অপরাধ বরিশাল ভোলা রাজনীতি

হরতালে ত্রিমুখী সংঘর্ষে আহত-১০ ;আটক-৬

ভোলা প্রতিনিধি :  জামায়াত নেতা কামরুজ্জামান মৃত্যু পরোয়ানা জারি করায় হরতাল আহ্বান করে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী। তাদের ডাকা হরতালে সরা দেশের ন্যায় ভোলায় বিক্ষিপ্ত ভাংচুর, পুলিশ ও আওয়ামীলীগ কর্মীদের সাথে জামায়াত-শিবিরের ত্রিমুখী সংঘর্ষের মধ্য দিয়ে হরতাল পালিত হয়েছে। এসময় উভয় দলের ১০ নেতা-কর্মী আহত হয় এবং পিকেটিং করার সময় ৬ জনকে
আটক করে পুলিশ। স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, সকাল ৯টার দিকে ভোলা-চরফ্যাশন মহা সড়কের বেপারীর বাজার এলাকায় শিবির কর্মীরা সড়ক অবরোধ করে মিছিল করে। এ সময় পুলিশ ধাওয়া শিবির কর্মীদের ধাওয়া দিয়ে মিছিলটি ছত্রভঙ্গ করে দেয়। এছাড়া শহরের চরনোয়াবাদ এলাকায় ৩টি অটোরিক্সা ভাংচুর করে জামায়াতকর্মীরা। এ ছাড়া হরতালের সমর্থনে ভোলার ভেদুরিয়া, বাংলাবাজার, ধনিয়া, জংশন, আলীনগর, লালমোহনে পিকেটিং ও ভাংচুর করেছে জামায়াত-শিবিরের কর্মীরা। তবে শহরের ইলিশা জংশন এলাকা থেকে পিকেটিংকালে ৬ জনকে আটক করেছে পুলিশ। অবরোধের কারণে ভোলার সকল রুটে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।অপরদিকে ভোলার বোরহানউদ্দিনে হরতালের সমর্থনে মিছিল পিকেটিং ও ভাংচুর করেছে ইসলামী ছাত্রশিবির বোরহানউদ্দিন শাখা। শাখা সভাপতির নেতৃত্বে সকাল থেকে বিভিন্ন স্থানে ভাংচুর চালায় তারা। এসময় স্থানীয় আ‘লীগের সাথে কয়েক দফা সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে ১০ জন আহত হয়। তাদেরকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, মানিকার হাট এলাকায় আ‘লীগ নেতা রাসেলের নেতৃত্বে প্রায় ১৫ জনের একটি গ্রুপ শিবিরের উপর অর্তকিত হামলা চালায়। এতে উভয় পক্ষের প্রায় ৮ জন নেতা-কর্মী আহত হয়। এর মধ্যে আ‘লীগের ৭ জন আর শিবিরের ৩ জন আহত হয়। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। ছবি-৩। বোরহানউদ্দিনে সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে এবং ভোলা শহরে ছাত্র শিবিরের বিক্ষোভ।