অপরাধ বরিশাল ভোলা রাজনীতি

অবরোধের কারণে ভোলার সাথে ২১টি রুটে বাস ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ

এম. শরীফ হোসাইন, ভোলা :  ১৮ দলীয় জোটের ডাকা ৪৮ ঘণ্টা অবরোধের প্রথম দিনে ভোলার ২১টি রুটে বাস ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ
রয়েছে। মঙ্গলবার ভোর থেকে জোটের নেতা-কর্মীরা এসকল রুটে অবস্থান নিয়ে প্রতিবন্ধকতার সৃষ্টি করে। সূত্রে জানা যায়, সকাল থেকে ভোলা-চরফ্যাশন সড়কের বিভিন্ন পয়েন্টে ১৮ দলীয় জোটের নেতা-কর্মীরা রাস্তায় গাছ ফেলে ও টায়ারে আগুন থেকে জেলার সাথে বরিশাল, কুমিল্লা, খুলনা, ঢাকা, চট্টগ্রাম, বেনাপোল, যশোর, সিলেট ও চরফ্যাশন থেকে অভ্যন্তরীণ রুট চেয়ারম্যান বাজার, শশীভূষণ, দক্ষিণ আইচা, আঞ্জুরহাট, বাবুরহাট, দুলারহাট, হাজীরহাট রুটে বাস চলাচল বন্ধ করে দেয়। সকাল ১১ টায় কেন্দ্রীয় যুবদল সহ-সম্পাদক ও জেলা যুবদল সহ-সভাপতি তরিকুল ইসলাম কায়েদের নেতৃত্বে সদর উপজেলার পানের আড়ত ও বেপারী বাজার এলাকায় বিএনপি নেতা-কর্মীরা রাস্তায় গাছ ফেলে ও টায়ারে আগুন জ্বালিয়ে অবরোধ সৃষ্টি করে। এদিকে ১৮ দলীয় জোটের তা-কর্মীরা ভোর থেকে চরফ্যাশনের বেতুয়া থেকে ঢাকা, ঘোষেরহাট থেকে ঢাকা, শশীভূষণ থেকে ঢাকা, কলমীরবখশি থেকে বরিশাল রুটে চলাচলকারী লঞ্চগুলোর চলাচল বন্ধ করে দেয়। অপরদিকে জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহবায়ক জামিল হোসেন ওয়াদুদের নেতৃত্বে ভোলার খেয়াঘাট এলাকায় বিএনপি নেতা-কর্মীরা অবস্থান নিয়ে ভোলা-বরিশাল লঞ্চ চলাচল বন্ধ করে দেয়। বাসমালিক সমিতির নেতা নূরুল ইসলাম হাওলাদার জানান, ১৮ দলীয় জোটের অবরোধের কারণে নাশকতার আশঙ্কায় ভোলা ও চরফ্যাশন থেকে দূরপাল্লা ও অভ্যন্তরীণ ১৬টি রুটের বাস চলাচল বন্ধকরে দেয়া হয়েছে। চরফ্যাশনের ঘোষেরহাট লঞ্চঘাটের মাস্টার সিরাজ সন্দার জানান, অবরোধের কারণে নাশকতার আশঙ্কায় চরফ্যাশন থেকে ৪টি রুটে  চলাচলকারী লঞ্চগুলোর চলাচল বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।