অর্থ ও বাণিজ্য

আসছে নতুন করহীন উন্নয়ন বাজেট

ঢাকা, ৪ মার্চ (হটনিউজ২৪বিডি.কম) : সরকারের পূর্ণ মেয়াদ রাষ্ট্র পরিচালনার দৃঢ়তা নিয়ে শুরু হয়েছে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের উন্নয়নের বাজেট তৈরির কাজ। অগ্রাধিকার পাচ্ছে পদ্মা সেতু নির্মাণ প্রকল্প। দিকনির্দেশনা থাকছে এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ে, মেট্রোরেলের মতো বড়-বড় কয়েকটি উন্নয়ন প্রকল্প বাস্তবায়নে। জনসাধারণের ওপর নতুন কর আরোপ না করার পরিকল্পনাসহ চমক দেওয়ার চেষ্টা করছেন সরকারের নীতিনির্ধারণী মহল। বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর পরিধি ও পরিমাণ বাড়ানো ছাড়াও মুক্তিযোদ্ধাদের ভাতা বৃদ্ধি, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জন্য নতুন পে স্কেলের ঘোষণা না থাকলেও বিদ্যমান মহার্ঘভাতা কিছুটা বাড়ানোর ঘোষণা থাকতে পারে। এ বছর বাজেটের আকার হতে পারে প্রায় আড়াই লাখ কোটি টাকা।

আসন্ন বাজেটে নতুন পুরনো কয়েকটি চ্যালেঞ্জের বিষয় নিয়ে ভাবছে সরকার। এগুলোর মধ্যে রাজস্ব খাতে পরিকল্পিত সংস্কার কার্যক্রম বাস্তবায়নের মাধ্যমে রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন, পদ্মা সেতুসহ সরকারের অগ্রাধিকার প্রকল্পগুলোর জন্য অর্থ সরবরাহ ও বাস্তবায়ন নিশ্চিত করা, বিদ্যুত্, জ্বালানি উত্পাদন বৃদ্ধি, কৃষি ও খাদ্য খাতে ভর্তুকিসহ কম গুরুত্বপূর্ণ ব্যয় হ্রাস এবং প্রয়োজনে কৃচ্ছ্রসাধন উল্লেখযোগ্য। এছাড়া জ্বালানি খাতে স্বয়ংক্রিয় মূল্য সমন্বয় পদ্ধতি বাস্তবায়ন, মূল্যস্ফীতি সহনীয় রাখা, বিদেশি অর্থের প্রবাহ বাড়ানো, সংকোচনমূলক মুদ্রানীতি অনুসরণ এবং বৈদেশিক মুদ্রার কাঙ্ক্ষিত স্তর এবং বিনিময় হারের স্থিতিশীলতা বজায় রাখাও আগামী বাজেটের অন্যতম চ্যালেঞ্জ হতে পারে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। এবারও বাজেটে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ধরা হতে পারে ৭ শতাংশের ওপরে। গড় মূল্যস্ফীতি ৭ শতাংশে নামিয়ে আনারও ঘোষণা দেওয়া হতে পারে আগামী বাজেটে। অতীতের মতো এ বছরও নানা কৌশলে কালো টাকা সাদা করার সুযোগ দেওয়া হতে পারে।

সবকিছু ঠিক থাকলে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতই জাতীয় সংসদে ২০১৪-১৫ অর্থবছরের বাজেট পেশ করবেন। যদিও গত বাজেট পেশের আগে সাংবাদিকদের তিনি জানিয়েছিলেন জাতীয় সংসদ নির্বাচন করলেও কখনোই মন্ত্রী হবেন না। ২০১৩-১৪ অর্থবছরের বাজেট পেশই হবে তার শেষ বাজেট। ৫ জানুয়ারির নির্বাচনে জয়লাভ করলে প্রধানমন্ত্রী নতুন মন্ত্রিপরিষদে তাকে আবারও অন্তর্ভুক্ত করলে তিনি অর্থমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত ২০১৪-১৫ অর্থবছরের জন্য নতুন বাজেট তৈরির কাজ শুরু করছেন। এটি ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ সরকারের টানা ৬ষ্ঠ বারের বাজেট হলেও দ্বিতীয় মেয়াদে জয়ী আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন নতুন সরকারের প্রথম বাজেট। সঙ্গত কারণেই চমক দেওয়ার চেষ্টা করছেন সরকারের নীতিনির্ধারণী মহল। সামাজিক নিরাপত্তা বেষ্টনীর পরিধি ও পরিমাণ বাড়ানো ছাড়াও এবারের বাজেটে গুরুত্ব পাবে রেল যোগাযোগ ও গ্রামীণ অবকাঠামোসহ সব ধরনের অবকাঠামো নির্মাণ প্রকল্প। এর জন্য বিশেষ বরাদ্দ রাখার পরিকল্পনাও আছে বলে জানা গেছে। চলতি অর্থবছর পদ্মা সেতু খাতে ৬ হাজার ৮৫২ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকলেও তা বাড়িয়ে ১৫ হাজার কোটি টাকা করা হতে পারে বলে আগেই সিলেটের এক অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের কাছে ইঙ্গিত ব্যক্ত করেছেন অর্থমন্ত্রী।(আমাদের সময়)