খুলনা জাতীয় শিক্ষাঙ্গন

উৎসব মুখর পরিবেশে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত

এম এইচ হোসেন, খুলনা থেকে :  উৎসব মুখর পরিবেশে বিভিন্ন কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে সোমবার খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস পালিত হয়। এ উপলক্ষে সকাল সাড়ে দশটায় শিববাড়ী মোড় থেকে রয়েল চত্বর পর্যন্ত এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করা হয়। র‌্যালীতে উপাচার্য প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান নেতৃত্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রেজারার খান আতিয়ার রহমান, ডীন, রেজিষ্ট্রার, ডিসিপ্লিন প্রধান, ছাত্র-বিষয়ক পরিচালক বিভাগীয় প্রধানসহ বিপুল সংখ্যক ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-কর্মকর্তা, কর্মচারী অংশ নেন। এছাড়া সকাল দশটায়  খুবির শহীদ মিনার চত্ত্বরে দিনব্যাপী রক্ত গ্রুপিং কর্মসূচী এবং বাদ যোহর বিশ্ববিদ্যালয় মসজিদে এ উপলক্ষে এক দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এখানে বিশ্ববিদ্যালয় এবং দেশের অগ্রগতি কামনা করে দোয়া করা হয়। বিকেলে শহীদ মিনার চত্ত্বরে ছাত্র-বিষয়ক পরিচালকের দফতরের ব্যবস্থাপনায় এক মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, সন্ধ্যা ৬টায় শহীদ মিনার, অদম্য বাংলা ও কটকা স্মৃতি সৌধে প্রদীপ প্রজ্জ্বলন এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের ভবনসমূহে রাতে আলোকসজ্জা করা হবে। এছাড়া হলসমূহে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন করা হয়।
উল্লেখ্য, ১৯৮৭ সালের ৪ জানুয়ারী গেজেটে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় সরকারি সিদ্ধান্ত প্রকাশিত হয়। ১৯৮৯ সালের ৯ মার্চ তৎকালীন রাষ্ট্রপতি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিত্তি প্রস্তুর স্থাপন করেন। ১৯৯০ সালের জুন মাসে জাতীয় সংসদে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় আইন পাশ হয়, যা গেজেট আকারে প্রকাশ হয় ওই বছর ৩১ জুলাই। ১৯৯০-৯১ শিক্ষাবর্ষে ৪ টি ডিসিপ্লি¬নে ৮০ জন ছাত্র-ছাত্রী ভর্তি করা হয়। ১৯৯১ সালের ৩ আগস্ট প্রথম ওরিয়েন্টেশন এবং ৩১ আগস্ট ক্লাশ শুরুর মাধ্যমে শিক্ষা কার্যক্রমের সূচনা হয়। পরে একই বছরের ২৫ নভেম্বর তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রম আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন। ২০০২ সালের ২৫ নভেম্বর ব্যাপক উৎসাহ উদ্দীপনা ও আড়ম্বরপূর্ণ পরিবেশে পালিত হয় প্রথম খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস। এরই ধারাবাহিকতায়  সেই থেকে প্রতিবছর ২৫ নভেম্বর খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস হিসেবে পালিত হয়ে আসছে। সেশনজট, সন্ত্রাস ও রাজনীতিমুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হিসেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষা কার্যক্রমের আজ ২৩ বছর পূর্ণ করলো।