অপরাধ খুলনা খুলনা রাজনীতি

রাতে বোমা বিষ্ফোরণে প্রকম্পিত হচ্ছে খুলনা

এম এইচ হোসেন, খুলনা থেকে:   ককটেল বিস্ফোরণ, গ্রেফতার, মিছিল ও সমাবেশের মধ্য দিয়ে খুলনায় ১৮ দলীয় জোটের অবরোধ চলছে। অবরোধে রাতের নগরী বোমা বিষ্ফোরণে প্রকম্পিত হয়ে উঠছে। রাত হতেই শহরের বিভিন্ন গুরুত্ব পূর্ণ স্থানে একে একে বোমা বিষ্ফোরণ ঘটতে শুরু করে। বিকট শব্দে শহর জুড়ে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়।রোববার অবরোধ চলাকালে সীমিত আকারে রিক্সা-ভ্যান চললেও কোন ধরণের যন্ত্রচালিত যানবাহন চলাচল করেনি। দূর পাল্ল­ার কোন যানবাহন খুলনা ছেড়ে যায়নি।সকাল সোয়া ৭টার দিকে নগরীর মডার্ণ ফার্নিচার মোড়ে মিছিল শেষে খানজাহান আলী সড়কে আগুন জ্বালিয়ে সড়ক অবরোধ করা হয়। এখানে ৩টি ককটেল বিস্ফোরণ ও ৩টি ইজিবাইক ভাংচুর হয়। এ সময় ইজিবাইক চালক মিঠু আহত হয়। সকাল পৌণে ৮টার দিকে খানজাহান আলী সড়কের জামাতখানা এলাকায় ছাত্রদল মিছিল বের করে এবং টায়ারে আগুন দিয়ে সড়ক অবরোধ করে। এখানে ৪টি ককটেল বিস্ফোরিত হয়। এতে এলাকায়
আতংক ছড়িয়ে পড়ে। এছাড়া জেলার ডুমুরিয়া উপজেলা পরিষদের সামনের খুলনা-সাতক্ষীরা মহাসড়কে আগুন জ্বালিয়ে নেতা-কর্মী শুয়ে ও বসে অবরোধ করে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গেলে উভয় পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এতে ৭জন নেতা-কর্মী আহত হয়। অবরোধের দ্বিতীয় দিনে ছাত্রদল নেতা তামিম ও যুবদল নেতা মোশারফ হোসেনকে পুলিশ সাড়ে ৯টায় নগরীর পিটিআই মোড় থেকে ১৮ দলের একটি মিছিল বের হয়। মিছিলটি নগরীর প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ করে দলীয় কার্যালয়ে এসে শেষ হয়। সকাল সাড়ে ১০টায় নগরীর কেডি ঘোষ রোডস্থ বিএনপি’র কার্যালয়ের সামনে ১৮ দলের এক সমাবেশ
নজরুল ইসলাম মঞ্জু’র সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সমাবেশে বক্তৃতা করেন কেসিসি মেয়র মোহাম্মাদ মনিরুজ্জামান মনি, বিজেপির মহানগর সভাপতি এডভোকেট লতিফুর রহমান লাবু, মহানগরী জামায়াতের সহকারি সেক্রেটারি এডভোকেট শাহ আলম ও খান গোলাম রসুল, জেলা বিএনপি’র সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট এসএম শফিকুল আলম মনা, বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সিরাজউদ্দিন সেন্টু, মুসলীম লীগের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আকতার জাহান রুকু, মুন্সী সোলায়মান, জামায়াত নেতা আজিজুর
রহমান স্বপন, সাবেক এমপি সৈয়দা নার্গিস আলী, এডভোকেট ফজলে হালিম লিটন, এডভোকেট এস আর ফারুক, অধ্যাপক আমির আলী, ফখরুল আলম, আরিফুজ্জামান অপু, মনিরুজ্জামান মন্টু, শেখ আব্দুর রশিদ, সিরাজুল হক নান্নু, আবু হোসেন বাবু, নজরুল ইসলাম বাবু, মোল্ল­া খায়রুল ইসলাম, শফিকুল আলম তুহিন, মেহেদী হাসান দীপু, মহিবুজ্জামান কচি, শের আলম সান্টু, আজিজুল হাসান দুলু, হাফেজ ওয়াহেফুজ্জামান, মনিরুল হক বাপ্পী, শেখ সাদী, আজিজা খান এলিজা, আব্দুর রহিম বক্স দুদু, মুজিবর রহমান, ইউসুফ হারুন মজনু, সামছুর রহমান, বিপ্ল বুর রহমান কুদ্দুস, এডভোকেট মোল্ল া
মাসুম রশিদ, কে এম হুমায়ুন কবির, একরামুল কবির মিল্টন, শফিকুল ইসলাম হোসেন, একরামুল হক হেলাল, হাসানুর রশিদ মিরাজ, আব্দুল আজিজ সুমন, আতিকুর রহমান তিতাস, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, এনামূল কবির মোল্ল া, শামসুজ্জামান চঞ্চল, ছাত্রদল নেতা আরিফুজ্জামান আরিফ, কামরান হাসান, এস এম কামাল হোসেন, এডভোকেট তসলিমা খাতুন ছন্দা, শফিকুল ইসলাম শফি, এডভোকেট কে এম শহিদুল, শিবির নেতা তারিকুর রহমান, জাহিদুর রহমান রিপন, জিএম রফিকুল ইসলাম, মাহবুব হাসান পিয়ারু, আবু সাঈদ শেখ, গাজী সোয়েব উদ্দীন মিন্টু, কাজী ফজলুল কবির টিটো, কে এম ফরিদী, মজিবুর রহমান ফয়েজ, ময়েজ উদ্দীন চুন্নু, হাসিনা আকরাম, সাব্বির হোসেন, মেহেদী হাসান সোহাগ, মাওলানা আব্দুল গফ্ফার, সাইমুন ইসলাম রাজ্জাক, সিদ্দিকুর রহমান, নুরুল ইসলাম লিটন, মুক্তি মাহমুদা মনি, শাকিল আহমেদ প্রমূখ। সভা পরিচালনা করেন আসাদুজ্জামান মুরাদ। অপরদিকে মহানগরী জামায়াতে ইসলামী নগরীর থানায় থানায় ও ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে মিছিল ও সমাবেশ করেছে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন সহকারী সেক্রেটারি এডভোকেট মুহাম্মদ শাহ আলম, এডভোকেট জাহাঙ্গীর হুসাইন হেলাল, খান গোলাম রসূল, জি এম শফিকুল ইসলাম, এন রহমান, কে এম রায়হানুল হক, আজিজুর রহমান, হাফেজ আবুল বাশার, এডভোকেট মনিরুল ইসলাম পান্না, অধ্যক্ষ মুস্তাফিজুর রহমান টিংকু, তরিকুল ইসলাম তারেক, মহিউল ইসলাম, ইমরান খান সাগর, ইমরান হোসেন, আব্দুল মান্নান, আবুল হোসেন, কামরুজ্জামান, মোশাররফ আনছারী, আবু বকর সিদ্দিক, আব্দুল হান্নান, মাকসুদ আহমেদ, মাহবুব বিল্ল াহ, কামাল হোসেন, মোঃ রাশেদ, নাজমুস সাকিব, মনিরুল ইসলাম, মাসুদুর রহমান,আবুল হাসান, আবুল কালাম প্রমূখ।