অপরাধ ঢাকা রাজনীতি

চলছে ৮৩ ঘণ্টার অবরোধ

 নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা, ২১ ডিসেম্বর:  আজ শনিবার ভোর ৬টা থেকে শুরু হলো নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন ও তফসিল স্থগিত করার দাবিতে বিএনপি নেতৃত্বাধীন ১৮ দলের ডাকা ৮৩ ঘন্টার অবরোধ কর্মসূচি।
শনিবার ভোর ৬টা থেকে মঙ্গলবার বিকেল ৫টা পর্যন্ত চলবে অবেরাধ।
চতুর্থ দফা অবরোধের সময় শেষ না হতেই গত বৃহস্পতিবার বিকেলে গুলশান চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান এক সংবাদ সম্মেলনে পঞ্চম দফা সড়ক-রেল-নৌপথ অবরোধ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।
২১ ডিসেম্বর জাতীয় টিকা দিবস উপলক্ষে জাতিসংঘ ও স্বাস্থ্য বিভাগের যানবাহন, সংবাদপত্র ও সংবাদপত্রবাহী গাড়ি, লাশবাহী গাড়ি ও অ্যাম্বুলেন্স অবরোধের আওতামুক্ত থাকবে বলে জানান তিনি।
এদিকে, অবরোধ থাকলেও শনিবার থেকে টানা চার দিনের অবরোধে পুলিশি পাহারায় দূরপাল্লার বাস চলবে বলে ঘোষণা দেন নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান।
তবে দূরপাল্লার সব রুটে বাস চলাচল এখনই শুরু হচ্ছে না। প্রথম দফায় ছয়টি রুটে দূরপাল্লার বাস চালানো হবে।
এগুলো হলো ঢাকা-ময়মনসিংহ, ঢাকা-টাঙ্গাইল, ঢাকা-ফরিদপুর, ঢাকা-মাওয়া, ঢাকা-কুমিল্লা ও ঢাকা-আরিচা রুট। সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক সংগঠন সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে।
এ প্রসঙ্গে নৌপরিবহনমন্ত্রী শাজাহান খান জানান, একসঙ্গে সব রুটে গাড়ি চালানো সম্ভব নয়। আমরা প্রথম পর্যায়ে কিছু রুট বাছাই করেছি। যেখানে নিয়মিত গাড়ি চালানো হবে। এজন্য প্রথমে দরকার সরকারের আইনগত সহযোগিতা এবং জনগণের ঐক্যবদ্ধতা।

তবে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক শ্রমিক ঐক্য পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রমেশ চন্দ্র ঘোষ জানিয়েছেন, অবরোধে গাড়ি চলবে কি না, তা নির্ভর করছে পুলিশ কীভাবে প্রোটেকশন দেবে তার ওপর।

এরইমধ্যে অবরোধকে কেন্দ্র করে গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যা থেকে মধ্যরাত পর্যন্ত রাজশাহী, গাজীপুর, লক্ষিপুর, বগুড়া ও সিলেটে ককটেল বিস্ফোরণ, ট্রাক ভাংচুর, আ.লীগ নেতাকর্মীদের উপর হামলা চালিয়েছে ১৮ দলের কর্মীরা।

উল্লেখ্য, গত ২৫ নভেম্বর নির্বাচন কমিশন তফসিল ঘোষণার পর থেকে ১৮ দলীয় তা স্থগিত ও নির্দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচনের দাবিতে পরের দিন ২৬ নভেম্বর থেকে তিন দফায় মোট ১৪ দিন সারা দেশে অবরোধ কর্মসূচি পালন করে। এতে রাজনৈতিক সহিংসতায় এ পর্যন্ত ৭৫ জনের অধিক নিহত হয়েছেন।

এদিকে ১৮ দলের বিরোধিতার মধ্যেই আগামী ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের পথে এগিয়ে চলছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ।