অপরাধ জাতীয় ঢাকা প্রধান খবর রাজনীতি

অবরোধে নিহত ১৪

 নিজস্ব প্রতিবেদক, ঢাকা, ২৭ নভেম্বর:  ১৮-দলীয় জোটের ডাকা ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ কর্মসূচির দুই দিনে সারা দেশে সহিংসতায় ১৪ জন মারা গেছেন। এরমধ্যে প্রথম দিন বিজিবির এক সদস্যসহ ৮জন এবং দ্বিতীয় দিন বুধবার এক মহিলা ব্যাংক কর্মচারিসহ সারা দেশে ছয়জন নিহত হন।

এদিকে ৪৮ ঘণ্টার অবরোধ আরো ১২ ঘণ্টা বাড়িয়ে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত করা হয়েছে। নেতাকর্মীদের ওপর সরকারের নির্যাতনের অভিযোগ এনে অবরোধে কর্মসূচি বাড়ানো হলো বলে জানিয়েছেন বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবীর রিজভী আহমেদ।

বুধবার রাজধানী ঢাকায় ব্যাংক কর্মচারী, সাতক্ষীরা ও সিরাজগঞ্জে জামায়াতের কর্মী, চট্টগ্রামে টেম্পু চালক, গাজীপুরের কালীগঞ্জে ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) সদস্যসহ ছয়জন নিহত হয়েছেন।

এচাড়া চট্টগ্রাম, রাজশাহী, চাঁদপুর, সীতাকুণ্ড, চাঁপাইনবাবগঞ্জ, সিরাজগঞ্জ, গাজীপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় পিকেটার-পুলিশ সংঘর্ষের ঘটনায় পুলিশসহ শতাধিক ব্যক্তি আহত হয়েছেন। অবরোধ চলাকালে জনমনে চরম আতঙ্ক বিরাজ করছিল।

আমাদের নিজস্ব প্রতিবেদক ও জেলা প্রতিনিধিরা জানান, বিরোধীদলের ৪৮ ঘণ্টা অবরোধের প্রথম দিন মঙ্গলবার বিকেলে অফিস থেকে বাসায় ফেরার পথে বিস্ফোরণে আহত হন ন্যাশনাল ব্যাংকের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারী আনোয়ারা। বুধবার ভোরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মৃত্যু হয় তার।

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জের বেলকুচিতে জামায়াত-বিএনপি ও আওয়ামী লীগ নেতাকর্মীদের সংঘর্ষে দু’জন নিহত হয়েছেন।

এরা হলেন-বেলকুচি উপজেলা ধুকুরিয়া বেড়া ইউনিয়নের ৩নং ওয়ার্ড ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মাসুম বিল্লাহ (২৮) ও ধুকুরিয়া বেড়া এলাকার জামায়াত নেতা আব্দুল জলিল (৫৫)।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, অবরোধ সমর্থনে দুপুর ১২টার দিকে মিছিল বের করেন জামায়াত-বিএনপির নেতাকর্মীরা। এসময় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা মিছিলে হামলা চালালে সংঘর্ষ বাধে। পুলিশ টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে। ত্রিমুখী সংঘর্ষে ছাত্রদল ও জামায়াতের এই দুই নেতা নিহত হন।

রাজশাহী: ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ম মহাসচিব ও রাজশাহী মহানগর সভাপতি মিজানুর রহমান মিনুসহ অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছেন। আহত হয়েছেন পুলিশের আট সদস্য।

৪০ মিনিটব্যাপী সংঘর্ষ রাজশাহী কলেজ সংলগ্ন এলাকা থেকে ছড়িয়ে পড়ে পার্শ্ববর্তী সোনাদীঘি মোড়, সাহেববাজার, মালোপাড়া ও রাজারহাতাসহ কয়েকটি এলাকায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে নেতাকর্মীদের ছত্রভঙ্গ করতে পুলিশ তিন শতাধিক রাউন্ড টিয়ারশেল ও রাবার বুলেট ছোড়ে।

চট্টগ্রাম: পটিয়া উপজেলার ফকিরনীরহাট এলাকায় সকাল আটটার দিকে পিকেটারদের ধাওয়ায় টেম্পু উল্টে চালক এরশাদ আলী (২৬) আহত হন। পরে তাঁকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়ার পর দুপুর ১২টার দিকে মারা যান তিনি।

পিকেটারদের লাগানো আগুনে সিএনজিচালিত অটোরিকশার যাত্রী আবদুল আলম দগ্ধ হন। চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের প্রধান মৃণাল কান্তি দাস জানান, তাঁর শরীরের ২২ শতাংশ পুড়ে গেছে।

সকাল থেকে এ কে খান মোড়, অলংকার মোড় ও কর্নেলহাট, ওয়াসা মোড় ও কাজীর দেউড়ির নাসিমন ভবনে বিএনপি কার্যালয়ের সামনে পিকেটারদের সঙ্গে পুলিশ-র‌্যাব-বিজিবির দফায় দফায় সংঘর্ষ চলে। এতে পুলিশসহ আহত হন ২০ জন। ঘটনাস্থল থেকে আটজনকে আটক করা হয়। অবরোধকারীরা ওইসব এলাকায় অর্ধশতাধিক দোকান ও তিনটি গাড়ি ভাঙচুর করে। এসময় একটি গাড়িতে আগুন লাগায় তারা। নিমতলা এলাকায় ভাঙচুর করা হয় ৩০টি ট্রাক।

সাতক্ষীরা: সদর উপজেলার আবাদেরহাটখোলা এলাকায় পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবির সদস্যদের সঙ্গে জামায়াত-শিবিরের নেতা-কর্মী ও সমর্থকদের সংঘর্ষে গতকাল রাতে জামায়াতের কর্মী শামছুর রহমান (৩৫) নিহত হন।

গাজীপুর: আমাদের প্রতিনিধি জানান, গাজীপুরের কালীগঞ্জে অবরোধকারীদের হামলায় এক ছাত্রলীগ নেতা নিহত ও আহত হয়েছেন ৫ জন।

স্থানীয় ও থানা সূত্রে জানা গেছে, বুধবার দুপুরে উপজেলার জামালপুর ইউনিয়নের চুপাইর মোড়ে টায়ার জ্বালিয়ে রাস্তা অবরোধ করে অবরোধকারীরা। এসময় স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মীরা বাধা দিলে সংর্ঘষ বাধে।

এতে জামালপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও বর্তমান জামালপুর ইউপি ৩নং ওয়ার্ডের মেম্বার কামাল হোসেনসহ  ৫ জন গুরুতর আহত হন। স্থানীয় নেতা-কর্মীরা তাদের উদ্ধার করে কালীগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত ডাক্তার কামাল মেম্বারকে মৃত ঘোষণা করেন।

চাঁদপুর: শহরের চিত্রলেখা মোড়ে ও হাজীগঞ্জ বাজারে অবরোধকারীদের সঙ্গে সকালে পুলিশের কয়েক দফা সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়। এসব ঘটনায় ১২ জনকে আটক করা হয়েছে।

চাঁপাইনবাবগঞ্জ: ১৮ দলের কর্মী-সমর্থকদের সঙ্গে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দফায় দফায় পাল্টাপাল্টি ধাওয়া ও সংঘর্ষ হয়। এতে অন্তত ২৫ জন আহত হন।