জয়পুরহাট জাতীয় রাজশাহী

১৪ডিসেম্বর জয়পুরহাট জেলা হানাদার মুক্ত দিবস

এসএস মিঠু ,জয়পুরহাট থেকে : ১৪ডিসেম্বর,জয়পুরহাট জেলা হানাদার মুক্ত দিবস।১৯৭১এর অগ্নিঝরা আজকের এ দিনে উত্তরাঞ্চলের সীমান্ত জেলা- জয়পুরহাট সম্পূর্ন রূপে শত্রুমুক্ত স্বাধীন হয়েছিল।পত পত করে মুক্ত আকাশে উড়েছিল পরম আরাধ্য স্বাধীনতার বিজয় পতাকা।১৪ডিসেম্বর শীতের কুয়াশা মোড়া নতুন সূর্য ওঠা ভোরের আলোয় জয়পুরহাটের পাঁচবিবি উপজেলার ভূঁইডোবা সীমান্ত অতিক্রম করে ভারত থেকে স্বাধীন বাংলার মাটিতে প্রায় দেড় শতাধিক মুক্তিযোদ্ধাদের নিয়ে প্রবেশ করেন মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার প্রয়াত বাঘা বাবলু। তার আগেই পালিয়ে যায় পাক হানাদাররা।পায়ে হেঁটে বিকেলে জয়পুরহাট পৌঁছে পুরনো ডাক বাংলো চত্বরে প্রথম উড়িয়ে দেন লাল সবুজ পতাকা। পরে আনুষ্ঠনিক ভাবে শহীদ ডা.আবুল কাশেম ময়দানে আওয়ামী লীগ নেতা প্রয়াত ড.মফিজ উদ্দীন চৌধুরী(যিনি পরবর্তীতে আওয়ামী লীগ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী হয়েছিলেন) স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করেছিলেন। জয়পুরহাটকে হানাদার মুক্ত করতে যে অকুতভয় সূর্য সন্তান আত্ম উৎসর্গ করেছিলেন তাদের স্মরণে এ মাঠে নির্মাণ করা হয় ৭১ফুট উচ্চ ‘মুক্তিযুদ্ধের স্মৃতিসৌধ’। এ ছাড়াও পরবর্তীতে জেলা প্রশাসন ক্যাম্পাসে স্থাপন করা হয় ‘মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি স্তম্ভ’। দিবসটি উপলক্ষে জয়পুরহাটের পাগলাদেওয়ান ও কড়ই-কাদিপুর বধ্যভূমিতে ২দিন ব্যাপি  নানা কর্মসূচী গ্রহন করেছে জেলা প্রশাসন।