প্রধান খবর

ধ্বংসাত্মক আন্দোলনে গণতন্ত্র আসে না

ঢাকা, ২৭ ফেব্রুয়ারি (হটনিউজ২৪বিডি.কম) : বিগত সময়ে সাবেক ১৮ দলীয় বিএনপি-জামায়াত বিরোধী জোটের আন্দোলন কর্মসূচির সমালোচনা করে নৌ-পরিবহন মন্ত্রী শাজাহান খান বলেছেন, ধ্বংসাত্মক আন্দোলনে গণতন্ত্র আসে না। মন্ত্রী বলেন, ‘আমি বিস্মিত হই যখন দেশে সুশীল সমাজের নামধারী কিছু ব্যক্তি গণতান্ত্রিক আন্দোলন এবং সহিংস আন্দোলনকে একসঙ্গে মিলিয়ে দেখেন। বিএনপি-জামায়াতের আন্দোলনকে গণতান্ত্রিক আন্দোলন হিসেবে সাফাই করেন।’ বুধবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বিজয়নগরে অবস্থিত হোটেল একাত্তরে ‘আর্ন্তজাতিক মাতৃভাষা দিবস এবং আজকের বাংলাদেশ’ শীর্ষক এক আলোচনা সভা ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। শাজাহান খান বলেন, বায়ান্ন থেকে দেশে এখন পর্যন্ত যেসকল গণতান্ত্রিক আন্দোলন হয়েছে, সেগুলোতেও রক্ত ঝরেছে। কিন্তু কোন ধ্বংসাত্মক কর্মকান্ড হয় নাই। কিন্তু বিএনপি-জামায়াত গণতান্ত্রিক আন্দোলনের নামে বিগত সময়ে যা করেছে তা সহিংস আন্দোলন, ধ্বংসাত্মক আন্দোলন বলে দাবি করেন তিনি। এসময় মন্ত্রী বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে বলেন, পাপের মধ্য দিয়ে যার জন্ম হয় সে কখনো ভালো কাজ করতে পারে না। তাদেরও সেরকম অবস্থা হয়েছে।

এর কারণ উল্লেখ করে তিনি বলেন, খুন করে তারা ক্ষমতা দখল করেছিল। জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহণ করে যুদ্ধাপরাধে অভিযুক্ত বন্দীদের মুক্তি করে এবং সরকারের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বভার অর্পণ করেছিলেন। এসময় তিনি বিএনপি নেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘আপনি এখন বলেন, ১৯ দলীয় জোট মুক্তিযুদ্ধের দল, মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের  শক্তি। কিন্তু বিবেকের কাছে প্রশ্ন রেখে আপনারা (দর্শক) বলেন, জামায়াতে ইসলাম কিভাবে কবে মুক্তিযুদ্ধের দল হল। আপনারা (বিএনপি) এখন দেশবাসীকে জাতীয় ঐক্য গড়তে আহ্বান করেন কিন্তু দেশবাসী কিসের ভিত্তিতে জাতীয় ঐক্য গড়বে, জাতীয় ঐক্য তো রাজাকার আলবদরকে সঙ্গে নিয়ে গড়ে উঠবে না।’ অনুষ্ঠানে ভাষা সৈনিকসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে অবদানের জন্য কয়েকজনকে বিশেষ সন্মাননা পুরস্কারও প্রদান করা হয়। এরা হলেন ভাষাসৈনিক আব্দুল মতিন, রওশন আরা বাচ্চু, মাইটিভির বার্তা প্রধান মাহমদুল আল ফয়সাল, হামদর্দ ল্যাবরেটরিজ (ওয়াকফ)’র পরিচালক ড. রফিকুল ইসলাম প্রমুখ। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সাবেক তথ্য সচিব সৈয়দ মার্গুব মোর্শেদ।