অপরাধ ঢাকা রাজনীতি

মওদুদ-আনোয়ার দের জামিন ফের নামঞ্জুর

আদালত প্রতিবেদক: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ, এম কে আনোয়ার, ব্যারিস্টার রফিকুল ইসলাম মিঞা, খালেদা জিয়ার চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আব্দুল আওয়াল মিন্টু ও খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শিমুল বিশ্বাসের জামিন আবেদন
ফের নাকচ করেছে আদালত। ঢাকার মহানগর দায়রা জজ মো. জহুরুল হক বৃহস্পতিবার বিকেলে এ আদেশ দেন। জামিন আবেদন নাকচের পর আসামিদের আইনজীবী মাসুদ আহমেদ তালুকদার এ প্রতিবেদককে বলেন, আমরা আদালতের কাছ থেকে ন্যায়বিচার পায়নি। এ আদেশের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে আবেদন করা হবে। এর আগে গত ১৪ নভেম্বর ঢাকার মহানগর হাকিম আদালত মওদুদসহ শীর্ষ এই পাঁচ বিএনপির নেতার জামিন আবেদন নাকচ করেছিল। সেদিন আদালত পাঁচ জনকে আট দিন রিমান্ডে নেয়ার অনুমতি দেয়। পরে রিমান্ডের আদেশ বাতিল চেয়ে আসামি পক্ষ হাইকোর্টে আবেদন করেন। হাইকোর্ট রিমান্ডে নেয়ার আদেশ অবৈধ ঘোষণা করে।
নি¤œ আদালতের আবেদনের বিরুদ্ধে ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে আবেদন করেন আসামিদের আইনজীবী সানাউল্লাহ মিয়া।
জামিন শুনানিতে অংশ নেন সুপ্রীম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, মাসুদ আহমেদ তালুকদার ও সানাউল্লাহ মিয়া। অপরদিকে জামিন আবেদনের বিরোধীতা করে আদালতে বক্তব্য রাখেন ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু। তিনি আদালতকে বলেন, মামলার আসামিদের এখনও জিজ্ঞাসাবাদ করতে পারেননি মামলার তদন্ত কর্মকর্তা। জিজ্ঞাসাবাদ শেষ না হলে কোনও ভাবেই তাদের জামিন দিতে পারেন না আদালত। উল্লেখ্য, গত ৮ নভেম্বর মওদুদ, আনোয়ার ও রফিকুলকে ঢাকার সোনারগাঁও হোটেলেরসামনে থেকে গ্রেফতার করা হয়। ওই দিন রাতে মিন্টু ও শিমুলকে গুলশানস্থ বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে থেকে গ্রেফতার করে ডিবি পুলিশ। পরে তাদের মতিঝিল থানার পুরনো দুটি মামলায় গ্রেফতার দেখিয়ে পুলিশ আসামিদের বিশ দিন রিমান্ডে নেয়ার আবেদন করেন। মামলা দুটিতে আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়, আসামিদের নির্দেশে কমলাপুরে হরতাল কারীরা গাড়িতে অগ্নিসংযোগ ও ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটায়। এ ছাড়া মতিঝিল মডেল স্কুল এন্ড কলেজের সামনে আসামিদের পরিকল্পনা ও নির্দেশে আসামিরা ককটেল বিস্ফোরণে ঘটনা ঘটায়।