কুষ্টিয়া খুলনা সারাদেশ

কুষ্টিয়ায় মাদক ব্যবসায়ীর সঙ্গে বিজিবির সংঘর্ষে আহত ৩

কুষ্টিয়া, ২৬ ফেব্রুয়ারি (হটনিউজ২৪বিডি.কম) : কুষ্টিয়ার দৌলতপুর সীমান্তে মাদক ব্যবসায়ী ও বিজিবির মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিজিবি সদস্যরা অন্তত ১৪ রাউন্ড গুলি করেছে। এ ঘটনায় এক বিজিবি সদস্যসহ তিনজন আহত হয়েছেন। বুধবার বিকেল সাড়ে চারটার দিকে উপজেলার প্রাগপুর ইউপির পাকুড়িয়া-ভাংগাপাড়া সীমান্ত এলাকায় এ ঘটনা ঘটেছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, পাকুড়িয়া-ভাংগাপাড়া সীমান্ত এলাকার মাদক ব্যবসায়ী জয়েনউদ্দিনের ছেলে লাবু (৩২) ও তার ভাতিজা আশিক (১৫)-এর নেতৃত্বে মাদক পাচারকারী চক্র মাদক পাচার করছে এমন গোপন সংবাদ পেয়ে মহিষকুন্ডি বিজিবি ক্যাম্পের টহল দল সেখানে অভিযান চালায়।

বিজিবির উপস্থিতি টের পেয়ে মাদক পাচারকারীরা মাদক লুকিয়ে রেখে পাকুড়িয়া-ভাংগাপাড়া সীমান্তের মাথাভাংগা নদীর ধারে অবস্থান নেয়। মহিষকুন্ডি বিজিবি কোম্পানীর অধিনায়ক সুবেদার সাখাওয়াত হোসেন মাদক পাচারকারী ও মাদক ব্যবসায়ী লাবু ও তার ভাতিজা আশিকের কাছে পাচার হতে যাওয়া মাদকের বিষয় জানতে চাইলে উল্টো বিজিবির ওপর চড়াও হয় এবং বিজিবির ওপর হামলা চালায়। মাদক ব্যবসায়ীরা নুরুল ইসলাম (৩২) নামে এক বিজিবি সদস্যের মাথায় আঘাত করলে সে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে।

এ সময় বিজিবি সদস্যরা মাদক ব্যবসায়ী লাবু ও আশিককে আটক করে বেধড়ক মারপিট করলে অপর মাদক ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী বিজিবির ওপর চড়াও হলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে বিজিবি সদস্যরা ১৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করে জনতাকে ছত্রভঙ্গ করে। পরে আহত অবস্থায় মাদক ব্যবসায়ী লাবু ও তার ভাতিজা আশিককে ঘটনাস্থলে ফেলে রেখে চলে আসে বিজিবি।

এ দিকে সীমান্ত এলাকায় বিজিবি সদস্যরা গুলি বর্ষণ করলে গুলির শব্দে এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে এবং সাধারণ মানুষ ছুটোছুটি করতে থাকে।

এ বিষয়ে মহিষকুন্ডি বিজিবি কোম্পানির অধিনায়ক সুবেদার সাখাওয়াত হোসেন জানান, সীমান্ত এলাকায় মাদক ব্যবসায়ীরা বিজিবির টহল দলের ওপর হামলা চালিয়ে নুরুল ইসলাম নামে এক সৈনিককে মাথায় আঘাত করে আহত করলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে ১৪ রাউন্ড ফাঁকা গুলি বর্ষণ করা হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে।