জাতীয় ঢাকা রাজনীতি সারাদেশ

রাষ্ট্রপতিতে আপত্তি নেই, হাসিনার বিকল্প চাইবেন- খালেদা

 নিজস্ব প্রতিবেদক,হটনিউজ২৪বিডি.কম, ঢাকা:  রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে মঙ্গলবার অনুষ্ঠেয় বৈঠকে চলমান রাজনৈতিক সঙ্কট নিরসনের উদ্যোগ নেয়ার অনুরোধ জানাবেন বিরোধীদলীয় নেতা বেগম খালেদা জিয়া। পাশাপাশি ১৮ দলীয় জোটের অবস্থান তুলে ধরে নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান পদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিকল্প চাইবেন তিনি। প্রয়োজনে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান হলে তাদের আপত্তি থাকবে না! আলাপকালে এমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছেন বিএনপি নেতারা। রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের সঙ্গে আলাপ-আলোচনার জন্য সময় চেয়ে বঙ্গভবনে চিঠি দেয় বিএনপি। এর পরিপ্রেক্ষিতে বঙ্গভবন থেকে বৈঠকের জন্য মঙ্গলবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টায় বেগম জিয়াকে সময় দেয়া হয়। এরপরই দলের এবং জোটের সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠকে বসেন খালেদা জিয়া। সোমবার রাত সাড়ে ৮টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত চলে বৈঠক। বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, আলাপকালে নির্বাচনকালীন সরকারের বিষয়ে রাষ্ট্রপতির কাছে একটি লিখিত বক্তব্য পেশ করা হবে। এছাড়া সুষ্ঠু অবাধ নির্বাচনের জন্য একটি লেভেল প্লেইং ফিল্ড তৈরি, নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান পদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিকল্প সন্ধান, নেতাকর্মীসহ স্থায়ী কমিটির সদস্যদের গ্রেপ্তারসহ দেশের সার্বিক রাজনৈতিক পরিস্থিতি তুলে ধরে সঙ্কট নিরসনে রাষ্ট্রপতিকে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জনানো হবে। প্রয়োজন রাষ্ট্রপতি নির্বাচনকালীন সরকারের প্রধান হলেও আপত্তি নেই, এমন প্রস্তাব তুলে ধরা হবে বলে জানায় সূত্র।

বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে আলোচনা করতে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বে ১৮ দলীয় জোটের ২০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল যাবে। এর মধ্যে ১৭ দলের শীর্ষ পর্যায়ের ১০ জন এবং বিএনপির ১০ জন সিনিয়র নেতা এই প্রতিনিধি দলে থাকবেন। প্রতিনিধি দলে জামায়াতের দুইজন প্রতিনিধি, এলডিপির কর্নেল (অব.) অলি আহমেদ, জাতীয় পার্টির আন্দালিব রহমান পার্থ, ইসলামী ঐক্যজোটের আব্দুল লতিফ নেজামী, জাগপার শফিউল আলম প্রধান, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহীম, এনপিপির গোলাম মূর্তজা, লেবার পার্টির মোস্তাফিজুর রহমান ইরান থাকবেন। বিএনপির পক্ষে ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. আর গণি, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আ স ম হান্নান শাহ, মাহাবুবুর রহমান, ব্যারিস্টার জমির উদ্দিন সরকার, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ড. আব্দুল মঈন খান, নজরুল ইসলাম খান থাকবেন। তবে দু-একটি নাম পরিবর্তন হতে পারে বলে জানিয়েছে দলীয় সূত্র।

উল্লেখিত নেতাদের মঙ্গলবার বিকেল সাড়ে ৪টার মধ্যে খালেদা জিয়ার গুলশান কার্যালয়ে থাকতে বলা হয়েছে।

সোমবার রাত সাড়ে ৮টা থেকে ১২টা পর্যন্ত দফয় দফায় অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন বিএনপি ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান সেলিমা রহমান, শমসের মবিন চৌধুরী, আব্দুল্লাহ আল নোমান, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা মে. জে. (অব.) রুহুল আলম চৌধুরী, আব্দুল মান্নান, ড. ওসমান ফারুক, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, সাবিহ উদ্দিন আহমেদ,  যুগ্ম-মহাসচিব আমান উল্লাহ আমান, সালাহ উদ্দিন আহমেদ, সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মাহমুদুল হাসান, এমএ কাইয়ুম, আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক নাসির উদ্দিন অসিম, প্রচার সম্পাদক জয়নুল আবদীন ফারুক, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক খাইরুল কবির খোকন, সংরক্ষিত নারী সংসদ সদস্য রেহেনা আক্তার রানু, শাম্মী আক্তার প্রমুখ। এছাড়া ১৮ দলীয় জোট নেতাদের মধ্যে এলডিপির অলি আহমেদ, বিজেপির আন্দালিভ রহমান পার্থ, ইসলামী ঐক্যজোটের আব্দুল লতিফ নেজামী, কল্যাণ পার্টির সৈয়দ মুহাম্মদ ইব্রাহিম, এনপিপির গোলাম মূর্তজা উপস্থিত ছিলেন।