মৌলভীবাজার রাজনীতি সিলেট

শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাচনে ১৯ দলে প্রার্থী ঘোষনা

এম শাহজাহান আহমদ,মৌলভীবাজার : মৌলভীবাজারের শ্রীমঙ্গল উপজেলা নির্বাচনে ১৯ দলীয় চেয়ারম্যান ও ভাইস চেয়ারম্যান এর নাম ঘোষনা করেছে বিএনপির একাংশের নেতৃবিন্দ। জেলা বিএনপির কোন্দলের কারনে প্রতিটি উপজেলা হারাতে যাচ্ছে বিএনপি বলে তৃনমূল নেতাকর্মীরা অভিযোগ করেন। শক্রবার দুপুরে জেলার শ্রীমঙ্গল প্রেসক্লাবে এক সাংবাদিক সম্মেলনের মাধ্যমে এ ঘোষনা দেন ১৯ দলের নেতৃবিন্দ। সাংবাদিক সম্মেলনে ১৯দলীয় নেতারা একমত হয়ে উপজেলা বিএনপির পরিক্ষিত ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শিক্ষানুরাগী  আতাউর রহমান লাল হাজীকে চেয়ারম্যান পদে সমর্থন জানিয়ে তাদের একক প্রার্থী হিসেবে তার নাম ঘোষনা করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন ১৯ দলীয় সংগ্রাম কমটির সদস্য সচিব ও একাংশের সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াকুব আলী, উপজেলা জামায়েতের আমির এম এ আওয়াল তরফদার, ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থী খেলাফতে মজলিসের সভাপতি এম এ রহিম নোমানী, বাংলাদেশ জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম এর প্রতিনিধি শেখ মো. হোসেন হামিদী ও বিএনপির সিনিয়র নেতা আব্দুল হাইসহ ১৯ দলের শতাধিক নেতাকর্মী। সাংবাদিক সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে বিএনপি একাংশের সাধারণ সম্পাদক মো. ইয়াকুব আলী বলেন, ১৯ দলীয় ঐক্য জোটের শ্রীমঙ্গল উপজেলা নেত্রীবৃন্দ বিগত ০২ ফেব্র“য়ারী শহরের উকিল বাড়ী সড়কে লাল হাজী সাহেবের বাস ভবনে সহস্রাধিক নেতা কর্মীর উপস্থিতিতে উৎসব মূখর পরিবেশে এক সভা করে শ্রীমঙ্গল উপজেলা বিএনপির ত্যাগী, পরিক্ষিত, বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ উপজেলা বিএনপির সভাপতি আতাউর রহমান লাল হাজী’কে আগামী ২৩শে মার্চ শ্রীমঙ্গল উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ১৯ দলীয় ঐক্য জোটের চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসাবে সমর্থন জানিয়ে কেন্দ্রে প্রেরণ করা হয়।  সমর্থন এর প্রেক্ষিতে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল কেন্দ্রীয় কমিটি গত ২৬ ফেব্র“য়ারী একক প্রার্থী হিসাবে আতাউর রহমান লাল হাজী’কে নির্বাচিত করে। তিনি আরো বলেন, আতাউর রহমান লাল হাজী দলের প্রতিষ্ঠালগ্নের একজন সম্মানিত সদস্য। তিনি ১৯ দলীয় সংগ্রাম কমিটির আহবায়কেরও দায়িত্বে রয়েছেন। ১/১১ পর দল পরিচালনা করতে গিয়ে তিনি একাধিক মিথ্যা মামলার শিকার হন। প্রতিকুল অবস্থায় থেকেও তার নেতৃত্বে আমরা কেন্দ্র ঘোষিত সকল কর্মসূচী সফলতার সাথে পালন করছি। বিভিন্ন সমিতি সংগঠন ছাড়াও ইতিমধ্যে শ্রীমঙ্গল পৌরসভার মেয়র ও সকল পৌর কাউন্সিলররা তাকে সমর্থন জানিয়েছেন। ইতিমধ্যেই তিনি গণ সংযোগ ও ২শতাধিক সভায় মিলিত হয়েছেন। উল্লেখ্য, বিএনপির মূল স্রোতের বাহিরে সদ্য যোগদানকারি কিছু সংখ্যক নেতাকর্মী যারা বিগত দিনে মূল ধারার বিএনপিকে বাধাগ্রস্থ করতে আওয়ামীলীগের সাথে মিশে আন্দোলনকারীদেরকে বিভিন্ন হামলা একাধিক মামলায় জড়িয়ে রাখে। যা পুলিশের চার্জসীটেও তাদেরকে সরকার দলীয় সমর্থক হিসেবে আক্ষায়িত করা হয়েছিল। বিগত নির্বাচন গুলোতে বিএনপি’র বিপক্ষে কাজ করে আওয়ামীলীগকে সহায়তা করেছিল। এদের বিরুদ্ধে কেন্দ্রে এরই জন্য অভিযোগ করা হয়েছিল। সেই অভিযোগের হেয়ারিং করেছিলেন বিএনপি’র যুগ্ম মহাসচিব জনাব মোঃ শাহজাহান তিনি তাদেরকে শেষ বারের মতো সাবধান করে দিয়েছিলেন। এরাই সংঘটিত হয়ে আবার একজন অরাজনৈতিক মহিলাকে আসন্ন উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী দাঁড় করিয়ে ১৯ দলীয় প্রার্থী জনাব আতাউর রহমান লাল হাজীকে বাধা গ্রস্থ করে আওয়ামীলীগকে লাভবান করার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত। এছাড়াও জেলা বিএনপির কোন্দলের কারনে প্রতিটি উপজেলা হারাতে যাচ্ছে বিএনপি তথা ১৯ দলীয় জোট। তারই উদাহরন কুলাউড়া উপজেলা নির্বাচনের ফলাফল।