয়ার সুযোগ পাবেন। গত বছর সরকারি ও বেসরকারি ব্যবস্থাপনা মিলিয়ে মোট ১ লাখ ২৭ হাজার ১৯৮ জন বাংলাদেশী হজে যাওয়ার সুযোগ পান। এছাড়া সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১৪, বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১৪ ও খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পরিষদ (সংশোধন) আইন, ২০১৪-এর খসড়ারও নীতিগত ও চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়। এতে পার্বত্য জেলা পরিষদগুলোর অন্তর্বর্তীকালীন পরিষদের প্রতিনিধি সংখ্যা ৫ থেকে ১১তে বাড়ানো হয়েছে। মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, পার্বত্য জেলা পরিষদগুলোর আইনেই আছে, পরিষদ নির্বাচিত প্রতিনিধি দ্বারা পরিচালিত হবে।