কৃষি রাজশাহী

রাজশাহীতে পানচাষে বিপ্লব

 রাজশাহী অফিস, ১৬ নভেম্বর :  রাজশাহীর পানের স্বাদ ও মান অতুলনীয়। দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে রাজশাহীর পানের চাহিদা ব্যাপক। ফলে রাজশাহীতে দিন দিন বাড়ছে পানচাষ।
বলা যায়, নানা প্রতিকূলতার মধ্য দিয়ে পানচাষ করে কৃষি ক্ষেত্রে বিপ্লব ঘটিয়ে এক নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছেন রাজশাহীর পান চাষীরা। এ অঞ্চলের মানুষ পানচাষ করে মাত্র দুই থেকে আড়াই বছরে স্বাবলম্বী হচ্ছে। জেলার ৬টি উপজেলার লক্ষাধিক পানচাষী নানান সমস্যা, বিভিন্ন ধরনের রোগ-বালাই আর প্রাকৃতিক প্রতিকূলতা জয় করে ইতোমধ্যেই অর্থনৈতিকভাবে সচ্ছল হওয়ার দৃষ্টান্ত দেখিয়েছেন।  জেলার দুর্গাপুর, বাগমারা, পুঠিয়া, চারঘাট, মোহনপুর ও পবা উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় দেখা গেছে, এই এলাকাগুলোতে বেড়েছে নতুন পান সংখ্যা। ইতোমধ্যেই ৬টি উপজেলার আবাদি জমির প্রায় এক-তৃতীয়াংশ জমিতে পানচাষ হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্ট কৃষকদের দাবি। খড়কুটো আর বাঁশ বেতের মাধ্যমে নির্মিত পান বরজ দেখলেই পথচারীরা অবাক হয়ে ওঠেন। পান বরজের অপরূপ দৃশ্য দেখতে থমকে দাঁড়ান তারা। শুধুমাত্র দুর্গাপুর উপজেলার উৎপাদিত পান বিক্রির জন্য বড়-ছোট মিলে ১০টি পানহাট রয়েছে। এছাড়া এ অঞ্চলের পানহাটগুলোর মধ্যে পুঠিয়ার বানেশ্বর ও ঝলমলিয়া, বাগামারা একদিলতলা ও মোহনপুরের মৌগাছি হাট উল্লেখযোগ্য।

এই হাটগুলোতে পান কেনার জন্য দেশের রংপুর, দিনাজপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড়, ঠাকুরগাঁ, বগুড়া, গাইবান্ধা, যশোর, ময়মনসিংহ, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ বিভিন্ন জেলা থেকে আসেন পাইকারি ব্যবসায়ীরা।দুর্গাপুর উপজেলার সরকার পাড়া গ্রামের সফল পানচাষী জাহাঙ্গীর আলম, বেলাল হোসেন, হোসেন আলী ও হযরত আলী জানান, বর্তমানে পানচাষ অত্যন্ত লাভজনক।  বিভিন্ন ধরনের  রোগ-বালাই ও প্রতিকূলতা কমে আসায় অন্যান্য ফসলের তুলনায় পানচাষ করে আর্থিকভাবে বেশি লাভবান হয় কৃষক।
একই এলাকার পানচাষী আকবর আলী জানান, ১০ কাঠা জমিতে পান বরজ থাকলে তিন সদস্যের একটি পরিবার সারাবছর পারিবারিক ব্যয় নির্বাহ করেও দেড় লক্ষাধিক টাকা আয় করতে পারবেন একজন কৃষক। যা অন্য কোনো ফসল আবাদ করে সম্ভব নয়। এ অঞ্চলের অন্যান্য পানচাষী জানান, রোগবালাইয়ের কারণ উদ্ঘাটন ও নির্ণয়ের জন্য রাজশাহীতে একটি পান গবেষণাগার স্থাপন অত্যন্ত জরুরি। xPAn20131116150030.jpg.pagespeed.ic.bMVldeONKbপবা উপজেলার বড়গাছী ইউনিয়নের তেকাটিয়া গ্রামের পানচাষী ইছাহাক আলী ও ইমরান হোসেন জানান, বর্তমানে পানের যে দাম আছে তাতে সকল প্রকার রোগের নির্ভরযোগ্য প্রতিষেধক পাওয়া গেলে পান চাষীরা আরো লাভবান হতে পারবেন। .

এ বিষয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর রাজশাহীর উপ পরিচালক নুরুল আমীন বলেন, এ অঞ্চলের ভিটা ও উঁচু জমি পান চাষের জন্য বেশ উপযোগী। ইতোমধ্যেই পান চাষে বিপ্লব ঘটিয়ে নতুন অধ্যায়ের সূচনা করেছেন এ অঞ্চলের পানচাষীরা। গবেষণাগার স্থাপনের দাবির বিষয়টি ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।