জাতীয়

এবার দুই বাংলায় সীমান্তে একসঙ্গে মহান একুশের অনুষ্ঠান হবে না

ঢাকা, ২০ ফেব্রুয়ারি (হটনিউজ২৪বিডি.কম) :  নিরাপত্তার কারণে এবার মহান একুশ ফেব্রুয়ারি ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তের গেইটগুলো খোলা থাকবে না। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষে এবার দু’দেশের বাঙালিরা একসঙ্গে গাইতে পারবেন না ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি…।’ এবছর ফুলে-ফুলে ভরে উঠবে না ‘নো ম্যান্স ল্যান্ড।’

২১ ফেব্রুয়ারি মাতৃভাষা দিবসে পেট্রাপোল বা বেনাপোলে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে দুই দেশের বাঙালিরা এক হয়ে দিনটি পালন করেন। দু’দেশের সরকারি প্রতিনিধি ও মন্ত্রীরা পড়শি দেশে গিয়ে শহিদবেদিতে মালা দিতেন। সেই স্মারক বিনিময় এবং বক্তৃতা পর্বও বাতিল। ‘নো ম্যান্স ল্যান্ড’-এ যেখানে ভারতের মঞ্চ বাঁধা হত, বদলাচ্ছে সেই জায়গাও। আনন্দবাজার পত্রিকার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে,’বিএসএফ, শুল্ক দফতর এবং উত্তর ২৪ পরগনা পুলিশকে এমনই নির্দেশ দিয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রক।’

এর আগে টাকিতে বিজয়া দশমীর দিন ইছামতীর বুকে দু’দেশের বিসর্জন বন্ধ করেছে প্রশাসন। এ বার একুশের মেলামেশাও বন্ধ হল। কারণ মূলত নিরাপত্তা নিয়ে সংশয়। এক দিকে বাংলাদেশে সাম্প্রতিক অস্থিরতা, অন্য দিকে ভারতে আসন্ন লোকসভা নির্বাচন। বেড়ে গিয়েছে সোনা পাচার। নিরাপত্তার কারণেই মূলত এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে পশ্চিমবঙ্গের পুলিশ প্রশাসন মিডিয়াকে জানিয়েছে।

এদিকে, জনসাধারণের জন্য সীমান্তের গেট খোলা হবে না, এই সিদ্ধান্ত হওয়ার পরেই দু’দেশের সরকারি প্রতিনিধিরা বিএসএফ এবং প্রশাসনের সঙ্গে বৈঠক করেন। তাঁদের প্রস্তাব ছিল, শুধু মন্ত্রী ও সরকারি প্রতিনিধিদের কিছুক্ষণের জন্য পড়শি দেশে যেতে দেওয়া হোক। কিন্তু শেষ মুহূর্তে তা বাতিল করা হয়।