অর্থ ও বাণিজ্য জাতীয় ঢাকা প্রধান খবর

​চার মাসে ঘাটতি ৩১১৯ কোটি, শঙ্কায় এনবিআর

এম শাহজাহান,ঢাকা,২৭ নভেম্বর:  রাজনৈতিক অস্থিরতাসহ নানা জটিলতায় রাজস্ব আদায়ে ক্রমেই পিছিয়ে পড়ছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর)।

৩ হাজার কোটি টাকারও বেশী ঘাটতি নিয়ে অর্থ বছরের প্রথম ৪ মাস (জুলাই-অক্টোবর) শেষ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। তাই অব্যাহত এ ঘাটতিতে রাজস্ব আদায়ের কাঙ্খিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জন নিয়ে শঙ্কা প্রকাশ করেছেন সংশ্লিষ্টরা। চলতি অর্থবছর রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১ লাখ ৩৬ হাজার ৯০ কোটি টাকা।

এনবিআরের দেয়া তথ্য অনুসারে চলতি অর্থবছরে জুলাই থেকে অক্টোবর পর্যন্ত রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৬ হাজার ৬ শত ১২.৫২ টাকা যেখানে আদায় হয়েছে ৩৩ হাজার ৪ শত ৯২.৮৪ কোটি টাকা। অর্থ্যাৎ রাজস্ব ঘাটতি ৩ হাজার ১ শত ১৯.৬৮ কোটি টাকা।

তবে রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধির ধারা অব্যাহত রয়েছে। পূর্ববর্তী অর্থবছরের তুলনায় চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৬ শতাংশ। এর মধ্যে আয়করে সর্বোচ্চ ৩০ শতাংশ ও শুল্কে ২০ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছে।

এ বিষয়ে এনবিআরের আয়কর নীতির সদস্য সৈয়দ আমিনুল করিম বলেন, লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী মোট রাজস্ব আহরণে ঘাটতি থাকলেও প্রবৃদ্ধি কম নয়। চলমান রাজনৈতিক অস্থিরতার মধ্যেও আয়করে প্রবৃদ্ধি ৩০ শতাংশের ওপরে। সবকিছু ঠিক থাকলে বাজেটে নির্ধারিত আয়কর লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব।

এনবিআর সূত্রে জানা গেছে, চলতি ২০১৩-১৪ অর্থবছরে প্রথম চার (জুলাই-অক্টোবর) মাসে রাজস্ব আদায়ের চারটি খাত শুল্ক, স্থানীয় পর্যায়ে মূসক (ভ্যাট), আয়কর ও অন্যান্য খাতে নিট রাজস্ব আদায় হয়েছে ৩৩ হাজার ৪৯২ কোটি টাকা। গত অর্থবছরে এই সময়ে রাজস্ব আদায় হয়েছিল ২৮ হাজার ৭৫৯ কোটি টাকা। সে হিসেবে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ১৬ দশমিক ৩৮ শতাংশ।

এদিকে শুধু অক্টোবর মাসের রাজস্ব আদায়ের পরিসংখ্যান থেকে দেখা যায়, এ মাসে চারটি খাতে মোট রাজস্ব আদায় হয়েছে ৮ হাজার ৮২৬ কোটি ১৭ লাখ টাকা। এর মধ্যে ভ্রমণ ও অন্যান্য খাতে ৬০ কোটি টাকা, আয়করে ২ হাজার ৮৮০ কোটি টাকা, শুল্কে ২ হাজার ৫৪৫ কোটি ৩৭ লাখ টাকা ও মূসকে ৩ হাজার ৩৩৯ কোটি ৯৯ লাখ টাকা।

চলতি ২০১৩-১৪ অর্থবছরে প্রথম চার মাস (জুলাই-অক্টোবর) সবচেয়ে বেশি প্রবৃদ্ধি হয়েছে আয়কর খাতে। এ খাতে আদায় হয়েছে ১০ হাজার ১৯৬ কোটি ১৮ লাখ টাকা। পূর্ববর্তী ২০১২-১৩ অর্থবছরে একই সময়ে আদায় হয়েছিল ৭ হাজার ৮২৪ কোটি টাকা। সে হিসেবে আলোচ্য সময়ে এ খাতে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৩০ দশমিক ৩১ শতাংশ। কিন্তু আয়করে লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১১ হাজার ৫৮৪ কোটি টাকা।

প্রবৃদ্ধির দিক দিয়ে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে মূসক খাত। মূল্য সংযোজন কর (মূসক) খাতে আলোচ্য চার মাসে রাজস্ব আদায় করা হয়েছে ১২ হাজার ৪১৫ কোটি। পূর্ববর্তী বছরের একই সময়ে আদায় হয়েছিল ১০ হাজার ৩১৬ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। প্রবৃদ্ধি ২০ দশমিক ৩৪ কোটি টাকা।

জুলাই-অক্টোবর চার মাসে আমদানি পর্যায়ে শুল্ক ও সম্পূরক শুল্কে আদায় হয়েছে ১০ হাজার ৬৫৬ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। পূর্ববর্তী ২০১২-১৩ অর্থবছরে একই সময়ে এ খাতে আদায় হয়েছিল ১০ হাজার ৪০৯ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক ৩৭ কোটি টাকা। আলোচ্য সময়ে এ খাতে লক্ষ্যমাত্রা ১১ হাজার ৪৪৭ কোটি ৯৩ লাখ টাকা।

তবে ভ্রমণ ও অন্যান্য খাতে পূর্ববর্তী বছরের তুলনায় প্রথম চার মাসে প্রবৃদ্ধি কম হয়েছে। চলতি বছরের প্রথম চার মাসে এ খাতে ৩৩৩ কোটি টাকার লক্ষ্যমাত্রার বিপরীতে আদায় হয়েছে ২০৩ কোটি ৫৩ লাখ টাকা। প্রবৃদ্ধি কম হয়েছে ২ দশমিক ৩০ শতাংশ।