জাতীয় প্রধান খবর

এটর্নি জেনারেলের উপর ক্ষেপলেন প্রধান বিচারপতি

ঢাকা, ১১ ডিসেম্বর: এটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম সংবিধানের ৪৭ ধারার ক অনুচ্ছেদের ব্যাখ্যা করে বার বার একই কথা বলে যাচ্ছিলেন। এসময় প্রধান বিচারপতি মোজাম্মেল হক একটু বিরক্ত হয়ে, কিছুটা ক্ষিপ্ত মেজাজেই বলেন,“এই ধারা আমরা বিচারকরা সবাই জানি। আপনাকে নতুন করে আর ব্যাখ্যা দিতে হবেনা। রিভিউ পিটিশন কেন গ্রহণ করা হবেনা, সে বিষয়ে যদি আর কোন কথা থাকে আপনি তাই বলুন।”

বুধবার মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল আব্দুল কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় পুনর্বিবেচনার (রিভিউ) আবেদনের উপর শুনানির এক পর্যায়ে প্রধান বিচারপতি মো. মোজাম্মেল হোসেন এভাবে কথাগুলো বলেন।

প্রধান বিচারপতির এমন কথার জবাবে কিছুক্ষণ চুপ করে ছিলেন মাহবুবে আলম। ফলে পাঁচ বিচারপতির পূর্ণাঙ্গ আপিল বেঞ্চ এটর্নি জেনারেলকে বসিয়ে দিয়ে আসামী কাদের মোল্লার আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুর রাজ্জাককে বক্তব্য উপন্থাপনের সুযোগ দেন।

প্রায় ৫০ মিনিট বক্তব্য দেয়ার সুযোগ পেয়ে ব্যারিষ্টার রাজ্জাক বলেন, সংবিধানের ১০৫ অনুচ্ছেদই একজন আসামীর মৌলিক অধিকার সমুন্নত রাখে। যেখানে ৪৭ এর ক মৌলিক অধিকারকে ক্ষুন্ন করেছে।

এভাবে রাজ্জাক তার যুক্তি উপস্থাপন করে বিচারকদের কিছুটা বিব্রতকর পরিস্থিতির মুখে ফেলে দেন। বিচারকগণ কখনো মাথা চুলকিয়ে, কখনো গালে হাত রেখে চিন্তা করতে থাকেন। আবার কখনো চোখ কুচকিয়ে তাকিয়ে থেকেছেন আব্দুর রাজ্জাকের দিকে। এভাবে দীর্ঘ শুনানির পর প্রধান বিচারপতি মোজাম্মেল হক মামলার কার্যক্রম আগামীকাল বৃহস্পতিবার পর্যন্ত মুলতবি করেন।

এসময়ে প্রধান বিচারপতি বলেন, “রিভিউ পিটিশন আমলে নেওয়া হবে কিনা, সে বিষয়ে আগামীকাল আবার শুনানি হবে। আর সে পর্যন্ত কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর স্থগিত থাকবে।”

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টায় প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের ডিভিশন বেঞ্চে কাদের মোল্লার ফাঁসির রায় কার্যকর স্থগিতের উপর শুনানি শুরু হয়। ব্যারিষ্টার আব্দুর রাজ্জাক তখন দীর্ঘ সময় প্রার্থনা করলে বিচারকগণ তা নাকচ করে দিয়ে আধা ঘণ্টা পর বেলা সাড়ে ১১টায় আবার শুনানি শুরু করেন। এসময় আসামীপক্ষের আইনজীবীদের রিভিউ শুনানির প্রস্তুতি নিয়ে আসতে বলেন প্রধান বিচারপতি।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার রাতে কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকরের মাত্র দেড় ঘণ্টা আগে চেম্বার জজ সৈয়দ মাহমুদ হোসেন নাটকীয়ভাবে ওই কার্যক্রমের উপর স্থগিতাদেশ দেন।