প্রযুক্তি মৌলভীবাজার সিলেট

মৌলভীবাজারে গ্রামীন ফোন থ্রিজির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনে- সমাজকল্যাণমন্ত্রী

এম শাহজাহান আহমদ,মৌলভীবাজার: সমাজকল্যাণমন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলী বলেছেন, বর্তমান সরকার ১২ কোটি মানুষের কাছে স্বল্প মূল্যে সকল ধরনের ফোন তুলে দিয়েছে যা শহর থেকে ছড়িয়ে গ্রামের কৃষকের হাতে হাতে পৌঁছে গেছে। ‘৯১ সালে যদি বিএনপি সরকার এই প্রযুক্তি চালু করার সঠিক সিদ্ধান্ত নিতো তাহলে আমরা এই প্রজন্মকে আজ অনেক দূর এগিয়ে নিয়ে যেতে পারতাম। মৌলভীবাজার জেলার সকল উপজেলায় আনুষ্ঠানিকভাবে থ্রিজি সেবা চালু অনুষ্টানে উপরোক্ত কথা গুলো বলেন তিনি। দেশের সর্ববৃহৎ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোন এই সেবাটি চালু করেছে। ২৭ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার সকাল ১১ টায় মৌলভীবাজার শহরের সিলেট সড়কস্ত গ্রামীণফোনের আঞ্চলিক কার্যালয় থেকে ভিডিও  কলের মাধ্যমে থ্রিজি সেবার উদ্বোধন করেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রী সৈয়দ মহসীন আলী। এ উপলক্ষে কেককাটা ও বর্ণাঢ্য র‌্যালীর আয়োজন করা হয়। মন্ত্রী আরো বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে সরকার তথ্য-প্রযুক্তিতে একটা বিপ্লব ঘটিয়েছে। যা ভারত, পাকিস্তান, ফিলিপাইন ও থাইল্যান্ড করতে পারেনি। বর্তমান প্রজন্ম অনেক বেশি দক্ষ উল্লেখ করে তিনি বলেন, থ্রিজি সুবিধা কাজে লাগিয়ে এই প্রজন্ম দেশকে আরো এগিয়ে নিয়ে যেতে সহজ হবে।এ সময় উপস্থিত ছিলেন জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান, জেলা পরিষদ প্রশাসক আজিজুর রহমান, পুলিশ সুপার তোফায়েল আহমদ, মৌলভীবাজার প্রেসক্লাবের সহ-সভাপতি আবদুল হামিদ মাহবুব, সাধারণ সম্পাদক এস এম উমেদ আলী সহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক্স মিডিয়ার সাংবাদিকরা। এ ছাড়াও গ্রামীন ফোন সিলেট রিজিওনের হেড অব রিজিওনাল সেলস্ এম শাওন আজাদ, মৌলভীবাজার অঞ্চলের এরিয়া ম্যানেজার আসাদুল্লাহ হাবিব খান পাঠান, গ্রামীণফোন লিঃ এর  পরিবেশক ইউসুফ আলী, গ্রামীণফোন লিঃ পরিবেশক হাসিব হোসেন খান, গ্রামীণফোন লিঃ পরিবেশক শোয়েব আহমেদ সহ গ্রামীণফোন লিঃ উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ। প্রাথমিকভাবে জেলা সদরের পৌর এলাকা, শ্রীমঙ্গল, কুলাউড়া, বড়লেখা উপজেলা ও হবিগঞ্জ জেলা শহরে থ্রিজি নেটওয়ার্ক চালু করা হয়েছে। চলতি বছরের মধ্যে জেলার অন্যান্য এলাকা ক্রমান্বয়ে নেটওয়ার্কের আওতায় নিয়ে আসা হবে বলে জানিয়েছেন গ্রামীণফোন। গ্রামীনফোন কয়েকটি গতি স্তরের ভিত্তিতে এই প্যাকেজগুলো নির্ধারণ করা হয়েছে।  ৫১২ কেবিপিএস গতির অধীনে রয়েছে ৪টি প্যাকেজ। এগুলো হচ্ছে ৭৫ জিবি প্যাক ৫০টাকা (মেয়াদ ৫দিন), হেভি ইউসেজ প্যাক  অভিরাম ইন্টারনেট ৯৫০টাকা, স্মার্ট প্যাক অভিরাম ইন্টারনেট ৮০০টাকা, স্টান্ডার্ড প্যাক ২ জিভি  ৪০০ টাকা। আবার ১ এমবিপিএস  গতির অধীনে রয়েছে ৩টি প্যাকেজ। হেভি ইউসেজ প্যাক  অভিরাম ইন্টারনেট ১২৫০টাকা, স্মার্ট প্যাক অভিরাম ইন্টারনেট ১১০০টাকা, স্টান্ডার্ড প্যাক ২ জিভি  ৭০০ টাকা।