অপরাধ জাতীয় বরিশাল ভোলা

ভোলায় ২০১৩ সালে ১ হাজার ৫শ’ ৭৩টি অপরাধ সংঘটিত

এম. শরীফ হোসাইন, ভোলা :  ভোলায় ২০১৩ সালে ১ হাজার  ৫শ’ ৭৩টি অপরাধ সংঘটিত হয়েছে। এরমধ্যে খুন ৪১টি, নারী  নির্যাতন ১শ’ ৭৭টি, ধর্ষণ ৯৪টি, মাদক ৮৭টি, অপহরণ ১১টি, পুলিশ আক্রান্ত ১০টি, এডিস নিক্ষেপে ২টি, অস্ত্র আইনে ৫টি, দ্রুত বিচারে ৫টি, চোরা চালানে ৮টি ও ডাকাতির অভিযোগে ৭টি, বিষ্ফোরকে ২টি, মোটরযান দুর্ঘটনায় ৩টি ও চুরি ৫৪টি হয়েছে। ভোলা জেলা আইন শৃঙ্খলা কমিটির সভায় উপস্থাপিত তথ্য অনুযায়ী ভোলা সদর উপজেলায় জানুয়ারীতে ৩০টি, ফেব্রুয়ারীতে ৩০টি, মার্চে ৪০টি, এপ্রিলে ৪৯টি ও মে’তে ৪৪টি, জুন মাসে ৪১টি, জুলাই মাসে ৪২টি, আগষ্ট মাসে ৫৪টি, সেপ্টেম্বরে ৪১টি, অক্টোবরে ৪৬টি, নভেম্বরে ৩৪টি ও ডিসেম্বরে ৩০টিসহ মোট ৪শ’ ৮১টি মামলা হয়েছে।দৌলতখান উপজেলায় জানুয়ারীতে ৬টি, ফেব্রুয়ারীতে ৭টি, মার্চে ৭টি ও এপ্রিলে ৫টি ও মে’তে ৬টি, জুন মাসে ৮টি, জুলাই মাসে ১০টি, আগষ্ট মাসে ১৬টি, সেপ্টেম্বরে ১৭টি, অক্টোবরে ১০টি, নভেম্বরে ১২টি ও ডিসেম্বরে ১৪টিসহ মোট ৪শ’ ৮১টি সহ মোট ১শ’ ১৮টি মামলা হয়েছে। বোরহানউদ্দিন উপজেলায় জানুয়ারীতে ২০টি, ফেব্রুয়ারীতে ১৯টি, মার্চে ১৯টি, এপ্রিলে ১৯টি ও মে’তে ১৯টি,জুন মাসে ১৮টি, জুলাই মাসে ১৯টি, আগষ্ট মাসে ২০টি, সেপ্টেম্বরে ২৫টি, অক্টোবরে ২২টি, নভেম্বরে ২২টি ও ডিসেম্বরে ২০টিসহ মোট ২শ’ ৪৩টি মামলা হয়েছে। লালমোহন উপজেলায় জানুয়ারীতে ২২টি, ফেব্রুয়ারীতে
২৬টি, মার্চে ২৪টি, এপ্রিলে ২৩টি ও মে’তে ২৫টি, জুন মাসে ১৯টি, জুলাই মাসে ২২টি, আগষ্ট মাসে ২৩টি, সেপ্টেম্বরে ২৯টি, অক্টোবরে ১৯টি, নভেম্বরে ২২টি ও ডিসেম্বরে
২২টিসহ মোট ২শ’ ৭৬টি মামলা হয়েছে। তজুমুদ্দিন উপজেলায় জানুয়ারীতে ৯টি, ফেব্রুয়ারীতে ১২টি, মার্চে ১১টি, এপ্রিলে ৯টি ও মে’তে ৬টি , জুন মাসে ১৩টি, জুলাই মাসে ১২টি, আগষ্ট মাসে ৯টি, সেপ্টেম্বরে ১টি, অক্টোবরে ১০টি, নভেম্বরে ৯টি ও ডিসেম্বরে ১১টিসহ মোট ১শ’ ২৩টি মামলা হয়েছে। চরফ্যাশন উপজেলায় জানুয়ারীতে ২৮টি, ফেব্রুয়ারীতে ২৫টি, মার্চে ২৮টি, এপ্রিলে ২৭টি ও মে’তে ২১টি, জুন মাসে ২৬টি, জুলাই মাসে ২৫টি, আগষ্ট মাসে ২৩টি, সেপ্টেম্বরে ২৪টি, অক্টোবরে ২৫টি, নভেম্বরে ২৪টি ও ডিসেম্বরে ২৪টিসহ মোট ৩শ’ টি মামলা হয়েছে। মনপুরা উপজেলায় জানুয়ারীতে নাই, ফেব্রুয়ারীতে ৩টি, মার্চে ৪টি, এপ্রিলে ৪টি ও মে’তে ৪টি, জুন মাসে ১টি, জুলাই মাসে ২টি, আগষ্ট মাসে ৪টি, সেপ্টেম্বরে ৩টি, অক্টোবরে ২টি, নভেম্বরে নাই, ও ডিসেম্বরে ৩টিসহ মোট ৩০টি মামলা হয়েছে। অন্যদিকে নব গঠিত শশীভূশণ থানায় জানুয়ারীতে ৭টি, ফেব্রুয়ারীতে ১১টি, মার্চে ১২টি, এপ্রিলে ৮টি ও মে’তে ১১টি, জুন মাসে ১০টি, জুলাই মাসে ১২টি, আগষ্ট মাসে ৮টি, সেপ্টেম্বরে ৭টি, অক্টোবরে ১২টি, নভেম্বরে ১৩টি ও ডিসেম্বরে ১৫টিসহ মোট ১শ’ ২৬টি মামলা হয়েছে এবং দক্ষিণ আইচা থানায় জানুয়ারীতে ৬টি, ফেব্রুয়ারীতে ৫টি, মার্চে ৫টি, এপ্রিলে ৬টি ও মে’তে ৬টি, জুন মাসে ৭টি, জুলাই মাসে ৪টি, আগষ্ট মাসে ১৩টি, সেপ্টেম্বরে ৮টি, অক্টোবরে ৮টি, নভেম্বরে ৯টি ও ডিসেম্বরে ৮টিসহ মোট ৮৫টি মামলা হয়েছে। জেলা প্রশাসক মোঃ সেলিম রেজা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় সমাজে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠায় প্রশাসন ও পুলিশ বিভাগকে নিরপেক্ষ ভাবে তদন্ত পূর্বক আইনী সহায়তা প্রদানের জন্য অনুরোধ করেন।উল্লেখ্য, ভোলার ৭ উপজেলায় ২০১৩ সালে ১ হাজার ৫শ’ ৭৩টি অপরাধ হলেও বেসরকারী ভাবে অপরাধের চিত্র আরো বেশী। অনেক অপরাধ প্রভাবশালীদের কারণে এবং গ্রাম্য সালিশীর মাধ্যমে থানা পর্যন্ত না গড়িয়ে এলাকায় সমাধান হয়েছে। আবার অনেকে নানান কারণে মামলা করতে সাহস করেনি। জেলা সদর ভোলায় সর্বোচ্চ অপরাধ সংঘঠিত হওয়ায় জনমনে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। থানা কর্তৃপক্ষ মামলা নিয়ে-ই কি বানিজ্য করছে ? যেখানে
জেলার সর্বোচ্চ কর্তা ব্যক্তিরা রয়েছেন এবং আইনশৃঙ্খলারপরিবেশও সুন্দর আছে। তাই উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ বিষয়টি ক্ষতিয়ে দেখা প্রয়োজন।