জাতীয় ঢাকা রাজনীতি

জাসদের ৪টি, তরিকতের ২টি আসন নিশ্চিত

 হটনিউজ প্রতিবেদক,৬ডিসেম্বর,ঢাকা:  আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ) চারটি এবং তরিকত ফেডারেশনকে দুটি আসন নিশ্চিত করেছে আওয়ামী লীগ। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের ধানমন্ডিস্থ রাজনৈতিক কার্যালয়ে এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।  জাতীয় পার্টি নির্বাচন থেকে আদৌ সরবে কি সরবে না- বিষয়টি নিয়ে এখনো স্পষ্ট নন ১৪ দলের নেতারা। জাতীয় পার্টির সিদ্ধান্তের ওপর নির্ভর করে আরো কিছু আসন বণ্টনে নতুন সমীকরণ যোগ হবে বলে ১৪ দলের নেতারা জানিয়েছেন। জাতীয় পার্টি যদি নির্বাচনে অংশ না নেয় তাহলে জাতীয় পার্টি ভাগ হয়ে যাবে বলেও বৈঠকে মন্তব্য করেন এক নেতা।

বৈঠক শেষে তিন দলের প্রার্থী তালিকা নিয়ে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে দেখা করতে গণভবনে যান আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ। প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করে জোটের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা তৈরি হবে বলেও ১৪ দলের নেতারা জানান।

বৈঠক সূত্র জানায়, জাসদের চারটি সিট নিশ্চিত করা হয়েছে আজকের বৈঠকে। নিশ্চিত আসনগুলো হচ্ছে কুষ্টিয়া-২ আসন থেকে হাসানুল হক ইনু, ফেনী-১ আসনে শিরিন আখতার, ব্রাহ্মণবাড়িয়া-৫ আসনে শাহ জিকরুল আহমেদ এবং চট্টগ্রাম-৭ আসনে মাঈনুদ্দিন খান বাদল।

এছাড়া নড়াইল-১ আসনে শরীফ নুরুল আম্বিয়া ও পঞ্চগড়ের একটি আসনে নাজমুল হক প্রধানের মনোনয়নের বিষয়েও বৈঠকে আলোচনা হয়েছে। তবে কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি।

তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যানকে চট্টগ্রাম-২ আসনে এবং মহসচিব লায়ন এম এ আউয়ালকে লক্ষ্মীপুর-১ আসনে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলা হয়েছে। ওয়ার্কার্স পার্টির প্রার্থীদের নিয়ে আলোচনা হয়েছে। তবে কোনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি। দলটির বর্তমান দুজন এমপি রাশেদ খান মেননকে ঢাকা-৮ আসনে, ফজলে হোসেন বাদশাকে রাজশাহী-২ আসনে কাজ করতে বলা হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট সালমা ইসলাম ঢাকা-১ আসন থেকে মনোনয়ন ফরম তুলেছেন। ওই আসনেই আওয়ামী লীগের দফতর সম্পাদক অ্যাডভোকেট মান্নান খান এবং ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা পরম আলীও মনোনয়ন প্রত্যাশী। জাতীয় পার্টির সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় এমন বেশ কিছু আসনে প্রার্থিতা আটকে রয়েছে।

১৪ দলের নেতারা এমনটিও দাবি করছেন, জোটের মনোনয়নের বাইরেও নিজ নিজ দলীয় প্রতীক নিয়েও অনেকে আসন্ন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন।

সংসদ নির্বাচন উপলক্ষে মিত্র দলগুলোর সাথে আসন সমঝোতার বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ভূমিমন্ত্রী আমির হোসেন আমু, শিল্পমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, যোগাযোগমন্ত্রী ওবায়াদুল কাদের, বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি ও টেলিযোগাযোগমন্ত্রী রাশেদ খান মেনন, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের সভাপতি ও তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, তরিকত ফেডারেশনের চেয়ারম্যান সৈয়দ নজিবুল বশর মাইজভান্ডারি প্রমুখ।

বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে আমির হোসেন আমু বলেন, ১৪ দলের শরিকদের সঙ্গে আসন সমঝোতা নিয়ে আলোচনা চলছে। আরো কয়েকটি বৈঠক হবে। তিনি বলেন, আমরা ঐক্যবদ্ধভাবে নির্বাচন করার লক্ষ্যে এগোচ্ছি। বিএনপির সাথে একাত্তরের পরাজিত শক্তি জামায়াতে ইসলামী ছাড়া আর কোনো ইসলামী দল নেই বলেও জানান তিনি।

বৈঠক থেকে বেরিয়ে জাসদ সাধারণ সম্পাদক শরীফ নুরুল আম্বিয়া বলেন, জোটের মনোনয়ন যেসব আসনে দেয়া যেতে পারে এমন ২০টি আসনে প্রার্থী তালিকা জমা দিয়েছি।

ওয়ার্কার্স পার্টির সাধারণ সম্পাদক আনিসুর রহমান মল্লিক জানান, ১০টি আসন চেয়েছে ওয়ার্কার্স পার্টি। বৈঠক সূত্রে জানা যায়, ৫টি আসনের তালিকা জমা দিয়েছে তরিকত ফেডারশেন।