জাতীয়

মন্ত্রী-এমপিদের বক্তব্যে অসঙ্গতি পাওয়া গেছে : দুদক

ঢাকা, ৫ মার্চ (হটনিউজ২৪বিডি.কম) : সম্পদের বিষয়ে মন্ত্রী-এমপিদের জিজ্ঞাসাবাদ করে অসঙ্গতি পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছেন দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) কমিশনার মো. সাহাবুদ্দিন (চুপ্পু)।

বুধবার দুপুরে রাজধানীর সেগুনবাগিচায় দুদক কার্যালয়ে সাংবাদিকদেরকে তিনি এ তথ্য জানান।

দুদক কমিশনার বলেন, ‘মন্ত্রী-এমপিদের মধ্যে আমরা যাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকেছি তাদের বেশিরভাগই হাজির হয়েছেন। আমাদের অনুসন্ধানকারী কর্মকর্তারা তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছেন। জিজ্ঞাসাবাদে অনেকেরই সম্পদের হিসাবে অসঙ্গতি পাওয়া গেছে। তবে অনুসন্ধানের স্বার্থে এ মুহূর্তে কিছু বলা যাচ্ছে না।’

তিনি বলেন, ‘দুদক শুধু তাদের দেয়া হলফনামা বা আয়কর বিবরণীই পর্যালোচনা করবে না, এর বাইরে কোনো কিছু রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখবে।’

সাহাবুদ্দিন বলেন, ‘স্বাধীনতার পর সব সরকারই কমবেশি দুর্নীতি করেছে। জনগণ সবাই জানে। দুর্নীতির বিষয়ে আমি কোন গোষ্ঠীকে দোষী করব না। তবে গত জোট সরকারের সময় দুর্নীতিতে আমাদের দেশ যেভাবে নিমজ্জিত ছিল, তা থেকে বেরিয়ে এসেছি। আমরা যত ভালোই করি না কেন, এ নিয়ে সমালোচনা থাকবেই।’

তিনি আরো বলেন, ‘গত জোট সরকারের অনেকের বিরুদ্ধে দুদকের মামলা ও অনুসন্ধান চলমান। আমরা কিছু কিছু অভিযোগ খতিয়ে দেখছি, তবে কাদের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ সে সম্পর্কে এখন কিছু বলা যাবে না।’অবৈধ সম্পদ গড়ে তোলার অভিযোগে ইতোমধ্যেই দুদক একাধিক সংসদ সদস্যকে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে। এরা হলেন কক্সবাজার-৪ (উখিয়া-টেকনাফ) আসনের সংসদ সদস্য আবদুর রহমান বদি, সাতক্ষীরা-৩ আসনের সংসদ সদস্য এবং সাবেক স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী অধ্যাপক ডা. আ ফ ম রুহুল হক, পটুয়াখালী-৪ আসনের সংসদ সদস্য ও সাবেক পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী মাহবুবুর রহমান, ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য আসলামুল হক, সাতক্ষীরা-২ আসনের সাবেক সংসদ সদস্য এম এ জব্বার এবং সাবেক গৃহায়ণ ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আবদুল মান্নান খান।