অপরাধ জাতীয় ঢাকা প্রধান খবর রাজনীতি

তফসিল ঘোষণা করলে দেশ অচল: ফখরুল

 নিজস্ব প্রতিবেদক,হটনিউজ২৪বিডি.ঢাকা(২২নভেম্বর):  নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবি না মেনে একতরফা নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হলে জনগণকে সঙ্গে নিয়ে দেশ অচল করে দেয়া হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।
শুক্রবার বিকেলে রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ১৮ দলের বিক্ষোভ সমাবেশে এই হুঁশিয়ারি দেন তিনি। অসাংবিধানিকভাবে নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকার গঠনের প্রতিবাদ এবং নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকার ব্যবস্থার দাবিতে ঢাকা মহানগর ১৮ দল এ বিক্ষোভ সমাবেশের আয়োজন করে।

মির্জা ফখরুল ইসলাম বলেন, ‘আগামী সপ্তাহে নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হবে বলে আমরা শুনেছি। কিন্তু নির্বাচনকালীন নির্দলীয় সরকারের দাবি পূরণ হওয়ার আগ পর্যন্ত যদি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করা হয় তাহলে জনগণ সেই তফসিল মানবে না এবং সেই দিন তথা সেই মুহূর্ত থেকে দেশ অচল করে দেয়া হবে।’ তিনি বলেন, বর্তমান মন্ত্রিসভা অনৈতিক। তাই তাদের দেশ চালানোর কোনো নৈতিক অধিকার নেই।

বিএনপির ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব বলেন, ‘চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট নিরসনের জন্য আমরা জাতির অভিভাবক রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের কাছে গিয়েছিলাম। কিন্তু তিনি এখন পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ নিতে পারেননি। বরং তিনি নির্বাচনকালীন সর্বদলীয় সরকারকে রাষ্ট্র পরিচালনার অনুমতি দিয়েছেন বলে প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন।’ সরকার গণতন্ত্রকে কবর দিয়েছে বলে অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আওয়ামী লীগ আবার রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় ফিরে আসলে দেশের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্র ধ্বংস হয়ে যাবে।

ঢাকাবাসীর উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘দয়া করে আপনারা রাজপথে নেমে আসুন এবং চলমান আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়ুন। কারণ, রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমেই এই খুনি, সন্ত্রাসী ও অবৈধ সরকারকে ক্ষমতা থেকে সরে যেতে বাধ্য করতে হবে।’ মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আওয়ামী লীগ যাতে আবারো নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় আসতে পারে সে লক্ষ্যেই নির্বাচন কমিশন আইন করছে। ফলে এই সরকার এবং নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। তাই আমরা কোনো একতরফা নির্বাচনে যাব না এবং সে নির্বাচন হতেও দেয়া হবে না।’
নির্বাচনকালীন নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের দাবিতে আগামী রবিবার দেশের সকল উপজেলা, থানা ও পৌরসভা পর্যায়ে বিক্ষোভ কর্মসূচি ঘোষণা করেন বিএনপির এ ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব । আর পরবর্তী কর্মসূচি পরে ঘোষণা করা হবে বলে জানান ফখরুল।

ঢাকা মহানগর ১৮ দলের আহ্বায়ক সাদেক হোসেন খোকার সভাপতিত্বে সমাবেশে অন্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন- জাগপা সভাপতি শফিউল আলম প্রধান, এনডিপির চেয়ারম্যান খোন্দকার গোলাম মোর্ত্তজা, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস, ড. আবদুল মঈন খান, জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য অধ্যক্ষ ইজ্জত উল্লাহ, সৈয়দ আব্দুল্লাহ মো. তাহের, এলডিপির মহাসচিব ড. রেদোয়ান আহমেদ, খেলাফত মজলিশের মহাসচিব ড. আব্দুল কাদের,  বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা শামসুজ্জামান দুদু, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, বরকত উল্লাহ বুলু, সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, ঢাকা মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব আব্দুস সালাম, শ্রমিক দলের সাধারণ সম্পাদক জাফরুল হাসান, মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা শিরিন সুলতানা প্রমুখ।

সমাবেশে লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জাগপা সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, এনডিপির মহাসচিব আলমগীর মজুমদার, ঢাকা মহানগর কল্যাণ পার্টির সভাপতি নুরুল কবির ‍ভূইয়া  পিন্টু, বাংলাদেশ ন্যাপ ঢাকা মহানগরের সাধারণ সম্পাদক শহীদুননবী ডাবলু, ঢাকা মহানগর এনডিপির সাধারণ সম্পাদক মো. ফরিদ উদ্দিন, যুবদলের সিনিয়র সহ-সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুস সালাম আজাদ, ছাত্রদলের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক এস এম ওবায়দুল হক নাসির, সিনিয়র সহ-সভাপতি বজলুল করিম চৌধুরী আবেদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।