বিনোদন

মাধুরির সাথে কিছু একান্ত মুহূর্ত

বিনোদন প্রতিবেদক, ৭ মার্চ (হটনিউজ২৪বিডি.কম) : সিনেমার স্বপ্নরাজ্য খুঁজে নেয়ার যাত্রায় বিশেষ বেগ পেতে হয় নি মাধুরী দীক্ষিত এর, এমনটাই জানা গেল তার সাথে কথোপকথনে। প্রায়শই শিল্পীরা ফিল্মি দুনিয়াতে স্টার হতে অনেকএই অনেক কষ্ট করেছেন বলে জানা যায়। কিন্তু ১৯৯০ এর ডিভা মাধুরী দীক্ষিত এই সংগ্রামে নাকি নিজ থেকে পা-ই ফেলেন নি, উপরন্তু প্রস্তাব তার দরজায় প্রথম এসেছিল বলে জানান তিনি।

ফিল্ম “আবোধ” এর মাধ্যমে ১৯৮৪ সালে তিনি বলিউডে পা রাখেন। এ সম্পর্কে তিনি বলেন, “আমি আমি একজন অভিনেত্রী হতে পারব তা কখনো ভাবি নি। কারণ আমি আমার জীবনে কোনো কিছুর জন্য লড়াই করিনি ।

ফিল্ম “আবধ” যেন পায়ে হেঁটে আমার বাসার দোরগোড়ায় চলে এসেছিল। সেদিনই পরিবার আমাকে একটি মুভি করার অনুমুতি দেয়। সেখান থেকেই আমার পথচলা শুরু আর কি!”

কিন্তু একটি সিনেমার পর মাধুরীকে আর ছেড়ে দেয়নি বলিউড। একটি মুভি দিয়ে তার শুরু, এরপর “আওয়ারা বাপ” আর “উত্তার দাকশিন” নামক মুভি করেন তিনি। কিন্তু এগুলো যেন ফিল্মি মাধুরীকে সেভাবে উজ্জ্বল করে তুলে ধরেনি, বরং ফিকে হয়ে ছিলেন প্রায় অনেক দিন। কিন্তু তারপর আসে ভিন্ন একটি মোড়। ১৯৯৮ সালের মুভি “তেজাব” তাকে তার ফিল্মি ক্যারিয়ারে আর পিছন ফিরে তাকাতে দেয় নি।“

সংগ্রাম বলতে আমি নিজেকে উপস্থাপন করেছিলাম, আমার নিজের সবচেয়ে ভালোটা দিয়েছি” বললেন মাধুরী। তিনি আরও বলেন যে “আমি বলিউড থেকে যা পেয়েছি তা অনেক সম্মানজনক”।

তবে তিনি তার ড্যান্স একাডেমীর কথা একদমই ভুলে যান নি। “আমি আমার ড্যান্স একাডেমীকে অনেক দূর এগিয়ে নিতে চাই”- এমনটাই জানালেন “রাম লাক্ষান” , “দিল”, “সাজান”, “হাম আপকে হ্যাঁই কউন” -এর সাড়াজাগানো স্টার।

সম্প্রতি তিনি “দেড় ইশকিয়া “র সঙ্গে একটি হৃদয়গ্রাহী কদম ফেলেছেন বলিউডে। যদিও বক্স অফিস মাত করতে পারেনি তার এই প্রয়াশ। কিন্তু ৪৬ বছর বয়সী নায়িকার জন্য একটি সম্মানজনক স্থান অবশ্যই তৈরি করতে পেরেছে। বর্তমানে তিনি তার পরের রিলিজ “গুলাব গ্যাং” এর প্রমোশন নিয়ে ব্যস্ত আছেন। এই মুভিতে তার চরিত্র বাস্তবায়নের জন্য তিনি গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন পেশার মহিলাদের সাথে রাত্রিও যাপন করেছেন বলে জানান।

মাধুরী জানান, “রাজ্জ চরিত্রটি গোটা বিশ্বের মহিলাদের প্রতিনিধি। ওই সব মহিলাদের আমি স্যালুট জানাই”।