খুলনা যশোর শিক্ষাঙ্গন

যশোরে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষায় ৫৩ হাজার শিক্ষার্থী অংশ গ্রহণ

 রিপন হোসেন, যশোর থেকে: আজ থেকে শুরু হচ্ছে প্রাথমিক ও ইবতেদায়ী শিক্ষা সমাপনী পরীক্ষা। এবার যশোর জেলা থেকে ৫৩ হাজার ৩৪ জন শিক্ষার্থী এই পরীক্ষায় অংশ নিচ্ছে। ১৩২টি কেন্দ্রে এ পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ বছর পরীক্ষার সময় ৩০ মিনিট বাড়িয়ে আড়াই ঘণ্টা করা হয়েছে।জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার সুব্রত কুমার বণিক জানান, সমাপনী পরীক্ষায় যশোর জেলায় ৫৩ হাজার ৩৪ জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করবে। এরমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে ৪৬ হাজার ৩৯৭ জন এবং ইবতেদায়ী মাদ্রাসার ৬ হাজার ৬৩৭ জন শিক্ষার্থী অংশ নিবে। সদর উপজেলার ১৩ হাজার ৬৮৭ জন শিক্ষার্থী ২৩টি কেন্দ্রে পরীক্ষায় অংশ নিবে। এরমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১২ হাজার ৫০১ জন এবং ইবতেদায়ী মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ১৮৬ জন। অভয়নগর উপজেলার ১১টি কেন্দ্রে ৪ হাজার ৫০২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ গ্রহণ করবে। এরমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩ হাজার ৮৫৯ জন এবং মাদ্রাসার ৬৪৩ জন। কেশবপুর উপজেলার ১৭টি কেন্দ্রে ৪ হাজার ৭৪২ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষায় অংশ নেবে। এরমধ্যে মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৭৭৫ জন এবং প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩ হাজার ৯১৪ জন। চৌগাছা উপজেলার ১৮টি কেন্দ্রে ৪ হাজার ৯১৪ জন শিক্ষার্থীর মধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ৪ হাজার ৪৭৮ জন এবং মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪৩৬ জন। ঝিকরগাছা উপজেলার ১২টি কেন্দ্রে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫ হাজার ৯৮০ জন। এরমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫ হাজার ৩০১ জন ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৬৭৯ জন। বাঘারপাড়া উপজেলায় ৪ হাজার ২৭৯ জন শিক্ষার্থী ১৭টি কেন্দ্রে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে সমাপনী পরীক্ষা। এরমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৩ হাজার ৪১০ জন এবং মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৮৬৩ জন। মনিরামপুর উপজেলার ২১টি কেন্দ্রে ৮ হাজার ৪১০ জন শিক্ষার্থী অংশ গ্রহণ করবে। এরমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৭ হাজার ১০৪ জন এবং মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১ হাজার ৯৭ জন। শার্শা উপজেলায় ৬ হাজার ৫২৭ জন শিক্ষার্থী অংশ সমাপনী পরীক্ষায় অংশ নেবে। এরমধ্যে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৫ হাজার ৭৭৭ জন এবং মাদ্রাসার শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৭৫২ জন।